নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: বলা হয়ে থাকে, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের জন্মস্থান হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ। কিন্তু স্বাধীনতা যুদ্ধের পর এ যাবতকাল পর্যন্ত আওয়ামীলীগ যতবারই রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হয়েছে, ততবারই অবমূল্যায়িত ছিল এই নারায়ণগঞ্জ। আদৌ পর্যন্ত এই জেলার কোন এমপিকে আওয়ামীলীগ সরকারের মন্ত্রী কিংবা প্রতিমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত করা হয়নি। যার ফলে স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দদের মাঝেও এক ধরনের ক্ষোভ ছিল।

তবে আওয়ামীলীগের শাসনামলে জেলায় কেউ মন্ত্রীত্ব না পেলেও শেষতক নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীকে উপমন্ত্রীর (সর্বাধিক নিম্নপদস্থ মন্ত্রী) পদমর্যাদা দিয়েছে বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার।

গত ৭ নভেম্বর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহামান্য রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীকে স্ব পদে অধিষ্ঠিত থাকাকালীন উপমন্ত্রীর পদমর্যাদা, বেতন-ভাতা ও আনুষঙ্গিক অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রদান করার নির্দেশ দেয়া হয়।

আইভী হচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের টানা দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত প্রথম নারী মেয়র। যিনি গত বছর ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনয়নে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দীতা করেছিলেন। বিএনপির মেয়র প্রার্থী এড. সাখাওয়াত হোসেন খানকে বিপুল ভোটে পরাজিত করে নির্বাচিত হয়েছিলেন মেয়র।

তবে আইভীর এই উপমন্ত্রীর পদমর্যাদাটাকে ‘মন্দের ভাল’ হিসেবে দেখছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

কারন হিসেবে তারা বলেন, ‘স্বাধীনতার পর বিএনপি সরকার রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসার পর নারায়ণগঞ্জের একাধিক এমপি মন্ত্রী প্রতিমন্ত্রী হয়েছিলেন। কিন্তু আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর এ যাবতকাল পর্যন্ত জন্মস্থান নারায়ণগঞ্জের কোন এমপিকে মন্ত্রী প্রতিমন্ত্রী পদে অধিষ্ঠিত করেননি। অথচ, আওয়ামীলীগের দু:সময়ে রাজধানীর নিকটবর্তী এই জেলা ছিলো আন্দোলন সংগ্রামের সুঁতিকাগার। নারায়ণগঞ্জের নেতাকর্মীরা রাজপথে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তুলে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে প্রতিষ্ঠিত করতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছিল সব সময়। নারায়ণগঞ্জ থেকে জন্ম নিয়েছে একেএম শামীম ওসমান, নজরুল ইসলাম বাবু, গোলাম দস্তগীর গাজী, সেলিনা হায়াত আইভীর মতো রাজপথ কাঁপানো নেতা। কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাসের শিকার হয়ে তাই বারবারই বঞ্চিত আর অবহেলিত থাকতে হয়েছে তাদের।’

তাই আওয়ামীলীগ সরকারের শেষ সময়ে এসে নাসিক মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীকে উপমন্ত্রীর পদমর্যাদা প্রদান করা ‘মন্দের ভাল’ ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না বলে অভিমত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের। অর্থাৎ সরকারের কোন মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পাওয়ার পরিবর্তে পদমর্যাদা প্রাপ্তিটাই এখন স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দদের কাছে বড় অর্জন হিসেবে বিবেচ্য হচ্ছে।

কেননা, উপমন্ত্রীর পদমর্যাদায় আইভী শুধু মাত্র প্রটৌকল, বেতন ভাতাসহ রাষ্ট্রীয় সকল সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। কিন্তু কোন সরকারের মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না। তাই নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগে মন্ত্রীত্ব না পাওয়ার হতাশা রয়েই গেল বলে মন্তব্য করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

তবে উপমন্ত্রীর পদমর্যাদা পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামীলীগ সভাপতি শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এবং নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগে সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা: সেলিনা হায়াত আইভী। তিনি তার এই পদমর্যাদা নারায়ণগঞ্জবাসীকে উৎস্বর্গ করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here