নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: চাষাঢ়ায় শহীদ মিনারে কবি আরিফ বুলবল সহ সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিদের উপর হামলাকালীদের কাপুরুষ ও ভীত বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মহাম্মদ।
বুধবার (১২ জুলাই) বিকাল ৪টায় নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটি নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এই মন্তব্য করেন তিনি।

উক্ত সংগঠনের নারায়ণগঞ্জ জেলা আহবায়ক রফিউর রাব্বির সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক আনু মহাম্মদ বলেন, ‘যারা কবি আরিফ বুলবুলের উপর ন্যাক্কারজন হামলা চালিয়েছে তারা আবারও প্রমান করলো তারা ভীত ও কাপুরুষ। তারা এই দেশের শহীদ মিনারকে সন্ত্রাসের জায়গা বানাতে চায়। তারা যতই আমাদের ভয় দেখাবে ততই আমরা আরো সক্রিয় হবো। যতদিন সুন্দরবন রক্ষা, ত্বকী হত্যা ও চঞ্চল হত্যার বিচার করা না হবে ততদিনই আমরা এই শহীদ মিনারে এসে সোচ্চার হয়ে প্রতিবাদ জানাতে আসবো।’

তিনি আরো বলেন, ‘সরকার তার কান্ডজ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। যে জ্ঞান দিয়ে দেখবে সে খুব ভাল দেখতে পারবে। সুন্দরবন শুধু জমি নয় বাংলাদেশের মানুষের মহাপ্রাণ। সুন্দরবনকে গ্রাস করে সেখানে বাণিজ্য করার পায়তারা করা হচ্ছে। আমি বলতে চাই বিদেশী কোম্পানীর লোকার প্রতিনিধিরা এই নারায়ণগঞ্জকে অশান্ত বানাতে চাইছে। আমি প্রশ্ন রেখে আরো বলতে চাই যে সরকার থাকাকালীন শহীদ মিনারে হামলা হয় সে সরকার কেমন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা জনগনকে বলেন। এই প্রজন্মের তরুনরা কখনোই সন্ত্রাসীর আর টাকার কাছে মাথানত করবে না।’

সভাপতির বক্তব্যে রফিউর রাব্বি বলেন, ‘এদেশে আইয়ুব খান ইয়াহিয়ার আমল থেকেই শহীদ মিনারে আক্রমন হচ্ছে। যারা সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিদের উপর হামলা চালিয়েছে তারা রামপালের পক্ষের লোক। আমরা যতবার এই নারায়ণগঞ্জে হত্যার বিরুদ্ধে, চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে যতবার প্রতিবাদ করেছি ততবারই হামলার শিকার হয়েছি। প্রশাসন যদি তাদের পাশে থাকে তাহলে তারা সিন্দাবাদের ভুতের মত মানুষের ঘাড়ের উপর বসে। সকল অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করেই আমরা ঘরে ফিরবো। সরকারকে বলবো আগামী নির্বাচনের কথা চিন্তা করে এসব লোকদের বর্জন করুন।’

নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম বলেন, ‘শামীম ওসমান আপনি ভাল হয়ে যান। আপনি যখনই বিদেশে যান তখনই নারায়ণগঞ্জে একটি ঘটনা ঘটে।’

তিনি আরো বলেন, ‘সদর মডেল থানার ওসি নাকি বলেছেন সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিদের উপড় হামলাটি ছিল নাকি ব্যাক্তিগত ঘটনা। আমি প্রশ্ন করতে চাই তদন্ত ছাড়াই ওসি কিভাবে বুঝলেন এটি ব্যাক্তিগত ঘটনা।’

উক্ত প্রতিবাদ সমাবেশে এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, গণসংহতির জেলার সমন্বয়ক তরিকুল সুজন, শিল্পী অমল আকাশ, ভবানী শঙ্কর, এড. আওলাদ হোসেন, কবি শ্যামল দাস, ওয়াকার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড জাকির হোসেন, জেলা বাসদ এর সমন্বয়ক নিখিল দাস, কমিনিউইষ্ট পার্টির জেলা সভাপতি কমরেড হাফিজুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সভাপতি এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম, সাবেক সভাপতি কবি হালিম আজাদ, নাগরিক কমিটির সাধারন সম্পাদক আব্দুর রহমান সহ প্রমূখ।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here