নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রেল লাইনের চাষাড়া থেকে নারায়ণগঞ্জ রেল ষ্টেশন পর্যন্ত অংশ তুলে ফেলার জন্য নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে প্রস্তাব পাঠানোর প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে নারায়ণগঞ্জ ঐতিহ্য রক্ষা সংগ্রাম কমিটি।
শনিবার(১৫ জুলাই) সকাল ১০ টা হতে ১ ঘন্টা ব্যাপী নারায়ণগঞ্জ রেল ষ্টেশনে সংগঠনের আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট এ.বি. সিদ্দিক এর সভাপতিত্বে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নারায়ণগঞ্জ ছিল বর্হিবিশ^ থেকে এই বঙ্গে প্রবেশের দ্বার। ১৮৬২ সালে নারায়ণগঞ্জের সাথে গোয়ালন্দের ষ্টিমার সার্ভিস চালু হলে এ অঞ্চলের গুরুত্ব স্ববিশেষ বৃদ্ধি পায়। ১৮৮২ সালে নারায়ণগঞ্জ মহকুমা ঘোষিত হয় এবং এ বৎসরই রেলওয়ের প্রয়োজনে রেল কর্তৃপক্ষ নারায়ণগঞ্জ বাসী ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের নিকট থেকে ভূমি অধিগ্রহণ করে এবং অধিগ্রহণকৃত জায়গায় রেল লাইন বসায়। অনেক ভূমিই রয়েছে যা অধিগ্রহণের পর হইতে আজও পর্যন্ত কোন কাজ না করার ফলে এখনও পতিত অবস্থায় রয়েছে। অথচ ১৩২ বৎসরের ঐতিহ্যবাহী নারায়ণগঞ্জ রেলষ্টেশন স্থানান্তরের প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রালয়ে পাঠিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক। মানব বন্ধনে সংগঠনের সদস্য সচিব মোঃ সানোয়ার তালুকদার বলেন, এটি একটি অবাস্তব প্রস্তাব। ট্রেন চলাচল এখনকার মতই রেখে এবং যানজট কমাতে জেলা প্রশাসকের বর্তমান কার্যালয়ের সামনে থেকে নিতাইগঞ্জ পর্যন্ত ফ্লাইওভার নির্মাণ করা যেতে পারে। তাছাড়া যানজট নিরসনে চতুর্থ প্রজন্মের আধুনিক ব্যাটারি চালিত ভ্যার্চুয়াল ট্রাক বাস চালু করলে যানজট কমানো সম্ভব।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশেনের ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরণ বিশ^াস বলেন, এরুটে ৩২টি ট্রেন প্রতিদিন আসা যাওয়া করে। প্রতিটি বগিতে ৯০ জনের সিট থাকলেও বসে ও দাঁড়িয়ে প্রতিটি বগিতে শতাধিক মানুষ চলাচল করে। সেই হিসাবে প্রতিটি ট্রেনে ২১০০ জন লোক এবং প্রতিদিন প্রায় ৬৭ হাজার লোক ট্রেনে যাতায়াত করে। এখান থেকে রেল ষ্টেশন স্থানান্তর হলে প্রতিদিন প্রায় ৫ শত এরও বেশি বাস প্রয়োজন হবে। যা আরো অধিক যানজটের কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ন্যাপ এর সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আওলাদ হোসেন বলেন অতি দ্রুত রেলষ্টেশন উচ্ছেদের নামে রেলের সম্পদ বিনষ্ট করার চিন্তা বাদ দিয়ে যানজট দূর করা বিকল্প ব্যবস্থা গ্রহণ করুন।

মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রোকনউদ্দিন আহম্মেদ বলেন, নারায়ণগঞ্জে যানজট কমানোর জন্য কয়লা ঘাট থেকে বিভিন্ন রুটে ওয়াটার বাস চালু করা যেতে পারে।

নারায়ণগঞ্জের জেলা যুবলীগের সভাপতি আব্দুল কাদির, যানজট কমানোর জন্য ঐতিহ্যবাহী নারায়ণগঞ্জ রেলষ্টেশন এখানে রেখেই আরো আধূনিক শহর গড়ে তোলার আহ্বান জানান।

নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরীফ উদ্দিন সবুজ বলেন, এখান থেকে রেলষ্টেশন স্থানান্তর হলে নি¤œ ও মধ্য আয়ের মানুষের যাতায়াত ব্যয় ৫ গুন বেশী হবে। ফলে মানুষের মধ্যে চরম দুর্ভোগ দেখা দিবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খান, নারায়ণগঞ্জ ঐতিহ্যবাহী রেলষ্টেশন রক্ষা করার জন্য দলমত নির্বিশেষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

সংগঠনের যুগ্ম সচিব এড. জাহিদুর রহমান, রেলষ্টেশন উচ্ছেদের প্রস্তাব এর তীব্র বিরোধীতা করে তা প্রত্যাহারের অনুরোধ জানান।

বাপা জেলার সাধারণ সম্পাদক মোঃ তারিক বাবু বলেন, ঐতিহ্য রক্ষা সংগ্রাম কমিটি যে আন্দোলনের ডাক দিয়েছে আমরা তাদের সাথে একাত্বতা ঘোষণা করছি।

দৈনিক ইয়াদ এর সম্পাদক মো: তোফাজ্জল হোসেন বলেন, রেলষ্টেশন উচ্ছেদের প্রস্তাব অবিলম্বে প্রত্যাহার করুন।

নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির কোষাধ্যক্ষ হাজী আঃ হাই বলেন, নারায়ণগঞ্জ রেলষ্টেশন স্থানান্তর হলে আরও তীব্র যানজট সৃষ্টি হবে।

কার্যকরী সদস্য লোকমান আহম্মেদ বলেন, বন্দর বাসী ও দক্ষিন বঙ্গের কথা চিন্তা করে পাঠানো প্রস্তাব প্রত্যাহোরের দাবী জানান।

সভাপতি সমাপনী বক্তব্যে এডভোকেট এ বি সিদ্দিক বলেন, বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোন থেকে আরও উন্নত ব্যবস্থা নিয়ে ঐতিহ্যবাহী এই রেলষ্টেশণকে আরও আধুনিক ও যুগপোযুগী করে সেবার মান, পরিধি বৃদ্ধি করুন এবং কোন ভাবেই চাষাড়া রেলষ্টেশন নারায়ণগঞ্জ রেলষ্টেশনের বিকল্প হতে পারে না। তিনি আরও বলেন বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মতামত না নিয়ে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক যে প্রস্তাব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে পাঠিয়েছেন তা অবিলম্বে প্রত্যাহার করা না হলে নারায়ণগঞ্জ বাসীদের নিয়ে দুর্বার আন্দোল গড়ে তোলা হবে। মানব বন্ধন সঞ্চালনা করেন মোঃ আসাদুল হক সরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here