নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি : ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দদের চাওয়া-পাওয়ার জন্য এখন অশান্ত হয়ে উঠেছে কুতুবপুর ইউনিয়ন। বিগত পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে সাইনবোর্ডে একটি পশুর হাটকে কেন্দ্র করে ক্ষমতাসীনদের মাঝে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা দেখা দিয়েছে জনমনে।
আর এর নেপথ্যে কলকাঠি নাড়ছেন সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও নারায়ণগঞ্জ জেলা কৃষক লীগের সভাপতি নাজিম উদ্দিন আহাম্মেদ। পশুর হাটের টাকার পুরোটাই আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে। আর অভিযোগটি তুলেন কুতুবপুর ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি সালাউদ্দিন ভূঁইয়া।

এ অভিযোগ উঠার পরে ফেঁপে ফুসে উঠেছেন স্থানীয় আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ সহ অন্যান্য অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেত্রীবৃন্দরা তাদের নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আমরা রাজনীতি করি এলাকার উন্নয়নের জন্য সামাজিক ভাবে একটু সম্মান যেন পাই এবং মরে যাওয়ার পরে ভাল কাজগুলো মূল্যায়ন করে দু হাত তুলে যেন একটু দোয়া করে। এটাই আমার নেতা শামীম ওসমানের শিক্ষা। কোন কিছু পাওয়ার জন্য রাজনীতি করি না, তবে মনে খুব কষ্ট হয়; দলের ত্যাগী নেতাকর্মীরা যখন মূল্যায়ন পায় না, টাকা ওয়ালা রাজনীতি বিদদের বাসায় গিয়ে যখন দেখা পাওয়া যায় না।

তিনি আরও বলেন অত্যান্ত দুঃখের সাথে কথাগুলো বলছি, সাইনবোর্ডের গরুর হাট নিয়ে যে ধরনের কাদা ছোড়া-ছুড়ি হচ্ছে তা লজ্জা জনক। সাইন বোর্ডের গরুর হাটটি বসিয়েছেন ঐ এলাকার অত্যান্ত সম্মানিত লোক আলহাজ¦ রাজ্জাক বেপারী। তিনি সমাজের বিভিন্ন মসজিদ, মাদ্রাসা ও কলেজে সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেন এবং তিনি একটি কলেজের প্রতিষ্ঠাতা। এমনকি দলের দুঃসময়ে যিনি কি না নিজের অর্থ দিয়ে দলকে সাহায্য সহযোগীতা করেন। সেই রাজ্জাক ব্যাপারীকে অপমান অপদস্থ করতেও ছাড়েন নাই রাজ্জাক ফকির।

আর এর পিছনে কলকাঠি নাড়ছে নাজিম উদ্দিন চেয়ারম্যান। তাই কুতুবপুর স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ এম. সাইফুল্লাহ্ বাদল, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ¦ এম. শওকত আলী সংদ শামীম ওসমানের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। যেহেতু সামনে সংসদ নির্বাচন তাই নিজেদের মধ্যে যদি এধরনের কোন্দল ও কাদা ছোড়াছুড়ি থাকে তাহলে কিন্তু দলের জন্য ভালো লক্ষণ নয়। আমাদের প্রাণপ্রিয় সংসদ শামীম ওসমান বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে দৌড়-ঝাপ করে টাকা আনে বিভিন্ন উন্নয়নের জন্য। যদি এভাবে চলতে থাকে তাহলে সবই জলে যাবে। তাই তড়িৎ গতিতে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া উচিৎ।

গত ১৮/০৯/২০১৭ তারিখে রাজ্জাক বেপারী ও রাজ্জাক ফকিরের মাঝে একটি তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ফতুল্লা মডেল থানায় অভিযোগ ও পাল্টা অভিযোগ দায়ের করা হয়।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামাল উদ্দিন আহম্মদ নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে জানান, আমরা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নিব। আইনের উর্ধে কেউ নয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here