নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: গৃহিনীদের রান্না ক্ষেত্রে যে দু’টি উপাদান না থাকলে রান্নায় অপূর্ণতা রয়ে যায়, সেই দু’টি মশলারই ঝাঁজ যেন প্রতিনিয়ত বাড়ছে নগরীর বাজারে। তবে সপ্তাহখানেক যাবত পেঁয়াজের দাম বাড়তি থাকলেও তার সাথে এবার যোগ হয়েছে ফের কাঁচামরিচ।
মাত্র একদিনের ব্যবধানে মরিচের দাম কেজিপ্রতি বেড়েছে দ্বিগুণ।

শুক্রবার (১ ডিসেম্বর) সাপ্তাহিক ছুটির দিনে নগরীর দ্বিগুবাবুর বাজার, মীনা বাজার, কালীরবাজার ঘুরে এমনই তথ্য মিলেছে।

কাঁচাবাজার ঘুরে জানাগেছে, বৃহস্পতিবার যেখানে কেজিপ্রতি মরিচ বিক্রি হয়েছিল ৮০ থেকে ১০০ টাকা দরে, সেখানে একদিনের ব্যবধানে বেড়ে সেই মরিচ শুক্রবার বাজারে বিক্রি হয়েছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকা কেজি দরে।

দ্বিগুবাবুর বাজারে গিয়ে দেখাগেছে, ব্যবসায়ীরা প্রতিকেজি মরিচ বিক্রি করছেন ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়।

আর মীনাবাজার বাজারে গিয়ে দেখাগেছে, ব্যবসায়ীরা ১০০ গ্রাম মরিচ ২০ টাকা এবং ২৫০ গ্রাম মরিচ ৫০ টাকার নিচে বিক্রি করছেন না। অথচ একদিন আগেও ব্যবসায়ীরা ২৫০ গ্রাম মরিচ ২৫ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি করেছেন বলে অভিযোগ করেন ক্রেতারা।

এব্যাপারে কালীরবাজারের সবজি বিক্রেতা সোলেয়মান মিয়া জানান, আড়তে মরিচের দাম বেড়ে গেছে। বুধবারের তুলনায় শুক্রবার দিগুণ দাম দিয়ে আড়ৎ থেকে মরিচ কিনে আনতে হয়েছে। তন্মধ্যে বেশী দাম দিয়েও অনেকে মরিচ কিনতে পারেনি। তাই বেশী দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।

অপরদিকে, নভেম্বর মাসের প্রথম তিন সপ্তাহে দেশী ও আমদানী করা পেঁয়াজ যথাক্রমে ৮০ ও ৬০ টাকা কেজি প্রতি বিক্রি হলেও শেষ সপ্তাহে এসে তা ১০০ টাকায় দাঁড়ায়। বর্তমানে কেজিপ্রতি দেশী পেঁয়াজ ৯৫-১০০ টাকা ও আমদানী করা পেঁয়াজ ৮৫-৯০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এব্যাপারে বিক্রেতারা জানান, নতুন পেঁয়াজ এখনো বাজারে আসেনি। এর সঙ্গে আমদানীগত কিছু সমস্যা হওয়ায় বাজারে দাম বেড়ে গেছে। তবে আশা করা যায় চলতি সপ্তাহের শেষ নাগাদ বাজারে নতুন পেঁয়াজের আমদানী হলেই পেঁয়াজের দাম কমে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here