নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ভুক্তভোগী মানুষ থানায় আসে সহযোগীতা পাওয়ার জন্য। পুলিশের প্রত্যেকটি সদস্যকে থানায় আসা জনগনকে সেবা দিতে হবে। জনগনের সাথে ভাল ব্যবহার করতে হবে । তবেই থানা সুন্দর করার স্বার্থকতা হবে। থানা যতোই ডিজিটাল করা হউক যদি জনগন সেবা থেকে বঞ্চিত হয় তাহলে নাম মাত্র ডিজিটাল করার কোনো স্বার্থকতা হবে না। জনগনকে নিজ সাধ্যমত সেবা দান করা পুলিশের ঈমানী দায়িত্ব।

মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) রাতে নবরুপে ফতুল্লা মডেল থানা ডিজিটাল উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি জেলা পুলিশ সুপার মঈনুল হক পিপিএম এসব কথা বলেন।

ফতুল্লা থানাকে কয়েক বছর আগে মডেল থানায় রুপান্ততির করা হয়। ফতুল্লা মডেল থানায় ওসি হিসেবে কামাল উদ্দিন যোগদান করার পর থানার অবকাঠামো উন্নয়নে বেশ কিছু কাজ হাতে নেয়। মঙ্গলবার রাত ৭ টা ৪২ মিনিটে ফতুল্লা মডেল থানায় ডিউটি অফিসার ডেক্স, সার্ভিস ডেলিভারী ডেক্স ও অফিসার ইনচার্জের কক্ষের ডিজিটাল উদ্বোধন করেন জেলা পুলিশ সুপার মঈনুল হক।

এসময় জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মতিয়ার রহমান,অতিরিক্তি পুলিশ সুপার (ক সার্কেল) শরফুদ্দিন,ফতুল্লা মডেল থানার অফিসার ইন চার্জ কামাল উদ্দিন, অফিসার ইনচার্জ (ডিবি) মাহবুবুর রহমান, ফতুল্লা মডেল থানার ইন্সপেক্টার (তদন্ত) শাহজালাল, ইন্সপেক্টার (অপারেশন) মুজিবুর রহমান, ইন্সপেক্টার (আইসিপি) গোলাম মোস্তফা, সদর মডেল থানার ইন্সপেক্টার (তদন্ত) আব্দুর রাজ্জাক, শ্রমিক নেতা কাউসার আহম্মেদ পলাশ,এনায়েতনগর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আসাদুজ্জামান, কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ মনিরুল আলম সেন্টু, কমিউনিটি পুলিশের ফতুল্লা থানা সভাপতি মীর মোজাম্মেল আলী, সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক তৈয়্যুবুর রহমান ও ফতুল্লা থানার এলাকার সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক বিভিন্ন এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ ও কমিউিনিটি পুলিশের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মঈনুল হক আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এগিয়ে চলছে দেশ। প্রশাসনের বিভিন্ন অফিস এখন ডিজিটালের আওতায়। সে হিসেবে ফতুল্লা মডেল থানাকে ডিজিটাল করা হয়েছে। ওসি ফতুল্লার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় ও স্থানীয় ব্যাক্তিবর্গের সহযোগীতায় আজকে ফতুল্লা মডেল থানার অবয়ব সুন্দর হয়েছে। একমাত্র সুন্দর মন থাকলেই এসব কাজ করা সম্ভব। ফতুল্লা মডেল থানায় আগে আগুন্তুকদের অভিযোগ বা জিডি লিখতে কিছুটা কষ্ট করতে হতো। এখন থানা থেকে সার্ভিস ডেলিভারী তথা মানুষ নিজেদের জিডি বা অভিযোগ কোন রকম খরচ ছাড়াই লেখাতে পারবেন। কাঙ্খিত সেবা মানুষ এখান থেকেই পাবে।

পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশ্যে মঈনুল হক বলেন, সেবাই পুলিশের ধর্ম। জনগনকে সেবা করার জন্য সরকার জেলার বিভিন্ন থানায় পুলিশ সদস্য রয়েছে। জনগনকে সেবা দানকরা এবং তাঁদের সাথে শোভন আচরণ করা বাঞ্চনীয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here