নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ঘনিয়ে আসছে একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচন। নির্বাচনকে সামনে রেখে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক দলগুলোর সম্ভ্যাব্য প্রার্থীরা এবার ভোটারদের আকৃষ্ট করার লক্ষ্যে পবিত্র ঈদুল আযহাকে টার্গেট করে স্থাণীয় নেতৃবৃন্দ এবং সাধারন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে পৌছাচ্ছে। সে সাথে দিচ্ছে বিভিন্ন উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। এমনকি রাজনৈতিক দলগুলোর সম্ভ্যাব্য প্রার্থীরা কোরবানীর ঈদকে ঘিরে সাধারন মানুষদের গরুর মাংস বিতরন করার লক্ষ্যে একাধিক গরু ক্রয় করতে শুনা যাচ্ছে। সাধারন ভোটারদের আকৃষ্ট করার মাধ্যমে প্রার্থীরা তাদের নির্বাচনী গণসংযোগও শেরে নেয়ার পরিকল্পনা করছে বলে প্রার্থীদের ঘনিষ্টজনরা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সূত্রে জানা যায়, ২০১৯ সালের প্রথম দিকে একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এবার বিএনপি নির্বাচনে যাবে বলেই আভাস পাওয়া যাচ্ছে। এবার ঈদুল আজহাকে টার্গেট করে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন দলের এমপি প্রার্থীরা মাঠে নেমেছেন৷

কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে সম্ভ্যাব্য প্রার্থীরা এলাকায় গণসংযোগ শুরু করেছেন। এমনকি স্থাণীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গকে প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচারনার জন্য কাজে লাগাচ্ছে। সম্ভ্যাব্য এমপি প্রার্থীরা নানা প্রক্রিয়ায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ার চেষ্টা করেছে৷ সাধারণ মানুষকে সহায়তা করা, কোরবানীর মাংস বিতরনের মাধ্যমে প্রচারনা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। কোরবানীর ঈদকে সামনে রেখে বড় ধরনের টার্গেটে নিয়েছে এমপি প্রার্থীরা৷ তাই যারা সামনের নির্বাচনে মনোনয়ন চান বা আগে এমপি ছিলেন তারা এবার যার যার নির্বাচনী এলাকায়ই ঈদ করবেন। প্রার্থীরা মনে করেন ‘‘ঈদে অনেক বেশি মানুষের সঙ্গে দেখা হয়৷ কথা বলার সুযোগ হয়৷ নেতা-কর্মীরা এই সুযোগকে কাজে লাগাবেন৷ আর এটাতো সব রাজনৈতিক দলই করে।”

সূত্রে জানা যায়,’ রাজনৈতিক দলগুলো এরইমধ্যে প্রার্থী বাছাই শুরু করে দিয়েছে৷ কেন্দ্র থেকে প্রতি আসনে অন্ততঃ তিনজন করে সম্ভাব্য প্রার্থী বাছাই করছেন তারা৷ গত নির্বাচনে যারা এমপি হয়েছেন তাদের একটি অংশ এখন দলীয় নজরদারিতে আছেন। তারা ইমেজের উন্নতি ঘটাতে না পারলে সামনের নির্বাচনে মনোনয়ন নাও পেতে পারেন। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলো এরইমধ্যে বলেছেন, দলীয় কর্মকান্ডের দিক দিয়ে বিবেচনার মাধ্যমে যাদের অবস্থা নেতিবাচক হবে তাদের মনোনয়ন দেয়া হবেনা৷ আর এরইমধ্যে এটা জানিয়ে দেয়া হয়েছে যে, এবার তরুণ নেতৃত্বের একটা বড় সুযোগ থাকবে৷ এসব কারণে এবার ঈদে রাজনৈতিক দলগুলোর নেতৃবৃন্দের তৎপরতা অনেক বেশি থাকবে বলে মনে হচ্ছে। ইতিমধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, কোরবানীর ঈদের সময় স্থাণীয় জনপ্রতিনিধিরা যেন যার যার এলাকায় থাকেন৷ এরইমধ্যে অনেকেই এলাকায় চলে গেছেন৷

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনের একাধিক সম্ভ্যাব্য এমপি প্রার্থীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে ‘‘এবারের ঈদ অনুষ্ঠিত হবে নির্বাচনের ঠিক আগে৷ তাই এবারের ঈদটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ৷ যারা নির্বাচিত হয়েছেন এবং মনোনয়ন ধরে রাখতে চান, যারা নতুন করে মনোনয়ন চান তারা সবাই এবার ঈদে নিজ নিজ এলাকাকেই গুরুত্ব দিচ্ছেন৷” তাই মনোনয়ন প্রত্যাশীরা যার যার এলাকায় অবস্থান নিচ্ছেন এবং ঈদেও তারা জনসংযোগ করবেন।”

নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনের একাধিক এমপি প্রার্থীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, প্রার্থীরা নিয়মিত এলাকায় অবস্থান করছে। স্থানীয় নেতৃবৃন্দ এবং এলাকার সাধারন মানুষের সাথে মত বিনিময় সভাসহ নির্বাচন সংক্রান্তে মত বিনিময় করছে। এবারের কোরবানীর ঈদও স্ব স্ব এলাকায় করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। দলের নেতাকর্মী এবং সাধারণ মানুষের সঙ্গেই ঈদ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ আরেক প্রশ্নের জবাবে প্রার্থীরা বলেন, একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচনের জন্য দল থেকে মনোনয়ন চাইবেন। দল মনোনয়ন দিলে বিজয় উপহার দেওয়ার নিশ্চিয়তা প্রদান করেন। এমনকি দল যাকে মনোনয়ন দিবেন তার পক্ষেই কাজ করার জন্য প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জাতীয় পার্টিও তাদের এলাকায়ই স্থাণীয় নেতাকর্মী এবং সাধারন মানুষের সাথে ঈদ করবে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনের সম্ভ্যাব্য প্রার্থীরা এবারের ঈদে আগামী নির্বাচনের জনসংযোগের সুযোগকে হাতছাড়া করবেনা বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ঈদুল ফিতরেও রোজার শুরু থেকেই বিভিন্ন দলের নেতাকর্মীরা সক্রিয় ছিলেন৷ তারা ইফতার মাহফিল ছাড়াও সাধারণ মানুষের মধ্যে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেছেন৷ এমনকি এমপি প্রার্থীরা ঈদুল ফিতরে সাধারন মানুষের মধ্যে ঈদ সামগ্রী বিতরণ করেছেন৷পূর্বের ন্যায় এবারও নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি আসনের সম্ভ্যাব্য এমপি প্রার্থীরা কোরবানীর ঈদকে টার্গেট করে তাদের নির্বাচনী প্রচারনা চালাবেন। আওয়ামী লীগ বা বিএনপি কিংবা জাতীয়পার্টি ছাড়াও ছোট ছোট রাজনৈতিক দল থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও কোরবানীর ঈদকে টার্গেট করে নিজ নিজ এলাকায় অবস্থান নিয়েছেন। প্রার্থীদের মূল টার্গেট হচ্ছে ঈদ উদযাপনের মাধ্যমে স্থাণীয় নেতৃবৃন্দ এবং সাধারন মানুষের সাথে কুশল বিনিময় এবং একাদশ জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রচারনা চালানো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here