নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ২০২২ সালের মধ্যে দেশ থেকে জলাতঙ্ক রোগ নির্মূলের লক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলায় ব্যাপক হারে কুকুরের টিকাদান কার্যক্রম শুরু উপলক্ষ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মঙ্গলবার (২৭ মার্চ) সকালে নারায়ণগঞ্জ সার্কিট হাউজে এই অবহিতকরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা: এহসানুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অবহিতকরণ সভায় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার সহকারী পরিচালক ডা: হেলালউদ্দিন আহমেদ, নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আ: হামিদ মিয়া, আতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মোস্তাফিজুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসনীম জেবীন বিনতে শেখ, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার শরিফুল ইসলাম, বিএমএ জেলা সভাপতি ডা: শাহনেওয়াজ চৌধুরী, রূপগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান শাহজাহান ভূইয়া, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেমা মনির প্রমূখ।

সভায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার সহকারী পরিচালক ডা: হেলালউদ্দিন আহমেদ বলেন, বণ্য প্রাণীর কামড়ে জলাতঙ্ক রোগ হয়ে থাকে। এর মধ্যে বেশীরভাগই হয় কুকুরের কামড়ে। তাছাড়া বিড়াল, বানর, শিয়াল, বেজি বা বাদুরের কামড়েও এই রোগ হতে পারে। বাংলাদেশে জলাতঙ্ক রোগে দেশে বছরে প্রায় দুই হাজার লোক মারা যেতো। ২০১০ সালের পর এই সংখ্যা ২০০ তে নেমে এসেছে। আর এখন সরকার ২০২২ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে জলাতঙ্ক রোগ নির্মূল করার কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। এ লক্ষ্যে দেশের প্রায় ১২ থেকে ১৫ লক্ষ কুকুরকে তিন রাউন্ড করে টিকা দেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই কক্সবাজার ও সাতক্ষীরা জেলায় এ কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করা হয়েছে। গাজিপুর ও গাইবান্ধা জেলায় দুই রাউন্ড করে টিকা দেওয়া হয়ে গেছে, এখন শুধু আর এক রাউন্ড বাকী। এখন আমরা ঐতিহ্যবাহী নারায়ণগঞ্জ জেলায় এই কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছি। পাঁচদিন ব্যাপী নারায়ণগঞ্জ জেলায় এ কার্যক্রম চলবে। তবে এটা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একার পক্ষে সম্ভব নয়, প্রয়োজন সকলের সমন্বিত সহযোগিতা। সকলের সহযোগীতা পেলে জল বসন্ত বা পোলিও’র মতো জলাতঙ্ক রোগও একদিন বাংলাদেশ থেকে নির্মূল করা সম্ভব হবে।

সভাপতির বক্তব্যে নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জণ ডা: এহসানুল হক বলেন, কুকুর খুবই বিশ্বস্ত ও উপকারী প্রাণী। তাছাড়া কুকুর পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। তাই আমরা কুকুর মেরে ফেলবো না, কুকুর যেমন আছে, তেমনই থাকবে। তবে কুকুরে কামড়ালে যাতে জলাতঙ্ক রোগ না হয়, সে লক্ষ্যে কুকুরকে টিকা দেওয়া হবে। ২৭ মার্চ থেকে পাঁচদিন ব্যাপী চলবে এই কার্যক্রম।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here