নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: কোনক্রমেই যেন কমছে না সবধরনের সবজি ও মাছের দাম। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, টানা বৃষ্টি ও দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বন্যার কারণে চাহিদা মত পণ্য সরবরাহ হচ্ছে না। ফলে বাড়ছে নিত্যপণ্যের দাম।
শুক্রবার (২৫ আগষ্ট) সকালে নগরীর দ্বিগুবাবুর বাজার, মীনাবাজার, কালীরবাজার এলাকায় কাঁচাবাজার ঘুরে দেখা গেছে, বেশির ভাগ সবজি ৫০ টাকার ওপরে বিক্রি হচ্ছে। বেগুন প্রতি কেজি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, সাদা ২৪-২৬ টাকা, ছোট ফুলকপি ২০-২৫ টাকা, করলা ৬০-৭০ টাকা, শিম ১১০-১২০ টাকা, টমেটো ১৩০-১৪০ টাকা, মূলা ৬০ টাকা, শশা ও খিরা ৫০-৬০ টাকা, ঢেঁড়স, ধুনদল, ঝিঙা কাঁকরোল, চিচিঙ্গা ৬০ থেকে ৬৫ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, মিষ্টি কুমড়ার পিচ অনুযায়ী ২০-৩০ টাকা, বরবটি ৮০ টাকা, কুমড়া ৫০ টাকা, লতি ৫০ টাকা, কাঁচা কলা (প্রতি হালি) ৩০-৩৬ টাকা, লেবুর হালি ২০-২৪ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এ ছাড়া কাঁচা মরিচের কেজি এখনও ১০০ থেকে ১২০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। প্রতি আঁটি লাল শাক, পালং শাক ২০ থেকে ২৫ টাকা, পুঁই ও ডাটা শাক বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকায়। প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৫৫-৬০ টাকা এবং আমদানি পেঁয়াজ ৪৮-৫২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এব্যাপারে সবজি বিক্রেতা কলিমুল্লাহ বলেন, বন্যা আর টানা বৃষ্টির কারণে বাজারে সব ধরনের সবজির সরবরাহ কমে, দাম বেশি। তবে আগের সপ্তাহের মতই সবজির দাম রয়েছে। সামান্য ওঠানামা করছে। বন্যায় ফসল যে পরিমাণ নষ্ট হয়েছে। নতুন সবজি না আসা পর্যন্ত এ দাম কমবে বলে মনে হয় না।

মাছের বাজার ঘুরে জানা যায়, প্রতি কেজি রুই ও কাতলা ৩০০-৪৫০ টাকা, তেলাপিয়া ২০০-২৫০, সিলভার কার্প ১৮০-২০০ টাকা, আইড় ৪০০-৬০০ টাকা, মেনি মাছ ৩৫০-৪০০, বাইলা মাছ ২৫০-৪০০ টাকা, বাইন মাছ ৪০০-৫০০ টাকা, চিংড়ি ৪০০-৮০০ টাকা, পুঁটি ২০০-৩৫০ টাকা, পোয়া ৪০০-৪৫০ টাকা, মলা ৩২০-৩০০ টাকা, পাবদা ৫০০-৬০০ টাকা, বোয়াল ৪৫০-৫০০ টাকা, শিং ৫০০-৭০০, দেশি মাগুর ৪৫০-৭০০ টাকা, শোল মাছ ৫০০-৮০০ টাকা, পাঙ্গাস ১৬০-২৫০ টাকা, চাষের কৈ ২০০-২৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এ ছাড়া ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রামের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ৭০০ টাকায়। ২৫০ থেকে ৩০০ গ্রাম ওজনের ছোট ইলিশ হালিপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৬০০ থেকে ৮০০ টাকায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here