নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি : ধর্ষন করতে গিয়ে পুরুষাঙ্গ হারিয়েছেন এক ধর্ষক। ঘটনাটি ঘটেছে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলা দৌলরদী গ্রামে শাহ আলম নামের এক যুবক। পুরুষাঙ্গ কেটে দিয়েছেন এক গৃহবধূ ও তার স্বজনরা। ধর্ষণ থেকে বাচঁতে এ ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে দাবি করেছেন ওই গৃহবধুর।

শুক্রবার ২১ জানুয়ারি রাতে ওই গৃহবধুর ঘরে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে। আহত রক্তাক্ত যুবককে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহত শাহ আলম সোনারগাঁও উপজেলার সনমান্দী ইউনিয়নের দৌলরদী গ্রামের মোস্তফা মিয়ার ছেলে।

এরপর সেই ভুক্তভোগী বাদী হয়ে গতকাল শনিবার ২২ জানুয়ারি সোনারগাঁও থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। তবে অভিযুক্ত শাহ আলম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, পূর্ব শত্রুতার জেরে কৌশলে তাকে ডেকে নিয়ে এ ঘটনা ঘটিয়েছেন ওই গৃহবধূ।

অভিযোগে ভুক্তভোগী উল্লেখ করেন যে, তার স্বামী ব্যবসার কাজে প্রায়শই বাড়ির বাইরে থাকেন। এ সুযোগে তাদের প্রতিবেশী শাহ আলম তাকে দীর্ঘ দিন ধরে কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছে। বিষয়টি নিয়ে এর আগে শাহ আলমকে বারবার সতর্ক করেন ওই নারী। গত শনিবার রাতে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হলে তার অজ্ঞাতে ঘরে প্রবেশ করে শাহ আলম। এক পর্যায়ে শাহ আলম ভুক্তভোগীকে আকস্মিক জড়িয়ে ধরলে তার মেয়ে ও জামাতা তাকে বেঁধে তার পুরুষাঙ্গ ব্লেড দিয়ে কেটে ফেলেন। পরে আহত শাহ আলমকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ বিষয়ে শাহ আলম জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে একা পেয়ে কৌশলে ওই মহিলা ও তার আত্মীয়রা আমাকে বেঁধে গোপনাঙ্গ কেটে দেয়।

সোনারগাঁ থানার ওসি (তদন্ত) এসএম শফিকুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় অভিযোগ গ্রহণ করা হয়েছে। বিষয়টির তদন্ত চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here