স্টাফ রিপোর্টার: উন্নয়ণের স্বার্থে সদর উপজেলাধীন ফতুল্লাস্থ ভূঁইগড় ঈদগাহ্ ও কবরস্থান মসজিদ পরিচালনা কমিটিতে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ, সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী আল-মামুন ভূইয়া মিন্টুকে সাধারন সম্পাদক হিসেবে পাওয়ার জোর প্রত্যাশা ব্যাক্ত করেছেন স্থানীয়রা।

তাদের দাবী, বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী ভূঁইগড় পান্দে আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের বিদ্যুৎসাহী সদস্য ও ভূঁইগড় দারুল সুন্নাহ ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসার দাতা সদস্য মিন্টু ভূইয়া উক্ত ঈদগাহ্ ও কবরস্থান পরিচালনা কমিটিতে দীর্ঘ প্রায় ১৪ বছর যাবত যুগ্ম সাধারন হিসেবে সততার সাথে দায়িত্ব পালনকালে ঈদগাহ্ ও কবরস্থানের উন্নয়ণে ব্যাপক ভূমিকা রাখায় তাঁকে ঈদগাহ্ ও কবরস্থান উন্নয়ণ উপ-কমিটির সভাপতি নির্বাচিত করা হয়েছে।

ফলশ্রæতিতে, ঈদগাহ্ ও কবরস্থানের উন্নয়ণ কাজ আরও ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে ঈদগাহ্ ও কবরস্থান পরিচালনা কমিটির বর্তমান সহ-সভাপতি আল-মামুন ভূইয়া মিন্টুকে শীঘ্রই পুনর্গঠিতব্য উক্ত দু’টি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটিতে সাধারন সম্পাদকের দায়িত্বভার দেয়ার দাবী জানিয়েছেন, স্থানীয় মুসল্লি মরুব্বীগণসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার বিশিষ্টজনেরা।

তাদের মতে, মুসলমান ধর্মালম্বীদের সর্ববৃহৎ প্রধান দু’টি ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহায় ঈদের জামাত আদায়ের প্রধান এবং সর্বোত্তম স্থান হচ্ছে ঈদগাহ্। আর মৃত্যুর পর শেষ ঠিকানা হচ্ছে কবরস্থান। তাই ইহকাল ও পরকালে মহান আল্লাহ তালায়ার রহমত লাভের নির্ধারিত এই স্থান দু’টির রক্ষনাবেক্ষন উন্নয়ণের স্বার্থে আল-মামুন ভূইয়া মিন্টুর মত সামর্থ্যবান দানশীল ব্যাক্তিদেরই ঈদগাহ্ ও কবরস্থান পরিচালনা কমিটির সাধারন সম্পাদকের মত গুরত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত করতে হবে। তাহলেই মিন্টু ভূইয়ার মত নি:স্বার্থবান ব্যাক্তিদের দ্বারা ঈদগাহ্ ও কবরস্থানের জমি সম্প্রসারিত ও দ্রুত উন্নয়ণ সাধিত হবে।

এদিকে, ঈদগাহ্ ও কবরস্থান পরিচালনা কমিটিতে সাধারন সম্পাদক হিসেবে তাঁকে পেতে স্থানীয় মুরুব্বীদের জোড়ালো দাবী ও প্রত্যাশার বিষয়ে অবগত আছেন কিনা- জানতে চাইলে এ প্রতিবেদক কে আল-মামুন ভূইয়া মিন্টু বলেন, “ঈদগাহ্ ও কবরস্থানের মত পবিত্র প্রধান দু’টি ধর্মীয় স্থানের উন্নয়ণের দায়িত্বভার পালন করা ভাগ্যের ব্যাপার। বর্তমানে ভূঁইগড় ঈদগাহ্ ও কবরস্থান পরিচালনা কমিটির সহ-সভাপতি এবং প্রতিষ্ঠান দু’টির উন্নয়ণ উপ-কমিটির সভাপতি হিসেবে আমি দায়িত্ব পালন করে আসছি। মহান রাব্বুল আলামিন যদি আমাকে তৌফিক দান করেন তাহলে স্থানীয় ধর্মপ্রাণ মুসলমান মুরুব্বীগণসহ বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গরা প্রত্যাশা করলে অবশ্যই উক্ত ঈদগাহ্ ও কবরস্থান পরিচালনা নতুন কমিটিতে আমাকে সাধারন সম্পাদকের দায়িত্বভার দেয়া হবে। যদি আমি ঈদগাহ্ ও কবরস্থানের উন্নয়ণে অতীতে এবং বর্তমানে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে থাকি তাহলে অবশ্যই স্থানীয়দের প্রত্যাশা বা জোড়ালো দাবীটিও পূরণ হবে বলে বিশ্বাস করি”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here