নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: প্রায় অর্ধশত বছর পর ২০১৪ সালের ২০ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীতে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছিল গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা।
কিন্তু প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত হওয়ায়, প্রতিযোগিতার শুরুতেই হ-য-ব-র-ল অবস্থার সৃষ্টি হয় তখন। রীতিমত খেলা শুরু হওয়ার পূর্বেই ঘোষণা হয়ে যায় অংশ গ্রহণকারী বিজয়ীদের নাম। পরবর্তীতে ফের নতুন করে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রথমবারের মত শীতলক্ষ্যা নদীতে নৌকা বাইচ খেলা দেখতে সদর-বন্দরের দু’পারে শিশু থেকে বৃদ্ধ বয়সী লক্ষাধিক মানুষের সমাগম ঘটেছিল।

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে তৎকালীন জেলা প্রশাসক মো: আনিছুর রহমান মিঞা এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিলেন। আর প্রতিযোগীদের মাঝে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে পুরস্কার বিতরন করেছিলেন, তৎকালীন বছরে প্রথমবারের মত জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হওয়ার নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান।

এরপর তিনি সেদিন ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন, ‘বহু বছর পরে এই ধরনের একটি খেলা দেখে আমিও নারায়ণগঞ্জবাসীর সাথে অনেক আনন্দ উপভোগ করতে পেরেছি। প্রায় অর্ধশত বছর পরে আমি এই ধরনের একটি খেলার কথা শুনলাম ও দেখলাম। এবারের এই নৌকা বাইচে ৭ টি দল অংশগ্রহন করেছে। আগামী (২০১৫ সাল) স্বাধীনতা দিবসে সকলকে আরো আনন্দ দেওয়ার জন্য আমি ২৫ টি দল নিয়ে নৌকা বাইচ করাবো।’

কিন্তু সেলিম ওসমানের সেই ঘোষণার আর বাস্তবায়ন দেখতে পায়নি নারায়ণগঞ্জবাসী। তবে এবার দীর্ঘ ৩ বছর পর বাস্তবায়নের পথে সেলিম ওসমানের সেই ঘোষণা। কেননা, আগামী বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে গত ১৩ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের প্রস্তুতি মূলক সভায় বক্তব্যকালে সেলিম ওসমান এবছর নৌকা বাইচ খেলা আয়োজনের ঘোষণা দেন।

যার ফলশ্রুতিতে আবারো শীতলক্ষ্যা নদীতে নৌকা বাইচ খেলা দেখার সুযোগ পেতে যাচ্ছে সদর-বন্দরের লাখ লাখ মানুষ। তবে প্রথমবারের মত এবারও যেন খেলা শুরু পূর্বেই বিজয়ী ঘোষণার মত ঘটনা না ঘটে সেজন্য সুশৃংখল ভাবে খেলার আয়োজন করার আহ্বান জানান ক্রীড়ামোদিরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here