নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে কোমরে দড়ি বেঁধে আদালতে নিয়ে আসায় ক্ষোভে ফেটে পরছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র নেতাকর্মীরা। বিএনপি’র মতো একটি বৃহৎ রাজনৈতিক দলের জেলা সেক্রেটারীর পাশাপাশি একজন কলেজের অধ্রাপকের প্রতি পুলিশের এই অসৌজন্যমূলক আচরনে প্রশাসন ও সরকারের প্রতি ক্ষোভ জানিয়েছেন তারা। সেই সাথে বিএনপি’র সাথে করা প্রতিটি অন্যায়ের জবাব একদিন দেওয়া হবে হুশিয়ারী জানিয়েছেন তারা।
নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে কোমরে দড়ি বেঁধে আদালতে আনার বিষয়টিকে অত্যান্ত দু:খজনক ও বেআইনী উল্লেখ করে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সিনিয়র সহ সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, পুলিশের এই আচরণ আমাদেরকে হতাশ করেছে। মামুন মাহমুদ একজন কলেজের অধ্যাপক, সেই সাথে বাংলাদেশের বৃহৎ রাজনৈতিক দল বিএনপি’র নারায়ণগঞ্জ জেলা সেক্রেটারী। তাকে সকলের সামনে অপমান করা প্রশাসনের হীন মানষিকতার পরিচয় বহন করে। তাছাড়া এটা একটি বেআইনী কাজ, কারন মামুন মাহমুদতো চোর ডাকাত না। আমরা প্রশাসনের এই অমানবিক আচরনের তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানাই এবং এ ধরনের রাজনৈতিক উদ্দেশ্যমূলক আচরন বন্ধ করার দাবী জানাই।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল এ ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ ও ধিক্কার জানিয়ে নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, এই অবৈধ সরকার প্রমাণ করলো, তাদের দ্বারা সবই সম্ভব। একজন শিক্ষক ও রাজনৈতিক নেতাকে যে পরিমান সৌজন্য প্রকাশ করা দরকার, তা করতে ব্যর্থ হয়েছে এই প্রশাসন। আর এতে এটাই প্রমাণ হয়, দেশে যে কোন গণতন্ত্র নেই, আইনের শাসন নেই। দিন বদল হতে সময় লাগে না, আজ যে দল ক্ষমতায় আছে তারাই যে চীরদিন থাকবে তার কথা কেউ বলতে পারে না, আর এ কথাটি প্রত্যেকটি রাজনৈতিক দলেরই মনে রাখা উচিত।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন এ বিষয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, আমার বিশ^াসই হতে চায় না যে অধ্যাপক মামুন মাহমুদের মতো একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবীদকে কোমরে রশি বেঁধে আদালতে আনা হতে পারে। পুলিশের এই অমানবিক আচরণ জাতি কোনভাবেই মেনে নেবে না। এই অবৈধ সরকারের আজ্ঞাবহ প্রশাসনকেও মনে রাখা উচিত এক মাঘে শীত যায় না। আমাদের মায়ের প্রতি অপমানের পর আমাদের দলের সিনিয়র নেতাদের প্রতি এই নির্মম আচরনের দাঁত ভাঙ্গা জবাব একদিন দেওয়া হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে কোমরে রশি বেঁধে আদালতে আনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, ইটের জবাব পাটকেল দিয়ে দেয়া হবে, প্রতিটি অন্যায় আচরণ সুদসহ ফেরত দেওয়া হবে। অধ্যাপক মামুন মাহমুদ একজন মানুষ গড়ার কারিগর, সেই সাথে বিএনপি’র মতো জনপ্রিয় রাজনৈতিক দলের জেলা সেক্রেটারী। তার প্রতি এ ধরনের অমানবিক আচরণ আল্লাহও সহ্য করবে না। এটা বর্তমান স্বৈরাচারী সরকারের চুড়ান্ত পর্যায়ে উপনীত হওয়ার লক্ষণ। প্রশাসকে ব্যবহার করে এই সরকার আর বেশীদিন ক্ষমতায় থাকতে পারবে না, সরকারের বিদায় ঘন্টা বেজে গেছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম আহবায়ক এড. এইচএম আনোয়ার প্রধান এ বিষয়ে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, অধ্যাপক মামুন মাহমুদের মতো একজন শিক্ষিত ভদ্রলোককে এভাবে সবার সামনে অপমান করা মানে বিশে^র সকল শিক্ষক সমাজকে অপমান করা। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। সেই সাথে এই অগণতান্ত্রীক সরকারকে হুশিয়ার করে দিয়ে বলতে চাই, প্রতিটি অপমানের প্রতিশোধ নেওয়া হবে, কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

নারায়ণগঞ্জ মহানগর ছাত্রদল নেতা আল আমিন প্রধান এ ঘটনার প্রতি ধিক্কার জানিয়ে নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, এই নরকার যে পেশী শক্তির মাধ্যমে ক্ষমতায় টিকে আছে, এ ঘটনা তারই বহি:প্রকাশ। অধ্যাপক মামুন মাহমুদের মতো একজন পরিচ্ছন্ন ইমেজের মানুষকে সকলের সামনে এভাবে অপমান করা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। আমি এই অমানবিক আচরনের ধিক্কার জানাই সরকারের পালিত প্রশাসনের প্রতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here