নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: দেশের বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতার অজুহাতে নারায়ণগঞ্জে বেড়েছে নিত্যপণ্যের দাম। গত দুই সপ্তাহে ঘন ঘন বৃষ্টি ও জলাবদ্ধতার কারণে নগরীর কাঁচাবাজার গুলোতে বেশিরভাগ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে। সবচেয়ে বেড়েছে সবজির দাম।
শুক্রবার (৪ আগস্ট) নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এসব তথ্য জানা গেছে।

দ্বিগুবাবুর বাজার ঘুরে দেখা যায়, বৃষ্টিতে কাঁচামালের সরবরাহ কমে গেছে -এ অজুহাতে সবজিসহ কাঁচামরিচ, পেঁয়াজ, আদা, রসুন ও আলুর দাম বাড়ানো হয়েছে। একই সঙ্গে মাছের দরও বেশ চড়া। এতে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষরা পড়েছেন বিপাকে। অনেকে বাড়তি দামের কারণে কাঙ্খিত পণ্য কিনছেন না।

বিক্রেতারা বলছেন, অতি বর্ষণে অনেক স্থানে কাঁচা পণ্য নষ্ট হয়ে গেছে। ফলে এসব নিত্যপণ্যের দাম বেড়েছে। এভাবে চলতে থাকলে দাম আরও বৃদ্ধির আশঙ্কা রয়েছে।

গত সপ্তাহের তুলনায় কিছু সবজির দাম প্রায় দ্বিগুণ বেড়েছে। আবার কিছু সবজির দাম ১০ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে। বাজারে সব থেকে দাম বেড়েছে কাঁচামরিচের। প্রতি কেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ১২০ থেকে ১৬০ টাকায়।

এ ছাড়া আমদানি করা টমেটো ৬০, ঢেঁড়স ৪০-৫০, করলা ৪০-৬০, পটোল ৪০-৬০, কচুরমুখী ৫০-৬০, ধুন্দল ৪৫-৫০, ঝিঙ্গে ৪০-৫০, পেঁপে ৩০-৪০, বরবটি ৫০-৬০, কাঁকরোল ৪০-৬০ নতুন শিম ১০০-১২০ টাকা টাকায় কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।
বাজার ঘুরে আরও জানা যায়, দেশি পিঁয়াজ দাম বেড়ে কেজি প্রতি ৪০ টাকা এবং আমদানি করা ভারতীয় পিঁয়াজ ২৮ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বেগুন কেজি প্রতি ৬০-৮০ টাকা, শিম ১২০ টাকা; হাইব্রীড টমেটো ১৬০ টাকা, দেশি টমেটো ১০০ টাকা, শসা ৫০ টাকা, চাল কুমড়া ৫০-৫৫ টাকা, কচুর লতি ৬০-৬৫ টাকা, পটোল ৫০-৬০ টাকা, ঢেঁড়স ৫০-৬০ টাকা, ঝিঙ্গা ৬০ টাকা, চিচিঙ্গা ৫০-৬০ টাকা, করলা ৫০-৫৫ টাকা, কাকরোল ৫০ টাকা, পেঁপে ৪০-৫০ টাকা, কচুরমুখী ৫০-৫৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

বিক্রেতা সাদ্দাম হোসেন জানান, টানা বৃষ্টিতে স্থবিরতা ছাড়াও খানাখন্দে ভরা রাস্তাঘাট ও যানজটের কারণে পরিবহন ব্যয় বেড়ে গেছে। ফলে বাজারে সময়মত সবজির ট্রাক পৌঁছাতে পারছে না। এর প্রভাব পড়েছে বাজারে।

এদিকে কয়েক সপ্তাহ আগে বেড়ে যাওয়া মাছের দাম কমেনি। উল্টো আরও বেড়েছে। বিভিন্ন মাছ বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আকারভেদে প্রতি কেজি রুই ২৫০-৩৫০, সরপুঁটি ৩৫০-৪৫০, কাতল ৩৫০-৪০০, তেলাপিয়া ১৪০-১৮০, সিলভারকার্প ২০০-২৫০, চাষের কৈ ২৫০-৩৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এ ছাড়া পাঙ্গাস প্রতি কেজি ১৫০-২৫০, টেংরা ৬০০, মাগুর ৬০০-৮০০, প্রকারভেদে চিংড়ি ৪০০-৮০০, প্রতিটি ইলিশ ৮০০-১৫০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here