নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: বিএনপি চেয়ারপার্সণ খালেদা জিয়ার সাজার প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত ফের তিনদিনের কর্মসূচি পালনকে কেন্দ্র করে এবার ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি বলে জানিয়েছেন দলটির শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতা।
কারন, দলীয় চেয়ারপার্সনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলার রায়কে কেন্দ্র করে সম্প্রতি গত ৪ ফেব্রুয়ারী থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলার ৭ টি থানায় পুলিশের দায়েরকৃত ১৩ টি নাশকতার মামলায় শীর্ষস্থানীয় থেকে তৃণমূল পর্যন্ত প্রায় হাজার খানেক নেতাকর্মী আসামী বনে যাওয়ার পাশাপাশি প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী গ্রেফতার হওয়ায় একধরনের আতংক বিরাজ করে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির মাঝে।

এতকিছুর পরেও সাহস করে যারাই দলীয় কর্মসূচী পালনে রাজপথে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন, তাদেরও গ্রেফতার করছে পুলিশ। আর তাই গত ১২ ফেব্রুয়ারী থেকে লাগাতার তিনদিনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচিতে নারায়ণগঞ্জের রাজপথে দেখা মিলেনি বিএনপি’র নেতাকর্মীদের।

কারন হিসেবে জানা যায়, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির মিথ্যা মামলায় সরকার সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানোর প্রতিবাদে বিএনপির নেতাকর্মীরা রাজপথে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ কর্মসূচী পালন করলেও তাতে বাঁধা দিয়ে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করে ফের নতুন করে বানাচ্ছে মামলার আসামী। এমনকি রাস্তা দিয়ে হেঁটে গেলেও আটক করেই নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে নাশকতার মামলা দায়ের করা হচ্ছে। ফলে কেন্দ্র থেকে পুনরায় যে কর্মসূচী ঘোষণা করা হয়েছে, তা পালনে নেতাকর্মীদের স্বদিচ্ছা থাকলেও গ্রেফতার এড়াতে বেশীরভাগই রাজপথে নামতে অনীহা প্রকাশ করছে। তাই কর্মসূচী পালনে স্বল্প সংখ্যক নেতাকর্মীও রাজপথে একত্রিত করা সংকটের কারন হয়ে দাঁড়িয়েছিলো। ফলে বিগত তিনদিনের কর্মসূচিতে উত্তপ্ত হয়নি নারায়ণগঞ্জের রাজপথ।

কিন্তু নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র শীর্ষ নেতারা নাশকতার মামলায় উচ্চ আদালত থেকে আগাম জামিন নিয়ে নেওয়ায় এবং কেউ কেউ নারায়ণগঞ্জ আদালত থেকে জামিন পাওয়ায় তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝে আত্মবিশ^াস ফিরে এসেছে। আর তাই নারায়ণগঞ্জের রাজপথে আবারো ঝড় তোলার অপেক্ষায় রয়েছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র নেতাকর্মীরা।

কারন, নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র অভিভাবক চেয়ারপার্সণের উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকারসহ মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, জেলা বিএনপি’র সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সহ সভাপতি মো: শাহ আলম, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার, নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক মোয়াজ্জেম হোসেন মন্টির মতো রাজপথের প্রতিবাদী নেতারা উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে নেওয়ায় এবং নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সিনিয়র সহ সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান জেল থেকে জামিনে মুক্ত হওয়ায় এবার আর নারায়ণগঞ্জের রাজপথ কর্মসূচিহীন থাকবে না বলে জানিয়েছে তৃণমূল নেতাকর্মীরা। বরং মামলা হামলার ভয়কে উপেক্ষা করে এবার দলীয় চেয়ারপার্সনের মুক্তির দাবীতে কেন্দ্রীয় আগামী তিন দিনের কর্মসূচিতে নারায়ণগঞ্জের রাজপথ প্রতিবাদে মূখর করে তুলবেন তারা।

প্রসঙ্গত, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে মানববন্ধন, অবস্থান ও অনশন কর্মসূচির পর এবার গণস্বাক্ষর, স্মারকলিপি ও জেলাসদর-থানা পর্যায়ে বিক্ষোভ কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) দেশব্যাপী গণস্বাক্ষর অভিযান, রবিবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) প্রত্যেক জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি প্রদান এবং মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারী) জেলা সদর ও থানা পর্যায়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করবে দলটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here