নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: এসএসসির নির্বাচনী পরীক্ষায় ৩/৪টি বিষয়ে অকৃতকার্য্য হওয়ায় আসন্ন ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করতে দেওয়া হবে না, বিদ্যালয়ের এমন সিদ্ধান্তে ছাত্রীরা উদ্বিগ্ন হয়ে মিছিল সহকারে জেলা প্রশাসকের বরাবরে একটি লিখিত স্মারকলিপি প্রদান করেছেন মর্গ্যাণ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দশম শ্রেণীর অনুত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীরা।
আর জেলা প্রশাসকের তাৎক্ষনিক ফোন পেয়ে রাব্বী মিয়ার সাথে দেখা করে বের হয়ে যাওয়ার পথে আদালত পাড়ায় শিক্ষার্থীসহ অভিভাবকদের তোপের মুখে পড়েন প্রধান শিক্ষক অশোক কুমার তরু। তখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ধাওয়া দিয়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করে দেন।

মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়ার নিকট ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের অনুমতি চেয়ে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন মর্গ্যান উচ্চ বিদ্যলয় ও কলেজের শিক্ষার্থীরা।

এরপর দুপুরে আদালত পাড়ায় এই ঘটনা ঘটে।


লিখিত স্মারকলিপিতে ছাত্রীরা উল্লেখ করেন, তারা গত ১১ অক্টোবর হতে ৩০ অক্টোবর ২০১৭ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এসএসসি’র নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করেন। গত ৫ ও ৬ নভেম্বর রবিবার এবং সোমবার বিকাল সাড়ে ৩টায় পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। ফলাফলে দেখা যায়, সিংহভাগ ছাত্রীই পরীক্ষায় অনুত্তীর্ণ হয়। এই ফলাফল বিপর্যয়ের পেছনে গতানুগতিক প্রশ্ন পত্রের বাহিরে জটিল ও কঠিন প্রশ্নপত্র প্রনোয়নই মূল কারন বলে তারা মনে করেন। ফলে বিরাট সংখ্যক ছাত্রীর শিক্ষা জীবন অনিশ্চিত হয়ে পড়ার অশঙ্কা থাকে। আর ৭ নভেম্বর ছিল তাদের এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরনের শেষ দিন। কিন্তুু বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদেরকে ফরম পুরনের অনুমতি দিচ্ছে না।

তারা আরো উল্লেখ করেন, নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন স্কুলে ৩/৪ বিষয়ে অকৃতকার্য হলেও তাদেরকে ফরম পুরনের অনুমতি দিয়েছে স্কুলগুলো। কিন্তুু তাদেরকে অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না। ২০১৮ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহনের ফরম পূরনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য তারা জেলা প্রশাসক এর নিকট বিনীত অনুরোধ জানান।

এরপর জেলা প্রশাসক শিক্ষার্থীদের আশ^স্ত করে বাড়ী ফিরে যাওয়ার পরামর্শ দিলেও প্রায় দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভেতরে অবস্থান করেন ছাত্রীসহ অভিভাবকরা। এ সময় তারা বিক্ষোভ প্রদর্শন করলে পুলিশ এসে তাদেরকে ধাওয়া দিয়ে জোর করে গেটের বাইরে বের করে দিয়ে গেইট লাগিয়ে দেয়।

তারপর স্কুলের প্রধান শিক্ষক অশোক কুমার তরু জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আসলে বিক্ষুদ্ধ ছাত্রীদের অভিভাবকগন তাকে চারদিক থেকে অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে তাদের গাড়িতে উঠিয়ে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here