নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি ডেস্ক: চলতি মাসের শেষের দিকে জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য সেলিম ওসমানের ব্যক্তিগত অর্থায়নে নির্মিত তিনটি স্কুলের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হতে যাচ্ছে। স্কুলটি তিনটি হলো বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নে নাগিনা জোহা উচ্চ বিদ্যালয়, ধামগড় ইউনিয়নে শেখ জামাল উচ্চ বিদ্যালয় ও মুছাপুর ইউনিয়নে শামসুজ্জোহা এমবি ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়।

বৃহস্পতিবার (২ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত তিনি সরেজমিনে তিনটি স্কুলের শেষ পর্যায়ের নির্মাণ কাজের পরিদর্শন করেন। এসময় তিনি স্কুলগুলোর সর্বশেষ প্রস্তুতির সামান্য কিছু ত্রুটি দেখতে পান।

পরে তিনি প্রতিটি স্কুলের পরিচালনা পরিষদের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে সে সকল বিষয়গুলো দ্রুত সমাধানের নির্দেশ দিয়ে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের ব্যাপারে প্রস্তুতি নেওয়ার কথা বলেন।বন্দর ইউনিয়নে নাসিম ওসমান মডেল হাইস্কুলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এর নাম প্রকাশ করা হলেও উক্ত স্কুলগুলোর উদ্বোধনে কে অতিথি হয়ে আসছেন এ ব্যাপারে সুস্পষ্টভাবে কিছুই বলেননি।

স্কুল পরিচালনা পরিষদের নেতৃবৃন্দ ছাড়াও তিনি তিনটি স্কুলের শিক্ষার্থীদের সাথেও খোলামেলা কথা বলেন এমপি সেলিম ওসমান। এ সময় শিক্ষার্থীদের সাথে তাদের স্কুলের প্রয়োজনীয়তা এবং উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তারা কি করতে চায় এসব বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সাথে খোলামেলা আলোচনা করেন।সেলিম ওসমান বলেন, স্কুলগুলো উদ্বোধন করতে কে অতিথি হয়ে আসছেন সেটি বড় বিষয় নয়। মূল বিষয়টি হচ্ছে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সঠিক ভাবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে স্কুলগুলোর যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে। যেখান থেকে শুধু পুথিঁগত বিদ্যায় নয় প্রকৃত শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে গড়ে উঠবে আগামী সম্ভবনা।

স্কুল তিনটি পরিদর্শন ছাড়াও তিনি মোবাইল ফোনে মালিবাগ কেরামতিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের একটি ভবনের বেহাল অবস্থার তথ্য পেয়ে তিনি উক্ত স্কুলটি সরেজমিনে পরিদর্শন করে তিনি ভবনের বেহাল অবস্থা দেখতে পান। তাৎক্ষনিক ভাবে তিনি উপজেলা প্রকৌশলীকে মোবাইল ফোন আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে স্কুলটি পরিদর্শন করে বেহালাবস্থার ভবনটি অপসারন এবং পাশের অপর একটি ভবনকে উর্ধমূখী সম্প্রসারন করতে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার কথা বলেন।

পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের, বন্দর থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি এম এ রশিদ, মদনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এম এ সালাম, মুছাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাকসুদ হোসেন, ধামগড় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাসুম আহম্মেদ সহ স্কুল পরিচালনা কমিটির নেতৃবন্দরা।

প্রসঙ্গত সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান নির্বাচিত হওয়ার পর পর তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে নিজ নির্বাচনী এলাকার ৭টি ইউনিয়নে ৭টি স্কুলের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। যার মধ্যে সদর উপজেলার আলীরটেক ইউনিয়নে শেখ রাসেল উচ্চ বিদ্যালয়, গোগনগর ইউনিয়নে পুরান সৈয়দপুর বঙ্গবন্ধু উচ্চ বিদ্যালয়, বন্দর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নে নাগিনা জোহা উচ্চ বিদ্যালয়, ধামগড় ইউনিয়নে শেখ জামাল উচ্চ বিদ্যালয়, মুছাপুর ইউনিয়নে শামসুজ্জোহা এমবি ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়, বন্দর ইউনিয়নে নাসিম ওসমান মডেল হাইস্কুল, কলাগাছিয়া ইউনিয়নে আলহাজ্ব খোরশেদুনেচ্ছা উচ্চ বিদ্যালয়। প্রতিটি স্কুলে রয়েছে আধুনিক কম্পিউটার ল্যাব, সাইন্সল্যাব, লাইব্রেরী, মাল্টিমিডিয়া ক্লাস রুম, সিসি টিভি ক্যামেরা সহ আধুনিক সুযোগ সুবিধা। স্কুলগুলো নির্মাণে তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে এখন পর্যন্ত ব্যয় হয়েছে মোট প্রায় ২৩ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। যার মধ্যে গত ২০১৭ সালের ৩১ জুলাই পুরান বন্দর এলাকায় অবস্থিত নাসিম ওসমান মডেল হাইস্কুলটি প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমানের জন্মদিন উপলক্ষ্যে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। স্কুলটির উদ্বোধন করেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here