নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: দীর্ঘদিন যাবত ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপির পর এবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো কর্তৃক ‘মেমোরি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড’ স্বীকৃতি লাভ করায় আগামী ১৮ নভেম্বর রাজধানীতে নাগরিক সমাবেশ করতে যাচ্ছে আওয়ামীলীগ।

আর তাই এই সমাবেশে ব্যাপক লোক সমাগমের মাধ্যমে বাংলাদেশের জন্মস্থান হিসেবে নারায়ণগঞ্জ এখনও আওয়ামীলীগের ঘাঁটি হিসেবেই আছে তা প্রমাণ করার চেষ্টা করবেন শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।

জানাগেছে, রাজধানীর পাশ^বর্তী জেলা হিসেবে বিশেষ গুরুত্ব বহন করা নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা আগামী ১৮ নভেম্বরের যোগ দিতে নানা প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন।

তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকতে শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা নানা দিক নির্দেশনা দিচ্ছেন। তবে ব্যানার ফেস্টুনে নিজেদের ছবির পরিবর্তে শুধুমাত্র বঙ্গবন্ধু, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সজীব ওয়াজেদ জয়ের ছবি ব্যবহার করার জন্যও নির্দেশনা দিচ্ছেন শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।

আর সমাবেশে কত সংখ্যক লোক নারায়ণগঞ্জ থেকে সমবেত করা হবে তার সঠিক পরিসংখ্যান দিতে না পারলেও সর্বাধিক লোক সমাগম ঘটানোর লক্ষেই প্রস্তুতি নিতে থানা, উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে জানান, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই।

অপরদিকে, একই সমাবেশে যোগ দিতে গত ১৪ নভেম্বর শহরের ২নং রেলগেটস্থ কার্যালয়ে প্রস্তুতি মূলক সভা করেছে মহানগর আওয়ামীলীগ। সভাপতি আলহাজ¦ আনোয়ার হোসেন ও সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহা এসময় মহানগরের ২৭টি ওয়ার্ডের নেতৃবৃন্দদের আগামী ১৮ নভেম্বরের নাগরিক সমাবেশে স্ব স্ব স্থান থেকে বিপুল সংখ্যক লোক সমাগম ঘটানোর নির্দেশনা দেন।

আনোয়ার হোসেন নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের ঘাঁটি, সেটা আগামী ১৮ নভেম্বরের সমাবেশে লোক সমাগমের মাধ্যমে আমাদের দেখিয়ে দিতে হবে। বঙ্গবন্ধু, শেখ হাসিনা, সজীব ওয়াজেদ জয়ের ছবি সম্বলিত ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে ঐক্যবদ্ধ ভাবে আমরা সমাবেশে যোগ দিব।

উল্লেখ্য, জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষ্যে গত ১২ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিও সমাবেশ করেছিল। যেখানে যাত্রাকালে গণপরিবহন বন্ধ করে দেয়ার পরেও প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী যোগ দিয়েছিলেন। তাই এবার সময় এসেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের জনসমর্থণ পরীক্ষা দেয়ার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here