নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ২০০৬ সালে ক্ষমতা ছাড়ার পর থেকে দীর্ঘ প্রায় এক যুগ বিএনপি’র চেয়ারপার্সণ থেকে শুরু করে বিএনপি’র তৃণমূল নেতাকর্মী পর্যন্ত মামলা হামলায় জর্জরিত হয়ে আদালতের বারান্দায় বেশীরভাগ সময় কাটিয়ে দিলেও এই এক যুগে প্রথমবারের মতো আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়ালেন নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সহ সভাপতি মো: শাহ আলম।
সোনারগাঁ থানার একটি রাজনৈতিক মামলায় হাইকোর্টের জামিননামা বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) নারায়ণগঞ্জের চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট শহিদুল ইসলামের আদালতে স্বশরীরে হাজির হয়ে জামিন নামা জমা দেন তিনি।

আদালতে জামিন নামা জমা দিয়ে বেরিয়ে মো: শাহ আলম উপস্থিত সাংবাদিকদে বলেন, আমি সুস্থ্য সুন্দর এবং উন্নয়নের রাজনীতিতে বিশ্বাসী। আর আমার মনে হয় সুস্থ্য রাজনীতি করলে মানুষ তার পক্ষে থাকে। আর কোন দলই ভাঙ্গচুরের রাজনীতির পক্ষে না। কিন্তু কিছু কিছু সময় ষড়যন্ত্রের স্বীকার হতে হয়। আমার বাড়ি ফতুল্লায় কিন্তু আমাকে সোনারগাঁ থানার একটি মামলায় আসামী করা হয়েছে। এ থেকেই প্রমাণিত হয়, বিএনপি’র নেতাকর্মীদের হয়রানীর জন্য পরিকল্পিতভাবে এসব মামলা করা হচ্ছে। কিন্তু হামলা মামলা দিয়ে জিয়ার সৈনিকদের দমিয়ে রাখা যাবে না।

মো: শাহ আলমের পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এড. সাখাওয়াত হোসেন খান ও এড. আবুল কালাম আজাদ বিশ^াস।

প্রসঙ্গত, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে ১০ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের পক্ষ থেকে কাঁচপুরে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ মিছিলের সময় বিক্ষোভকারী ও পুলিশের সাথে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনায় কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সদস্য মো: গিয়াসউদ্দিন ও নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপত্বি মো: শাহআলমসহ বিএনপি’র শতাধিক নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে সোনারগাঁ থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং ২৪(১০)২০১৭।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here