নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বলেছেন ‘তোমরা আমার সৃষ্টিকে ভালোবাসো, আমি তোমাদের ভালবাসবে’া। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরূল ইসলাম তার মানুষ কবিতায় বলেছেন ‘গাহি সাম্যের গান, মানুষের চেয়ে বড় কিছু নয় নহে কিছু মহীয়ান’। এ পৃথিবীতে যুগে যুগে জ্ঞাণী গুণি মহাজনরা সবাই মানুষেরই জয়গান করে গেছেন। মানুষের জন্যই এ পৃথিবীর সৃজন, মানুষের সেবার মাধ্যমেই পাওয়া যায় স্রষ্টার নৈকট্য। তাই সকল মহামারি দূর্যোগে নিজ জীবনের মায়া ত্যাগ করে কেউ কেউ মানব সেবায় ঝাঁপিয়ে পরেন। পরবর্তীতে তারাই মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে থাকেন, লাভ করেন অমরত্ব।

বিশ্ব্যাপী মহামারি আকারে ছড়িয়ে পরা প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় বাংলাদেশের সবচেয়ে সংক্রমিত জেলা নারায়ণগঞ্জের মানুষের সহযোগিতায় তেমনি কয়েকজন রাজনৈতিক নেতা জীবন বাজি রেখে লড়াই করে যাচ্ছেন যাদের অবদানকে নারায়ণগঞ্জবাসী কোনদিন ভুলবে না। বাংলাদেশের সবচেয়ে ধনী জেলা হয়েও নারায়ণগঞ্জের মানুষের এই চরম দুর্দিনে যেমন করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে হয়েছে তেমনি ক্ষুধার জ্বালায় লকডাউনও উপেক্ষা করতে হয়েছে। তবে কিছু মানুষ দেবদূতের মতো এসব অসহায় মানুষের পাশে এসে দাড়িয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জের তিনজন সাংসদ করোনাকালীণ সময়ে নারায়ণগঞ্জবাসীর প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ একেএম শামীম ওসমান ও নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ লিয়াকত হোসেন খোকা করোনা শুরু পর থেকেই নারায়ণগঞ্জবাসীকে সচেতন করার পাশাপাশি লকডাউনে কর্মহীন হয়ে পরা কয়েক লক্ষ মানুষকে খাদ্য সামগ্রীসহ নগদ অর্থ দিয়ে সাহায্য করেছেন এবং এ ধারা অব্যহত রেখেছেন।

তিন সাংসদের মতো নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের তিন কাউন্সিলরও এই চরম দু:সময়ে মানব সেবায় নিজেদের উৎসর্গ করে দিয়েছেন। এরা হলেন ১৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজল, ১৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল করিম বাবু ও ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সফিউদ্দিন প্রধান। করোনা ভাইরাসের প্রাদূর্ভাব শুরুর পর থেকেই তারা নারায়ণগঞ্জবাসীকে প্রাণঘাতি এই ভাইরাসের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে একের পর এক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। তাছাড়া করোনার রেডজোন নারায়ণগঞ্জকে লকডাউন করে দেয়ায় অসংখ্য মানুষ কর্মহীন হয়ে পরে। ফলে এসকল কর্মহীন অসহায় সানুষ করোনার পাশাপাশি ক্ষুধার কষ্টে কাতর হয়ে পরে। এসব ক্ষুধার্ত মানুষের মুখে হাসি ফিরিয়েছেন এসব জনপ্রতিনিধিরা। সরকারী ত্রাণের পাশাপাশি নিজ অর্থায়নে হাজার হাজার মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন তারা। সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে রাতের আধারে অভুক্ত মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন এই মানবতার ফেরিওয়ালারা।

দীর্ঘদিন দল ক্ষমতায় না থাকলেও বিএনপির কয়েকজন নেতাও এই চরম দূর্যোগে নারায়ণগঞ্জবাসীর পাশে এসে দাড়িয়েছেন। নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান, সাবেক জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুকুল ইসলাম রাজিব, মহানগর যুবদলের সভাপতি মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, জেলা যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক সহিদুর রহমান স্বপন, মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক সাগর প্রধান ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনি করোনা ভাইরাসের প্রকোপ শুরুর পর থেকেই নারায়ণগঞ্জবাসীকে সচেতন করার পাশাপাশি হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণ করেছেন এবং লকডাউনের কারনে কাজ হারানো অসহায় মানুসকে খাদ্য সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। এছাড়াও দরিদ্র অসহায় পরিবারের শিশুদের জন্য দুধ ও গর্ভবতী মায়েদের জন্য পুষ্টিকর খাবারের ব্যবস্থা করছেন তারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here