নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা (ডিএনডি) প্রকল্পের অভ্যন্তরে বন্যা নিয়ন্ত্রণ ও জলাবদ্ধতা দূরীকরণে নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য ‘ডিএনডি এলাকার পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন (দ্বিতীয় পর্যায়)’ শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্যে অবশেষে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মধ্যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে।
গত ২১ সেপ্টেম্বর পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সমঝোতা স্মারকটি স্বাক্ষরিত হয়।

যার ফলে ডিএনডির অভ্যন্তরে জলাবদ্ধতা নিরসনে সরকারের নেয়া পদক্ষেপটি দৃশ্যমান হয়েছে বলে মন্তব্য করেন সচেতন মহল।
৫৫৮ কোটি টাকা ব্যয়সংবলিত প্রকল্পটি ২০২০ সালের ৩০ জুনের মধ্যে সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ডিএনডি এলাকার প্রায় ২০ লাখ মানুষের জলাবদ্ধতার দূর্ভোগ লাঘব হবে।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়, প্রকল্প এলাকার জলাবদ্ধতা থেকে উত্তরণের লক্ষ্যে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সমীক্ষার সুপারিশের আলোকে পানি উন্নয়ন বোর্ড ‘ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ-ডেমরা (ডিএনডি) এলাকার পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার উন্নয়ন (দ্বিতীয় পর্যায়)’ শীর্ষক প্রকল্পটি প্রণয়ন করে। ১ জুলাই ২০১৬ থেকে ৩০ জুন ২০২০ পর্যন্ত মেয়াদে ৫৫৮ কোটি ১৯ লাখ ৭৯ হাজার টাকা ব্যয়সংবলিত প্রকল্পের ডিপিপি ২০১৬ সালের ৯ আগস্ট একনেকে অনুমোদিত হয়।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, প্রকল্প বাস্তবায়নে পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন এবং স্থানীয় সরকার বিভাগ সম্পৃক্ত থাকবে।

সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পক্ষে ২৪ ইঞ্জিনিয়ার কনস্ট্রাকশন ব্রিগেডের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইফতেখার আনিস এবং ঢাকা সেনানিবাসের প্রকল্প পরিচালক লে. কর্নেল মোহাম্মদ রুমিও নওরীন খান উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে, জলাবদ্ধতা নিরসনে সেনাবাহিনীর সাথে পানি উন্নয়ণ বোর্ড (পাউবো) এর সমাঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হওয়ায় স্বস্তি ফিরে এসেছে বহু বছর যাবত দূর্ভোগ পোহানো ডিএনডিবাসীর মাঝে। তারা এখন আর কালক্ষেপন না করে জলাবদ্ধতা নিরসনে দ্রুত কাজ শুরু করতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রতি উদাত্ত আহাবান জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here