নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি, সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি: সোনারগাঁয়ের কাঁচপুরের সোনাপুর এলাকার মতিন খান প্লট মার্কেট ও দেলোয়ার সুপার মাকের্টের বিভিন্ন কম্পিউটারের দোকানে অভিযান চালিয়ে পর্ণোগ্রাফি ও পাইরেসী চক্রের ৫ সক্রিয় সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
সোমবার (২৮ আগষ্ট) বিকেলে নারায়ণগঞ্জের আদমজীতে অবস্থিত র‌্যাব-১১ এর ব্যাটেলিয়ন সদর দফতর থেকে সিনিয়র এএসপি মোঃ জসীমউদ্দিন চৌধুরীর পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানা যায়।

রবিবার রাতে র‌্যাব-১১ এবং চলচ্চিত্রে অশ্লীলতা ও পাইরেসী বিরোধী টাস্কফোর্স টিমের যৌথ অভিযানে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলো, ফাহাদ (১৯), শাহ আলম (৩৫), রতন মিয়া (২৭), শামীম (৩২) ও ইউসুফ আলী (২৫)।

এ সময় তাদের কাছ থেকে কম্পিউটারের সরঞ্জাম হিসেবে ৭টি মনিটর ও ৭টি সিপিইউ উদ্ধার করা হয়েছে।

অভিযানে র‌্যাব-১১ এর উপ-অধিনায়ক মেজর আশিক বিল্লাহর নেতৃত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন র‌্যাবের সিনিয়র এএসপি মোঃ জসিমউদ্দীন চৌধুরী এবং ঢাকার তেজগাঁয়ের বিএফডিসি’র চলচ্চিত্রে অশ্লীলতা ও পাইরেসী ট্রাস্কফোর্সের প্রধান সমন্বকারী মোঃ শহিদুল ইসলাম টিটু।

র‌্যাব জানায়, গ্রেফতাকৃত আসামীরা দীর্ঘদিন ধরে তাদের নিজেদের কম্পিউটারের সিপিইউতে পর্ণোছবি (নীল ছবি), বিভিন্ন শিল্পীদের অশ্লীল গান, সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত বাংলা ছায়াছবির কপিরাইট করে অবৈধভাবে ব্যবসা করে আসছিল। উঠতি বয়সী তরুণ-তরুণীসহ বিভিন্ন ক্রেতাদের নিকট তাদের কম্পিউটারে সংরক্ষিত অশ্লীল অডিও, ভিডিও গান, নীল ছবি ডাউন লোড, চলচ্চিত্রের বিভিন্ন সদ্য মুক্তিপ্রাপ্ত ছায়াছবি কপিরাইট করে সিডি, পেনড্রাইভ, কার্ড রিডারের মাধ্যমে মেমোরীতে ডাউনলোড করে ব্যবসা করে আসছিল। যার ফলে যুব সমাজকে অধঃপতনের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি র‌্যাব-১১ এর জানতে পারে উক্ত এলাকায় অভিযান চালিয়ে পর্ণোগ্রাফি ও পাইসেরীর কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটার সরঞ্জামাদিসহ তাদেরকে হাতে-নাতে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। এ সময় র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেরে মাসুদ রানা নামে আরও এক সদস্য পালিয়ে যায়। গ্রেফতারকৃত আসামীদের বিরুদ্ধে সোনারগাঁও থানায় পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ এবং বাংলাদেশ কপিরাইট আইনে মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে র‌্যাব জানায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here