নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর, বিপ্লব ও সংহতি দিবস। ১৯৭৫ সালের এই দিনে সংঘটিত সিপাহী ও জনতার বিপ্লব এর স্মরণে এই দিবসটি পালিত হয়। কর্নেল (অবঃ) আবু তাহের এর নেতৃত্বে সংঘটিত এই বিপ্লব জেনারেল খালেদ মোশাররফ এর ৩ দিনের সরকারের পতন ঘটায়। এই বিপ্লবের ফলশ্রুতিতে জেনারেল জিয়াউর রহমান বন্দিদশা থেকে মুক্তি পান এবং পরবর্তীতে ক্ষমতায় আসেন।

এরপর থেকেই বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি এই দিনটিকে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস হিসেবে উদযাপন করে আসছে। আর এবছর এই দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালনের লক্ষ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি।

তবে রাজপথে কর্মসূচী পালনে পুলিশী ঝামেলার কারনে এবার কার্যালয়েই দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানায় বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা। কেননা, সম্প্রতি নগরীর রাজপথে একাধিক কর্মসূচী পালন করতে গিয়ে পুলিশের বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়েছিল স্থানীয় বিএনপির নেতৃবৃন্দদের। মহানগর বিএনপিকে সদর ছেড়ে কর্মসূচী পালন করতে যেতে হয়েছিল বন্দরে। আর জেলা বিএনপিকে শহীদ মিনারের পরিবর্তে দাঁড়াতে হয়েছিল খানাখন্দ সড়কের গলিতে।

যার ফলে বিপ্লব ও সংহতি দিবস উদযাপনে আর পুলিশী ঝামেলা পোহাতে চাচ্ছেন না জেলা ও মহানগর বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা। তাই এই দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপনের লক্ষ্যে এবার স্থানীয় বিএনপির নেতৃবৃন্দরা দলীয় কার্যালয়কেই বেছে নিয়েছেন। যেখানে দিবসটি উদযাপনে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে জানান, ‘মঙ্গলবার ৭ নভেম্বর বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষ্যে বিকেল ৪ টায় সিদ্ধিরগঞ্জস্থ জেলা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।’

মহানগর বিএনপির সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল জানান, ‘যথাযথ ভাবগম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে মহানগর বিএনপির উদ্যোগে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উদযাপনের লক্ষ্যে শহরের কালীরবাজাস্থ দলীয় অস্থায়ী কার্যালয়ে বিকেল ৩ টায় দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here