প্রেস বিজ্ঞপ্তি: ঐতিহাসিক সোনারগাঁ উপজেলার উত্তরে মেঘনা নদী। এই মেঘনা থেকে উৎপত্তি মেনীখালী নদীটি দক্ষিনে বয়ে চলেছে- শেষ হয়েছে, এক সময়ের প্রখ্যাত কাইকারটেক হাট ও ব্রহ্মপুত্র নদ। মেনীখালী নদীর উত্তর পাশের্^ পিরোজপুর, শম্ভুপুরা ও মোগড়াপাড়া ইউনিয়ন।
বেশ কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার একর কৃষি জমির সেচের পানির উৎস। এই নদীটির উৎস মুখের মেঘনা প্রায় ১৮-২০ একর জমি নদী খেকরা ভরাট করছে। কয়েক শত গজ দুরে উপজেলা নির্বাহী অফিস ও থানা।

দেশের আইনেই শুধু নয় মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা অগ্রাহ্য করে আইনরক্ষাকারী কর্তৃপক্ষের নাকের ডগায় এই বেআইনী কাজ মহা সমারোহে দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে। এটা কি বিশ^াস করা যায় যে, কর্তৃপক্ষের নজরে এখনও পড়ে নাই? আামদের বিশ^াস তাদের জ্ঞাতসারেই এই কাজ চলছে। এদিকে নদীটির এই অবস্থায় হাজার হাজার কৃষনের জীবন ও জীবিকা অনিশ্চয়তার মুখে পড়েছে। অচিরেই নদীটি বিলীন হবে। চারপাশের পরিবেশও বিপন্ন, হুমকির মূখে।

আমরা নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটি ও বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের পক্ষ থেকে এই বেআইনী ও হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্যকারীদের কঠোর শাস্তি দাবী সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিরবতার কঠোর নিন্দা জানাই। আমাদের দাবী অতি দ্রুত জেলা প্রশাসক সরজমিনে তদন্ত করে নদীর উৎস মুখ খোলা সহ পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে নিয়ে হাজার হাজার দুঃচিন্তাগ্রস্ত কৃষকের জীবন -জীবিকা ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিট ও পরিবেশ আন্দোলন জেলা কমিটির সভাপতি এডভোকেট এ বি সিদ্দিক , নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সাধারণ সম্পদক আবদুর রহমান ও পরিবেশ আন্দোলন জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ তারিক বাবু ।

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here