নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: দূর্যোগ মোকাবেলায় পারিবারিক সচেতনতা বেশি প্রয়োজন বলে পরামর্শ দিয়েছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জসীম উদ্দীন হায়দার।
তিনি বলেন, ‘দুর্যোগকে মোকাবেলা করতে পারিবারিক সচেতনতা বেশি প্রয়োজন। তাই সরকারি বিল্ডিং কোড মেনে এমনভাবে বাড়ী তৈরি করতে হবে যাতে তা দুুর্যোগ সহনীয় হয়।’

শুক্রবার (১৩ অক্টোবর) আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস উপলক্ষে নগরীর হাজীগঞ্জস্থ আইইটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জেলা প্রশাসন ও সদর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজিত র‌্যালী, আলোচনা সভা, ভূমিকম্প ও অগ্নিকান্ড মোকাবেলায় করনীয় মহড়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

মহড়ায় ফায়ার সার্ভিস, স্কুল শিক্ষার্থী, রেড ক্রিসেন্ট, স্বাস্থ্য বিভাগ, আনসার এবং বিভিন্ন এনজিও ভলান্টিয়াররা অংশগ্রহণ করেন। ভূমিকম্প, অগ্নিকান্ড এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগ কীভাবে মোকাবেলা করে জীবন সম্পদ রক্ষা এবং উদ্ধার করা যায় তা মহড়ায় দেখানো হয়।

দিবসটি উপলক্ষে সকাল ১০টায় স্কুল গেট থেকে ‘দুর্যোগ সহনীয় আবাস গড়ি, নিরাপদে বাস করি’ স্লোগানে একটি র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় স্কুলে গিয়ে শেষ হয়।

আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসনিম জেবিন বিনতে শেখ।

আইইটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রমেশ চন্দ্র কুন্ডুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম মজুমদার, নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারি পরিচালক মামুনুর রশিদ, নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আসাদুর রহমান, সিনিয়র এএসপি সুভাষ চন্দ্র সাহা ও সিপিডি’র প্রতিনিধি ফজলুল হক।

স্কুলের সহকারি শিক্ষক শফিকুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলা স্কাউটের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক ভূইয়া মন্টু, কল্যাণী সেবা সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ডা. জব্বার চিশতী, সীপ এর সহকারি প্রোজেক্ট কোঅর্ডিনেটর কাজী এনামুল কবীরসহ স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

অনুষ্ঠানে অন্যান্য বক্তারা বলেন, বাংলাদেশ দুর্যোগ প্রবণ দেশ। প্রাকৃতিক দুর্যোগ সম্পূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব নয়। তবে ব্যাপক প্রস্তুতি ও জনগোষ্ঠীর মাঝে সচেতনতার বৃদ্ধির মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতির মাত্রা বহুলাংশে কমনো সম্ভব। দুর্যোগ মোকাবেলা বাংলাদেশের গৃহীত কার্যক্রম আজ বিশ্বব্যাপী প্রশংসনীয়। চলতি বছর দেশের ৩৫টি জেলার বন্যা কোন আন্তজার্তিক সহযোগিতায় ছাড়াই মোকাবেলা করা হয়েছে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here