নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকী হত্যার বিচারে বৈষম্য সৃষ্টির অভিযোগ করেছেন সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের আহ্বায়ক রফিউর রাব্বী।
সোমবার (৮ জানুয়ারী) সন্ধ্যায় নগরীর চাষাড়ায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে ত্বকী হত্যাকান্ডের বিচারের দাবীতে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত মোমশিখা প্রজ্জলন কর্মসূচিতে নিহত ত্বকীর বাবা এই অভিযোগ করেন।

রফিউর রাব্বী বলেন, ‘বাংলাদেশের আইন মোতাবেক কোন হত্যাকান্ড বা অপরাধ সংগঠিত হলে ৯০ দিনের মধ্যে অভিযোগ পত্র দাখিল করতে হয়। আজকে প্রায় ৫ বছর হতে চললেও ত্বকী হত্যার বিচার তো দুরের কথা অভিযোগ পত্রও দেয়া হয়নি। এ থেকেই প্রমাণিত হয় বাংলাদেশের বিচার ব্যবস্থা কতটা দুর্বল। এখানে বিচারের ক্ষেত্রে বৈষম্য রয়েছে। ৭ খুনের আসামী নূর হোসেনকে ভারত থেকে এনে বিচার প্রক্রিয়া শুরু করলেও ত্বকীর হত্যাকারীদের বিচার আমরা দেখতে পাচ্ছি না। আমাদের দেশের বিচার ব্যবস্থা এখন এক ব্যক্তির নির্দেশের ওপর নির্ভরশীল। প্রধানমন্ত্রী চাইলে বিচার হয়,না চাইলে হয় না। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ত্বকীকে কারা হত্যা করেছে তিনি জানেন। জানলে কেন ত্বকী হত্যার বিচার হচ্ছে না তা সকলের প্রশ্ন।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে আমরা বলতে চাই, পৃথিবীতে কোন অপরাধের বিচার হয়নি এমন ঘটনা বিরল। বিচার বিলম্বিত হয়েছে কিন্তু বিচারের আওতায় সকলকে আসতে হয়েছে। ফলে ত্বকীর হত্যাকারীরা নানান ভাবে সরকারের বিভিন্ন পর্যায় রয়েছে বলেই তাদের বিচার আজ হচ্ছে না। এক সরকার সব সময় ক্ষমতায় থাকে না। ক্ষমতার বদল হয় এবং পূর্বের ক্ষমতাসীনদের বিচার হয় । ফলে বাংলাদেশে ক্ষমতার বদল ঘটলে হত্যাকারীর বিচার হবে এবং এর সাথে যারা বিচার বন্ধের সাথে যুক্ত ছিলেন তাদেরও বিচার হবে।

সভায় সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের সদস্য সচিব সাংবাদিক হালিম আজাদ বলেন, ত্বকীকে আজ থেকে প্রায় ৪ মাস ১০ দিন আগে হত্যা করা হয়। এত বছর পার হলেও ত্বকীর হত্যাকারীরা প্রশাসনের ধরা ছোয়ার বাইরে। হত্যা সংগঠিত হওয়ার দের মাসের মধ্যে পুলিশ তদন্ত করে একটি খসড়া চার্জশিট সারা দেশবাসীকে জানিয়ে উপস্থাপন করেন । সেখানে সুস্পষ্ট করে ত্বকীর হত্যাকারীদের চিহ্নিত করা হয়েছে। কিন্তু আজও ত্বকীর হত্যাকারীরা নারায়ণগঞ্জে অবাধে বিচরণ করছে। নারায়ণগঞ্জের জন্য এর থেকে লজ্জার আর কিছু নেই।

সমাবেশে নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি জিয়াউল ইসলাম কাজলের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, কমিউনিস্ট পার্টি নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, বাসদ জেলার সমন্বয়ক নিখিল দাস, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির জেলা সাধারণ সম্পাদক হিমাংশু সাহা, গণসংহতি আন্দোলন জেলার সমন্বয়ক তরিকুল সুজন, খেলাঘর আসর নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি রথিণ চক্রবর্তী ছাত্র ফ্রন্ট, ছাত্র ফেডারেশন এবং ছাত্র ইউনিয়নের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য,২০১৩ সালের ৬ মার্চ মেধাবী ছাত্র তানভীর মুহাম্মদ ত্বকীকে অপহরণ ও খুন করা হয়। ৮ মার্চ শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here