নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: অত:পর অক্টোবরেও ঘোষিত হলো না নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। আর আওয়ামীলীগের মতন একই পথে হাঁটছে নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টি। কারন, চলতি অক্টোবরের মধ্যে নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির কমিটি গঠনের কথা থাকলেও দায়িত্ব প্রাপ্ত নেতারা একনো কমিটি গঠনের কার্যক্রম সম্পন্ন করতে পারেনি।
এখন দু’টি দলেরই শীর্ষ নেতারা আশ^স্ত করছেন, যে কোন মূহুর্তেই ঘোষিত হবে জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ ও জাতীয় পার্টির জেলা মহানগর কমিটি।

জানাগেছে, দীর্ঘ দেড় যুগ পর গত বছরের ৯ অক্টোবর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের আগে কেন্দ্র থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের তিন সদস্যের আংশিক কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক আবদুল হাইকে সভাপতি, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভী কে সহ-সভাপতি ও জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদলকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়।

আংশিক কমিটি ঘোষণার পর নেতাকর্মীরা আশা করেছিলেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগে নতুন করে প্রাণ ফিরে পেয়েছে। সকল ভেদাভেদ ভুলে শিগগিরই নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হবে।

কিন্তু গত বছর ২২ ও ২৩ অক্টোবর অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ২০ তম জাতীয় কাউন্সিলের পূর্বেই নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার কথা থাকলেও তিন সদস্য বিশিষ্ট আংশিক কমিটির ঘোষণা হওয়ার দীর্ঘ ১২ মাসেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি আর ঘোষণা করা সম্ভব হয়নি।

এরপর চলতি মাসে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই দাবী করেছিলেন, জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন নাকি দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা দিয়ে দিয়েছেন। অক্টোবর মাসেই যা আনুষ্ঠানিক ভাবে ঘোষণা করা হবে।

কিন্তু অক্টোবর শেষে রাত পোহালেই নভেম্বর মাস চলে আসলেও ঘোষিত হয়নি নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি। তবে আব্দুল হাই এখন দাবী করছেন, যে কোন মুহুর্তেই ঘোষিত হবে জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি।

অপরদিকে, বিগত ২০১৪ সালে ৩০ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের তৎকালীন জাতীয় পার্টির সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম নাসিম ওসমান মারা যাওয়ার পর ঝিমিয়ে পড়া নারায়ণগঞ্জ জাতীয় পার্টিতে প্রাণ ফেরাতে চলতি বছর জুন মাসে একটু হার্ডলাইনেই যান উক্ত আসনে নির্বাচিত এমপি সেলিম ওসমান।

এরপর জুলাই-আগষ্ট মাসের মধ্যে নারায়ণগঞ্জে দলীয় কার্যালয় এবং সকল পর্যায়ে নতুন কমিটি গঠনে জাতীয়পার্টির যুগ্ম মহাসচিব ও নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাংসদ আলহাজ¦ লিয়াকত হোসেন খোকা এবং জাতীয়পার্টি জেলা আহবায়ক আবুল জাহেরকে দায়িত্ব দেন তিনি। একই সাথে ঘোষণাও দেন যদি আগামী জুলাই আগষ্ট মাসের মধ্যে জাতীয় পার্টির নতুন কমিটি ও অফিস খোকা এমপি ও আবুল জাহের করতে না পারেন তাহলে প্রয়োজনে তিনি জাতীয় পার্টি ছেড়ে দিবেন।

কিন্তু সেলিম ওসমানের বেঁধে সময় সীমা অতিবাহিত হলেও এখনো কার্যালয়ের স্থান নির্ধারন করতে পারেন নি কেউ। আর কমিটি গঠন প্রক্রিয়া অব্যাহত রয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয় পার্টির আহবায়ক আবুল জাহের ‘চলতি অক্টোবর মাসের ৭ তারিখের মধ্যে সকল ইউনিয়ন পর্যায়ে কমিটি গুলো গঠনে উদ্যোগ নেয়া এবং সকলের সাথে আলোচনা করে ২৫ অক্টোবরের মধ্যেই জেলা ও মহানগর জাতীয় পার্টির নতুন কমিটির ঘোষণা দেয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করলেও অক্টোবর শেষে এখন নভেম্বর মাস আসতে চললেও কমিটি গঠনে কোন অগ্রগতি জাতীয় পার্টির।

ফলে আওয়ামীলীগ ও জাতীয় পার্টির তৃণমূল নেতাকর্মীদের মতে, জেলা আওয়ামীলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণার প্রক্রিয়া এখন ঝুলে গেছে। আর সেই পথে এখন হাঁটতে শুরু করেছে জেলা জাতীয় পার্টির নেতৃবৃন্দরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here