নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তৃণমূলকে সুসংগঠিত করার লক্ষ্যে দলীয় নতুন সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম পরিচালনায় তৈমূর গিয়াস সাখাওয়াতের কাছে ‘ধরাশাঁয়ী’ হয়ে গেছে জেলা ও মহানগর বিএনপি বলে অভিমত ব্যক্ত করেছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।
তাদের মতে, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকার, সাবেক এমপি আলহাজ¦ গিয়াস উদ্দিন আহম্মেদ ও মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান হচ্ছেন এখন নারায়ণগঞ্জ বিএনপির তিনটি রতœ। যারা পদবী প্রাপ্ত নেতাদের মত ঘরে বসে না থেকে ওয়ার্ড থেকে ইউনিয়ন, থানা থেকে উপজেলা পর্যন্ত বিভিন্ন স্থানে গিয়ে দলীয় নতুন সদস্য সংগ্রহে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন। এমনকি কারো বাঁধা স্বত্ত্বেও তারা হননি পিছপা।

অথচ, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ এবং মহানগর বিএনপির সভাপতি এড. আবুল কালাম ও সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল রাজপথের পরিবর্তে ঘরের মধ্যে বসেই করেছেন দলীয় সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম পরিচালনা।

যদিও মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খানের একটি মন্তব্যের প্রেক্ষিতে এখন মাঠে নেমে দলীয় সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন মহানগর বিএনপির সভাপতি এড. আবুল কালাম ও সাধারন সম্পাদক এটিএম কামাল। কিন্তু জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদকে ওয়ার্ড কিংবা ইউনিয়ন পর্যায়, কোথাও গিয়ে সদস্য সংগ্রহ অভিযান করতে যায়নি দেখা।

তারাও ঘরে বসেই করছেন দলীয় নতুন সদস্য সংগ্রহ কার্যক্রম পরিচালনা। যার মধ্যে কাজী মনির করছেন রূপগঞ্জে নিজের বাড়ীতে বসে আর অধ্যাপক মামুন মাহমুদ করছেন সিদ্ধিরগঞ্জে দলীয় কার্যালয়ে বসে।

ঘরে বসে তৃণমূলকে সুসংগঠিত করায় তৃণমূল সুসংগঠিত হওয়ার পরিবর্তে কাজী মনির, মামুন মাহমুদ, এড. আবুল কালাম ও এটিএম কামালের মতই গৃহবন্দি হয়ে পড়বে বলে মন্তব্য করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here