নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: সোনারগাঁয়ের কাজিপাড়ায় ৪৬ বছরের পূরানো সেতু দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে প্রতিদিন পারাপার হচ্ছে হাজারো মানুষ।
বাংলাদেশের প্রাচীন তম রাজধানী সোনারগাঁয়ের আনাচে কানাচে উন্নয়নের জোয়ারে ভাসমান থাকার পরও উপজেলার উত্তর পশ্চিমাঞ্চল অর্থাৎ সাদিপুর ইউপির ভারগাঁও কাজিপাড়ায় অবস্থিত দীর্ঘ ৪৬ বছরের পূরানো ঝুঁকিপূর্ণ সেতুটি এখনো কারও নজরে আসেনি।

স্থানীয় এলাকাবাসীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পূর্বে সাদিপুর ইউনিয়নের পশ্চিমাংশ অর্থাৎ ভারগাঁও কাজিপাড়ায় প্রায় ১০ গ্রামের মানুষদের যাতায়াতের সুবিধার্থে কাজিপাড়া ব্রীজটি নির্মাণ করা হয়।ব্রিজটি নির্মাণের পর থেকে এ পর্যন্ত দীর্ঘ ৪৬ বছরে সোনারগাঁয়ে অনেক এমপি এমনকি প্রতিমন্ত্রী থাকার পরও অজানা কারণে তাদের নেক নজরে আসতে পারেনি এই ঝুঁকিপূর্ণ সেতুটি।

প্রতিদিন উপজেলার আশেপাশের ১০ গ্রামের প্রায় কয়েক হাজার জনগন ঝৃঁকিপূর্ণ ভাবে জীবনের ঝুঁিক নিয়ে সেতু পারাপার হচ্ছে। সেতুটি নির্মাণের পরে অতিরিক্ত ভারী যানবাহন চলাচলের কারণে কয়েক বছরেই অকেজো হয়ে পরে, সেতুটির দুই পাশের রেলিং ভেঙ্গে ইতিমধ্যেই কয়েক বার দূর্ঘটনায় মারত্মিক আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

বর্তমানে সেতুটির দুই পাশে রেলিং না থাকায় রাতের বেলায় প্রায় সময় পথচারীরা না বুঝে পানিতে পরে যায়, এমনকি অটোরিক্সা, সিএনজি বা মালবাহী ভ্যানগাড়ী রাতের বেলায় চলতে গিয়ে যাত্রী বা মালামাল সহ দূর্ঘটনার কবলে পরে।

ঝুকিপূর্ন এ সেতুটির দুই পাশের রাস্তার কাজ একাধিক বার হলেও সেতুটিতে এখনো কোন রিপেয়ার বা মেরামত করার কাজ টুকুও করা হয়নি।

ঝুঁকিপূর্ণ এই সেতুটির নির্মাণ কাজ সম্প্রতি শুরু হবে কিনা এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রশীদ মোল্লা জানান, ‘কাজীপাড়া সেতুটি নির্মাণের জন্য বর্তমান এমপি আলহাজ¦ লিয়াকত হোসেন খোকার কাছে দাবী জানানোর পর তিনি সেতুটি নির্মাণ করবেন বলে আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছেন। আমিও চাই অতি শীঘ্রই সেতুটি নির্মাণ করা হোক। ’

কিন্তু স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং রাজনৈতিক ব্যাক্তিবর্গরা ইতিপূর্বে নির্বাচিত সাংসদদের কাছে একাধিক বার সেতুটি নির্মাণের দাবী জানিয়ে শুধুমাত্র আশ্বাস ছাড়া কিছুই পায়নি। এমতাবস্থায় এই ঝুকিপূর্ণ সেতুটি দ্রুত নির্মাণ করে দূর্ঘটনার কবল থেকে হাজারো গ্রামবাসীকে রক্ষা করার দাবী এলাকাবাসীর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here