নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জের হকার ইস্যুতে ঘটে যাওয়া সংঘর্ষের ঘটনার সূত্র ধরে ডাকা সংবাদ সম্মেলনে বিগত দুটি সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে সাংসদ শামীম ওসমানের ইংগিতপূর্ণ মন্তব্যে সিটি মেয়র আইভীর মেয়র নির্বাচনের স্বচ্ছতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূল নেতাকর্মীরা। দলীয় সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত সেই সিটি নির্বাচনে কারচুপির মাধ্যমে বিএনপি প্রার্থীকে হারানো হয়েছে বলে মনে করেন তারা। এবং এতোদিনে নিজেদের মধ্যেকার বিরোধের জেরে সে সত্য বেড়িয়ে আসছে বলেও জানায় বিএনপি’র তৃণমূল।
নারায়ণগঞ্জ বিএনপি সূত্রে জানা যায়, প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র নেতাকর্মীরা সতস্ফুর্তভাবে ভোট প্রদান করে। ইতিপূর্বে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহন না করায় দলীয় প্রতীক ধানের শীষে ভোট দিতে উদগ্রীব ছিলো নারায়ণগঞ্জের জিয়ার সৈনিকরা। দীর্ঘদিন পর দলীয় প্রতীক পেয়ে তারা সকল মতভেদ ভুলে গিয়ে ধানের শীষে ভোট প্রদান করে। কিন্তু ফলাফল ঘোষনার পর দেখা যায়, বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী এড. সাখাওয়াত হোসেন খান প্রায় লক্ষাধীক ভোটের ব্যবধানে নৌকার প্রার্থী ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর কাছে পরাজিত হন। নির্বাচনের এই অনাকাঙ্খিত ফলাফল তখনই প্রত্যাখ্যান করে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূল নেতাকর্মীরা। সেই সাথে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তুলেন তারা। সাংসদ শামীম ওসমানের সাথে সিটি মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর হকার ইস্যুতে সৃষ্ট বিরোধের জেরে সেই অভিযোগের সত্যতা বেড়িয়ে আসছে নির্বাচনের এক বছর পরে-এমনটাই অভিমত নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূলের।

এ বিষয়ে বিগত নাসিক নির্বাচনে পরাজিত বিএনপি দলীয় মেয়র প্রার্থী এড. সাখাওয়াত হোসেন খান নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, নির্বাচনের পরদিনই আমি বলেছিলাম নির্বাচনে কারচুপির মাধ্যমে ধানের শীষকে পরাজিত করা হয়েছে। শামীম ওসমানের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে আমার সেই কথারই প্রতিফলন ঘটেছে। দেশের সর্বোচ্চ পর্যায়ের সুক্ষ্ম কারচুপির মাধ্যমে বিএনপিকে পরাজিত করার প্রমাণ মিলেছে শামীম ওসমানের ব্ক্তব্যে।

হকার ইস্যুতে সৃষ্ট অপ্রিতিকর ঘটনা সূত্রে ডাকা সংবাদ সম্মেলনে সাংসদ শামীম ওসমান বলেছিলেন, গত এক বছর নির্বাচন পরিহার করার পরও কিভাবে নির্বাচন করেছি, কেমনে করেছি। প্রথমটা কি হয়েছে? দ্বিতীয়টা কি হয়েছে? শামীম ওসমান জোর দিয়ে বলেন- কোন স্টাইলে নির্বাচন হয়েছে। কোথায় কি হয়েছে- এখনও মুখ খোলার সময় হয়নি। আমার সমস্যা হচ্ছে আমি সংগঠনটা খুব সিনসিয়ারলি করি বিধায় এই কথাগুলো বলতে পারি না। তবে একটা পর্যায় পর্যন্ত অপেক্ষা করবো। তারপর বলবো কিভাবে কাকে কিভাবে পাস করানো হয়েছে। সে বিষয়ে আমি আসতে চাই না। আমি শুধু এটুকু বলতে চাই। যে একটা বছর নির্বাচন করেছি, যা কিছু করার দরকার করেছি। ধন্যবাদ পাওয়ার জন্য করিনি। আমার নেত্রী নির্দেশ দিয়েছেন নেত্রীর নির্দেশের জন্যই আমি আমার কাজ করেছি। এবং আমি আমার কাজ হান্ড্রেড পার্সেন্ট সততার সঙ্গে দলের প্রতি আনুগত্য রেখেই কাজ করেছি। আমি কোন ধন্যবাদ পাইনি। আমি তার (আইভী) ধন্যবাদ চাইও না। বিকজ আমি যা করেছি দলের জন্য এবং নৌকা মার্কার পক্ষে করেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here