নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: মহাসচিবের নির্দেশনা অমান্য করায় নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালাম ও সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামালের প্রতি ক্ষোভে ফুঁসছে তৃণমূল।
দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর ঢাকার মহা সমাবেশে বাসায় থেকেও অংশ না নেওয়ায় আবুল কালাম এবং গুরুত্বপূর্ণ এই সমাবেশকে উপেক্ষা করে সমাবেশের আগের দিন দেশ ছেড়ে ভারতে চলে যাওয়ায় এটিএম কামালের প্রতি এই ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে বলে জানিয়েছে তৃণমূল। আর কালাম-কামালের কারনে গৃহবন্দি মহানগর বিএনপি এখন প্যারালাইজ্ড হয়ে যাচ্ছে বলে ধারনা তাদের।

তৃণম,ূল সূত্রে প্রকাশ, দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর পর ঢাকায় সমাবেশ করার অনুমতি পায় বিএনপি। আর তাই সমাবেশকে সফল করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালান বিএনপি’র কেন্দ্রীয় নেতারা। ঢাকার নিকটবর্তী জেলা হওয়ায় নেতাকর্মীদের অংশগ্রহনের বিষয়ে নারায়ণগঞ্জকে গুরুত্ব দেয়া হয় সবচেয়ে বেশী। বিএনপি’র মহা সচিব মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপিকে বিশাল শো ডাউনের নির্দেশনা দেন। সেই নির্দেশনা মোতাবেক কেন্দ্রীয় নেতাদেও নারায়ণগঞ্জে এনে প্রস্তুতি সভাও কওে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি। কিন্তু মহা সমাবেশের আগের দিন ১১ নভেম্বর বাংলাদেশ ছেড়ে ভারতের উদ্দেশ্যে উড়াল দেন সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল। চিকিৎসার অজুহাতে ভারতে যাওয়ার কথা বললেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাজমহলে পারিবারিক ফটোসেশনে কামালের ভারত যাওয়া নিয়েও তৈরী হয়েছে বিতর্ক।

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালাম ১২ নভেম্বর ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যাণে অনুষ্ঠিত বিএনপি’র মহা সমাবেশে যাওয়ার নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে তার নির্ধারিত চার দেয়ালে বন্দি থাকেন। যাত্রা পথে নানা প্রতিকূলতাকে পিছনে ফেলে যেখানে সাধারণ নেতাকর্মীরা সমাবেশকে সফল করতে ঢাকার রাজপথ প্রকম্পিত করেন, সেখানে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র কর্ণধার এড. আবুল কালাম পাঁচ তলার বিলাসী ঘরে বসে আয়েশী সময় কাটান আর ‘এড. আবুল কালামের নেতৃত্বে ঢাকার মহা সমাবেশে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র যোগদান’ শীর্ষক মিথ্যা তথ্য নারায়ণগঞ্জের গন মাধ্যমে প্রেরণ করেন।

সভাপতি আবুল কালাম আর সেক্রেটারী এটিএম কামালের এই ধাপ্পাবাজিতে ক্ষোভে ফেটে পরছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূল। দীর্ঘদিন পর সমাবেশে যোগদানের খবরে উজ্জিবীত নেতাকর্মীরা এ দুজনের অনাকাঙ্খিত আচরনের কারনে হতাশ হয়ে পরেছেন এবং দিনের পর দিন গৃহবন্দি করে রাখার পর একটু বাইরে বের হওয়ার সুযোগ পেয়েও তা কাজে লাগাতে না পরার আক্ষেপে জ¦লছেন। কোন কারন ছাড়াই এ ধরনের একটি বৃহৎ কর্মসূচিতেও ঘরে বসে থ্কাায় তৃণমূল মনে করে সভাপতি-সেক্রেটারীর কারনে গৃহবন্দি নারায়ণগঞ্জ বিএনপি এখন প্যারালাইজ্ড হয়ে গেছে। মহা সমাবেশও যখন তাদের ঘর থেকে বের করতে পারেনি, তখন কোন কিছুতেই আর তারা উঠে দাড়াতে পারবে না।

যদিও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালাম ও সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল নির্বাচনের মনোনয়ন প্রত্যাশী।

আবুল কালাম নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) থেকে আর এটিএম কামাল নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) থেকে দলীয় প্রতীকে মনোনয়ন চাইবেন। এবং এর জন্য প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিও নিচ্ছেন। ফলে এক সময় দুইজন দুই মেরুতে বসবাস করলেও স্বার্থ অভিন্ন হওয়ায় আবুল কালাম ও এটিএম কামাল এক সুতায় বাঁধা পরেন। সেই সাথে তারা বেঁধে ফেলেন দলের নেতাকর্মীদের এবং দুই নেতার চার দেয়ালে বন্দি হয়ে পরে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সকল কর্মকান্ড। আর তাদের এই ঘরকুনো রাজনীতির প্রভাবে হতাশার সাগরে নিমজ্জিত হতে থাকে দলটির মাঠ পর্যায়ের ত্যাগী নেতাকর্মীরা। এর থেকে উত্তরণের জন্য তারা ১২ নভেম্বরের মহা সমাবেশকে বেছে নিয়েছিলো। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্নও ভেস্তে দিলেন সভাপতি কালাম ও সেক্রেটারী কামাল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here