নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: সার্বিক দিক বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭১ তম জন্মদিন ব্যাপক পরিসরে পালন না করতে দলীয় নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়েছিলেন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।
যেই কারনে নারায়ণগঞ্জ জেলায় ক্ষুদ্র পরিসরেই শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন করেছিলেন ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দরা। আর আকারে বড় না হলেও জন্মদিনের প্রতীক হিসেবে ক্ষুদ্র আকারের কেকও কাটেন নেতৃবৃন্দরা। জেলা আওয়ামীলীগ, মহানগর আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ সকলেই প্রধানমন্ত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে মোনাজাত করেন। পাশাপাশি ক্ষুদ্র আকারের কেক কেটে জন্মদিনের আনন্দ উদযাপন করেন।

অথচ, নারায়ণগঞ্জ জেলা বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের উদ্যোগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উদযাপনে দোয়া মাহফিল শেষে মাত্র ২ পাউন্ডের কেক কেটেই নাকি দোষ করে ফেলেছেন আইনজীবীরা বলে একটি মহল অপপ্রচার শুরু করে দিয়েছে।

আর এই অপপ্রচারকারীদের আওয়ামীলীগের সুবিধাবাদী ও স্বাধীনতা বিরোধী হিসেবে আখ্যায়িত করে নারায়ণগঞ্জ জেলা জজ আদালতের একাধিক আইনজীবী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন কেক কেটে পালন করেনি কে? ঢাকায় কেন্দ্রীয় যুব মহিলালীগের নেতৃবৃন্দরা কেক কেটেছেন, মিষ্টি মুখ করিয়ে আনন্দ উদযাপন করেছেন। ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা আনন্দ র‌্যালী বের করেছে। বিকেলে মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে ৩০ পাউন্ডের কেক কাটা হয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জে নাসিক প্যানেল মেয়র-২ আলহাজ¦ মতিউর রহমান মতি কেক কেটেছেন। সরকারি তোলারাম কলেজে সাংসদ পুত্র অয়ন ওসমানের উদ্যোগে মহানগর ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দরা কেক কাটে। তাহলে দোষ কেবল মাত্র বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবীদের কেন হবে?’

আইনজীবীরা আরো বলেন, ‘আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হচ্ছেন মাতৃতুল্য নেত্রী। উনি তার জন্মদিন ব্যাপক পরিসরে পালন না করার নির্দেশ দিয়েছেন। তাই আমরা এবার ব্যাপক পরিসরে জন্মদিন পালন না করে নেত্রীর আরোগ্য কামনায় দোয়া করেছি। পাশাপাশি জন্মদিনের আনন্দটাও উদযাপন করার জন্য অত্যন্ত ক্ষুদ্র আকারের কেক কেটেছি। এতে করে আইনজীবীরা কোন দোষ বা কারো নির্দেশনা অমান্য করেনি।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিনে কেক কাটাকে নিয়ে মূলত আইনজীবীদের মাঝে আওয়ামীলীগের সুবিধাবাদীরা বিভাজন সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে বলে অভিযোগ করেন বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদের আইনজীবীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here