নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ ও বিকেএমইএ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ একেএম সেলিম ওসমানকে ‘গালাগাল’ করার রেশ কাটতে না কাটতেই এবার এই এমপির রাজনৈতিক দল জাতীয় পার্টিকেও চরম ভাবে ‘কটাক্ষ’ করেছেন ক্ষমতাসীন দল মহানগর আওয়ামীলীগের বিতর্কিত সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালা।
‘গালাগাল’ করার পরেও সাংসদ সেলিম ওসমান ক্ষমা চাওয়ার আহবান জানিয়ে মহানুভবতা দেখানোয় এবার মালা জাতীয় পার্টিকে ‘কটাক্ষ’ করার দু:সাহস দেখিয়েছে বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তৃণমূলের নেতৃবৃন্দরা।

তারা অভিযোগ করেন, ‘বছরের পর বছর ধরে জাতীয় পার্টির সাথে জোটবদ্ধ হয়ে আওয়ামীলীগ রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসলেও অদ্যবধি দলটির কোন নেতা জাতীয় পার্টিকে এমন ভাবে ‘কটাক্ষ’ করে নি। যা নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের এক ছিঁচকে নেত্রী মালা করেছে। এটা আমাদের জন্য লজ্জাজনক।’

আর এজন্য মালার বিরুদ্ধে যদি সেলিম ওসমান কিংবা জাতীয় পার্টির যুগ্ম মহাসচিব ও নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ আলহাজ¦ লিয়াকত হোসেন খোকাসহ দলের শীর্ষ নেতৃবৃন্দরা কোন প্রতিবাদ না করেন তাহলে তৃণমূলের নেতাকর্মীরাই মালার বিরুদ্ধে এ্যাকশনে যাবে বলে হুঁশিয়ারী উচ্চারন করেন তারা।

জানাগেছে, জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে মহানগর ১৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ আয়োজিত শোক সভায় বক্তব্যকালে মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালা বলেছেন, ‘জাতীয় পার্টি একটা পার্টি আর তেলাপোকাও একটা পাখি। এ জাতীয় পার্টির সঙ্গে আবার কিসের জোট করবো। তারা সব কমিটিতে বসে, আওয়ামী লীগের লোকেরা না খেয়ে মরে। এটাই আমার দু:খ।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে যখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন হচ্ছে সেখানে আমাদের নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সদর-বন্দরে অবস্থিত স্কুল কলেজ কমিটি, মসজিদ কমিটি এমনকি খেলার মাঠ, কোথাও আওয়ামীলীগের লোক নেই। সব জায়গাতে জাতীয় পার্টি ও বিএনপি। জাতীয় পার্টির অর্ধ শিক্ষিত অশিক্ষিত গণশিক্ষিত লোকেরা এলাকার নেতা ও ওই কমিটি গুলোর প্রধান হয়ে বসে আছেন। আর আমাদের লোকেরা ঘুরে বেড়ায়। এটা হচ্ছে আওয়ামীলীগের দশা।’

‘অথচ সংগ্রাম করি আমরা, রক্ত দেই আমরা কিন্তু জোট করে পাশ করে জাপা। ভোট হলে যে তারা কয় ভোট পাইবো তার তো কোন নিশ্চয়তাই নাই। তাই বলেছি জাতীয় পার্টিও একটা পার্টি, তেলাপোকাও একটা পাখি।’

এরআগে, কোন এক স্থানে মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহার সাথে বসে আড্ডার ছলে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীমসহ তার ভাই নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের জাতীয় পার্টির সাংসদ সেলিম কে অকথ্য ভাষায় ‘গালাগাল’ করেছিলেন এই মালা।

গত ১৭ জুলাই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ওসমান ভ্রাতৃদ্বয়কে ‘গালাগাল’ করার অডিও ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর সেটি তার নয় বলে কন্ঠ নকলের অভিযোগ এনে স্থানীয় গণমাধ্যমে বিবৃতি দেন।

অথচ, ২০ জুলাই বন্দরে স্থানীয় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীদের সাথে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সাংসদ সেলিম ওসমান ‘গালাগাল’ করার জন্য মালাকে ক্ষমা চাওয়ার আহবান জানালেও কোন ধরনের ক্ষমা চাইবেন না বলে মালা সাফ জানিয়ে দেন।

এরপর জাতীয়পার্টির নেতাকর্মীরা ধৈর্য্য ধরলেও এবার খোদ দলকে নিয়ে অপমানজনক ‘কটাক্ষ’ করায় মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালার বিরুদ্ধে চরম ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here