নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: আগামী মাসে ঈদুল আজহা শেষে দীর্ঘ ৭ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন।
আর এলক্ষ্যে ইতিমধ্যেই নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমানের নির্দেশনা মোতাবেক জাতীয় পার্টি জেলা ও মহানগর নতুন কমিটির খসড়া তালিকাও প্রস্তুত করে ফেলেছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ ও জাতীয়পার্টির যুগ্ম মহাসচিব আলহাজ¦ লিয়াকত হোসেন খোকা ও জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের।

দলীয় সূত্রে জানাগেছে, ঈদের পর সেলিম ওসমান ও লিয়াকত হোসেন খোকার সাথে স্থানীয় জাতীয়পার্টির নেতৃবৃন্দরা বৈঠক করেই কেন্দ্রের অনুমতি সাপেক্ষে সম্মেলনের প্রস্তুতি নিবেন।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে জানান, ‘আগামী ঈদের পরেই জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির নতুন কমিটি গঠন হবে সম্মেলনের মাধ্যমে। ইতিমধ্যেই নতুন কমিটির খসড়া প্রায় প্রস্তুত হয়ে গেছে।’

তবে নতুন নেতৃত্বে কারা আসতে যাচ্ছেন এব্যাপারে কিছু জানাতে অস্বীকৃতি জানান আবুল জাহের।

এদিকে, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জে জাতীয়পার্টির রাজনীতিতে গতিশীলতা আনতে সম্মেলনের মাধ্যমে শুধু ‘কর্মীবান্ধব’ নয়, ‘জনবান্ধব’ নেতৃত্বের বিকাশ ঘটবে বলে প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেছেন, তৃণমূলসহ মহানগরের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।

তাদের মতে, জনবান্ধব নেতার নেতৃত্বে জাতীয়পার্টি গঠিত হলে রাজনৈতিক কর্মীদের পাশাপাশি সাধারন জণগনেরও এই দলের প্রতি আগ্রহ বাড়বে। এর জন্য প্রয়োজন ক্লীন ইমেজের ব্যাক্তিও।

জানাগেছে, সর্বশেষ ২০০৯ সালে নারায়ণগঞ্জে জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এরপর ২০১৩ সালে সেই কমিটি ভেঙ্গে আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। যেখানে জেলা আহবায়ক করা হয় আবুল জাহেরকে। আর মহানগর কমিটির আহবায়ক সানাউল্লাহ সানু এবং সদস্য সচিব করা হয় আকরাম আলী শাহীনকে। যারা অদ্যবধি এই পদে অধিষ্ঠিত আছেন।

তাই নারায়ণগঞ্জে জাতীয় পার্টিতে চাঙ্গাভাব ফিরাতে গত ৩১ জুলাই জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন করার লক্ষ্যে দলটির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার সম্মেলনের প্রস্তুতি নিতে জেলার নেতৃবৃন্দের নির্দেশ দিলেও ঐদিন জাতীয়পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের প্রয়াত সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসিম ওসমানের জন্মদিন উপলক্ষ্যে তার নামে বন্দরে সেলিম ওসমানের অর্থায়নে নির্মিত নাসিম ওসমান মডেল হাই স্কুল উদ্বোধনে দলীয় চেয়ারম্যান আলহাজ¦ হুসেইন মোহাম্মদ নারায়ণগঞ্জে আসায় সম্মেলনটি স্থগিত করা হয়।
যা এখন আগামী ঈদুল আজহার পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।

অপরদিকে, সম্মেলনকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জে জাগ্রত হচ্ছেন জাতীয়পার্টির নেতাকর্মীরা। তৃণমূলের প্রত্যাশা সম্মেলনের মাধ্যমে ত্যাগী, যোগ্য ও কর্মী জনবান্ধব নেতাদেরই যেন নতুন নেতৃত্বে আসেন। কারন নতুন নেতৃত্বের মাধ্যমেই আগামী সংসদ নির্বাচনে জাতীয়পার্টির প্রার্থীদের জয় পরাজয় নির্ভর করবে।

আর তৃণমূলের সাথে একমত পোষণ করে মহানগর জাতীয় পার্টির সদস্য সচিব আকরাম আলী শাহীনও বলেন, আগামী সম্মেলনের মাধ্যমে যারা নেতৃত্বে আসবেন তাদের শুধু কর্মীবান্ধব নয়, জনবান্ধবও হতে হবে। সমাজে ভাল লোক হিসেবে তাদের পরিচিতি থাকতে হবে। তাহলেই নতুন নেতৃত্বের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ জাতীয় পার্টিতে নতুন প্রাণের সঞ্চার ঘটবে, দলে গতিশীলতা ফিরে আসবে।

প্রসঙ্গত, বিগত ২০১৪ সালের ৩০ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের তৎকালীন সাংসদ ও জাতীয়পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ একেএম নাসিম ওসমান মারা যাওয়ার পর তাঁর শূণ্য আসনে সেলিম ওসমান সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার পর শহরের বি.বি রোডে অবস্থিত জাতীয়পার্টির কার্যালয়টি বন্ধ করে দিয়ে অন্যত্র কার্যালয় করার নির্দেশ দেন দলীয় নেতাদের।

কিন্তু সেই নাসিম ওসমান মারা যাওয়ার ৩ বছরেও নারায়ণগঞ্জে আর জাতীয়পার্টির কার্যালয় গড়ে না উঠায় অস্তিত্ব সংকটে পড়ে যায় দলটি। ছন্নছাড়া হয়ে পড়ে অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরাও। জাতীয়পার্টি জেলা আহবায়ক আবুল জাহের কে কার্যালয়ের স্থান খুঁজার জন্য সেলিম ওসমান নির্দেশনা দিলেও তিনি তা গ্রাহ্য করেন নি। যার ফলে দলটির নেতাকর্মীরা আবুল জাহেরের প্রতি অগোচরে অনেক ক্ষোভ প্রকাশ করেন। নারায়ণগঞ্জে জাতীয়পার্টির নেতাকর্মীদের ছন্নছড়া হওয়ার মূলে তাকেই দায়ী করেন শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।

যেই কারনে নারায়ণগঞ্জ জাতীয়পার্টিতে প্রাণ ফেরাতে গত মাসে একটু হার্ডলাইনেই যান সেলিম ওসমান।

আগামী জুলাই-আগষ্ট মাসের মধ্যে নারায়ণগঞ্জে দলীয় কার্যালয় এবং সকল পর্যায়ে নতুন কমিটি গঠনে জাতীয়পার্টির যুগ্ম মহাসচিব ও নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ আলহাজ¦ লিয়াকত হোসেন খোকা এবং জাতীয়পার্টি জেলা আহবায়ক আবুল জাহেরকে দায়িত্ব দেন তিনি। একই সাথে ঘোষণাও দেন যদি আগামী জুলাই আগষ্ট মাসের মধ্যে জাতীয় পার্টির নতুন কমিটি ও অফিস খোকা এমপি ও আবুল জাহের করতে না পারেন তাহলে প্রয়োজনে তিনি জাতীয় পার্টি ছেড়ে দিবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here