নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: এবার হকার উচ্ছেদ করে ওসি ক্লোজড্ হওয়ার ক্ষোভ মিটালেন সদর মডেল থানাধীন পুলিশ সদস্যরা।
সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) দুপুরে নগরীর ২নং রেলগেট, উকিলপাড়া থেকে চাষাড়া এবং ফলপট্টী থেকে কালীরবাজার চারারগোপ এলাকা পর্যন্ত রাস্তা ও ফুটপাতের উপর থাকা হকারদের উচ্ছেদে এই অভিযান চালায় সদর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) জয়নাল আবেদীন ও টানবাজার পুলিশ ফাঁড়ির (পরিদর্শক) ইনচার্জ আজহারুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা।

অভিযানের বিষয়ে সদর মডেল থানার পরিদর্শক (অপারেশন) জয়নাল আবেদীন নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে জানান, ‘জেলা পুলিশ সুপার মহোদয়ের নিদের্শে জনসাধারনের চলাচলের স্বার্থে নগরীর ফুটপাতে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হয়েছে। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।’


কিন্তু উচ্ছেদের শিকার ক্ষতিগ্রস্থ কয়েকজন হকার নেতা অভিযোগ করেন, নিয়মিত থানা, টানবাজার ও চাষাড়া পুলিশ ফাঁড়িতে কয়েক লাখ টাকা মাসোহারা দিয়েই তারা ফুটপাতে ব্যবসা করছেন। কনস্টেবল থেকে ওসি পর্যন্ত সবাই চাঁদার ভাগ পায়। আর এখন ওসি সাহেবের জন্য আমাদের হতে হচ্ছে উচ্ছেদের শিকার।

এরআগে, সম্প্রতি শর্ত সাপেক্ষে বিকেল ৫ টার পর নগরীর বি. বি রোডের ফুটপাতের একপাশে হকারদের ব্যবসা করার অনুমতি দিয়েচিল নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন। আর সেই শর্ত মেনেই হকাররা ফুটপাতে বিকেলের পর দোকান বসাতেন।

কিন্তু সোমবার সকালে শুভ বড়দিন উপলক্ষ্যে নগরীর বি. বি. রোডস্থ সাধু পৌলের গীর্জায় জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশ সুপারের আগমন কে কেন্দ্র করে ফুটপাত দখলমুক্ত রাখতে ওয়্যারলেসে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর শাহীন শাহ্ পারভেজকে নির্দেশ দেন অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান।

তখন পাল্টা ম্যাসেজে সদর মডেল থানার ওসি মীর শাহীন শাহ্ পারভেজ মন্তব্য করেন, ‘সদর ওসি হয়েছি বলে কি আমাকে ফুটপাত দেখতে হবে নাকি?’

এরপর তাৎক্ষনিক অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো: মোস্তাফিজুর রহমান নগরীর বি. বি. রোডস্থ সাধু পৌলের গীর্জায় এসে শুভ বড়দিনের নিরাপত্তায় নিয়োজিত সদর মডেল থানার ওসিকে ‘বেয়াদব’ বলে শাসিয়ে তাকে পুলিশ সুপারের নির্দেশে সাময়িক প্রত্যাহার করার কাগজ বুঝিয়ে দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here