নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: হকারমুক্ত করার লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে নগরীতে বিভিন্ন সময় হকার উচ্ছেদ করা হচ্ছে। আর এ হকার উচ্ছেদ কাজে নেতৃত্ব দিচ্ছেন নাসিক পরিচ্ছন্ন পরিদর্শন কর্মকর্তা আলমগীর হিরন। আলমগীর হিরনের নেতৃত্বে উচ্ছেদকৃত হকারদের যাবতীয় মালামাল এমনকি দোকানও গাড়ীতে করে তুলে নিয়ে গিয়েছেন নাসিক পরিস্কার পরিচ্ছন্ন কর্র্মীরা। এ ঘটনায় বহু হকার দোকান ও মালামাল হারিয়ে একেবারেই নি:স্ব হয়েছেন বলে জানাগেছে।

এদিকে, এসমস্ত মালামাল ফেরত পেতে তারা রোজই সিটি কর্পোরেশন গেটে ধরনা দিতো। শুধু তাই নয়, মালামাল ফেরত পাওয়ার আশায় হকারনেতাদের নিয়ে তারা মেয়র আইভীর সাথেও বৈঠক করেছেন। ওই বৈঠকে হকারনেতা হাফিজুলকে হকারদের সকল মালামাল ফেরত দেওয়া হবে বলেও আশ্বস্ত করেছিলেন মেয়র। ফলে কিছুটা আশার আলো দেখেছিলো নিরিহ হকাররা। কিন্তু তাদের সেই আশার আলোতে নিমিশেই অন্ধকার নেমে এলো!

বৃহস্পতিবার (১৯ এপ্রিল) হঠাৎ করেই ঘোষনা এলো, হকারদের উচ্ছেদকৃত মালামালের টেন্ডার দেয়া হচ্ছে। কথাটা শুনেই চম্কে উঠলো হকাররা! সাথে সাথে ভীর জমালো সিটি কর্পোরেশনে। সেখানে গিয়ে নাসিক পরিচ্ছন্ন পরিদর্শন কর্মকর্তা আলমগীর হিরনকে বহু অনুনয়-বিনয় করতে লাগলো হকাররা। হকাররা বললো, প্রয়োজনে আমাদের পর্যাপ্ত জরিমানা করে হলেও আমাদের মালামাল ও দোকাপাটগুলো ফেরত দেয়ার ব্যবস্থা করেন। আমরা না খেয়ে মারা যাবো, এমন অন্যায় কাজটি করবেন না, দয়া করেন.. ইত্যাদি ইত্যাদি।

কিন্তু চোরে না শুনে ধর্মের কাহিনী। হকারদের সকল অনুনয়-বিনয়কে দূরে ঠেলে টেন্ডার দেয়া হলো। টেন্ডারে অংশগ্রহন করলো নাসিক পরিচ্ছন্ন পরিদর্শন কর্মকর্তা আলমগীর হিরনের ভাতিজা কাউসার। কাউসারকে দেখেই বুঝা যাচ্ছিলো যে, সেই ক্ষমতার বলে টেন্ডারটি পাবে। তবুও হকাররা তাদের শেষ চেষ্টা চালিয়ে যেতে লাগলো।

সকল হকাররা একত্রিত হয়ে টেন্ডারে অংশগ্রহন করলো। অবশ্য তাদের দরটা হিরনের ভাতিজার চাইতে একটু কমই ছিলো। টেন্ডারে হকাররা সমস্ত মালামাল ১ লক্ষ ৩৪ হাজার টাকা দর ধরে, কিন্তু কাউসার ১ লক্ষ ৩৬ হাজার টাকায় সেই টেন্ডার পেয়ে যায়। এ ঘটনায় অনেক হকার সাথে সাথেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। কোন কোন হকার বলছিলো, এ ভাবে আর কতদিন আমাদের নি:স্ব হতে হবে। আমাদের সব কিছু কেড়ে নিয়ে কি মজা পেলো নাসিক মেয়র ডা: সেলিনা হায়াৎ আইভী। তার ভিতরে কি কোন দয়া -মায়া নেই । তিনি কি শুধুমাত্র একজন মেয়রই, নাকি একজন মানুষও, এ ধরনের প্রশ্নও রাখের সর্বশান্ত হকাররা।

এদিকে এ ব্যপারে হকারনেতারা ক্ষোব্দ হয়ে বলেছেন, এটা মেয়র আইভীর একটা অমানবিক কাজ। এ কাজের সর্মথন কোন ভালো মানুষ করতে পারে না। এভাবে হকারদের পথে বসিয়ে কেউ কোন দিন উচ্চতর শিখরে পৌছতে পারেনি, আর পারবেও না। অসহায়দের চোঁখের জলে দাম তাকে একদিক দিতেই হবে।

তারা বলেন, সব চেয়ে আশ্চর্য্যজনক বিষয় হচ্ছে, হকার উচ্ছেদ করলো হিরন, আর টেন্ডার পেলো তারই ভাতিজা কাউসার। এটা খুবই রহস্যজনক। এখানেই বুঝা যায়, ডালমে কুচ কালা হে। হিরনই ষড়যন্ত্র করে হকারদের টেন্ডার তার ভাতিজা কাউসারকে পাইয়ে দিয়েছে। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। নাসিক মেয়র আইভীর সঠিক তদ্বারকির অভাবে এ ধরনে ঘটনা ঘটেছে বলেও দাবি জানান তারা।

হকার নেতারা আরো বলেন, ভবিষ্যতে যদি এমন কাজ আবারো করা হয়, তাহলে আমরা ভুলে যাবো তিনি আমাদের মেয়র। আমরা বৃহত্তর আন্দোলনের মধ্যদিয়ে তার এ ধরনের অমানবিক কাজের প্রতিবাদ করবো। হকাররাও মানুষ এটা ভুলে গেলে চলবে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here