নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি, সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানা এলাকায় থেকে হাফেজ সৈয়দ মোঃ ইসহাক ওরফে মাওলানা ইসহাক ওরফে হাফেজ মাওলানা ইসহাক (৫০) নামে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন জেএমবি’র সারোয়ার গ্রুপের এক সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার হয়েছে। মঙ্গলবার গভীর রাতে র‌্যাব-১১ সদস্যরা অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে। এ সময় তার নরসিংদীর বেলাবর বাসা এবং দোকান হতে বিপুল সংখ্যক জঙ্গীবাদী বই ও লিফলেট উদ্ধার করে। গ্রেফতারকৃত মাওলানা ইসহাক গত ২২ আগষ্ট বন্দর থানায় র‌্যাব-১১ এর দায়ের করা একটি মামলার (নং-৬৯) এজাহার নামীয় পলাতক আসামী। বুধবার বিকেলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে র‌্যাব-১১ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো: শাকিল আহমেদ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানায়, গ্রেফতারকৃত মাওলানা ইসহাক ২০০২ সালে জনৈক ইজাজের মাধ্যমে জঙ্গীবাদে উদ্বুদ্ধ হয়। ২০০৮ সালে ধানমন্ডির হাতেমবাগ মসজিদে জসিমউদ্দিন রাহমানির সঙ্গে তার প্রথম সাক্ষাত হয়। পরবর্তীতে ২০১১ সাল থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত মোহাম্মদপুরের বসিলার জসিমউদ্দিন রাহমানির মসজিদের ১০ সদস্যের পরিচালনা কমিটির সদস্য হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। সে জসিমউদ্দিন রাহমানির একান্ত সহকারী হিসেবে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে দাওয়াতী কাজের জন্য ভ্রমণ করেছে।

২০১৩ সালে জসিমউদ্দিন রাহমানি গ্রেফতার হওয়ার পর সে বেশ কিছুদিন আত্মগোপনে থাকে। পরে তার নিকট আত্মীয় মাওলানা আব্দুল হাকিমের সঙ্গে জেএমবির সাংগঠনিক কার্যক্রমে সক্রিয় হয়। পরবর্তীতে সংগঠনের কিছু বিষয়ে জেএমবির (সারোয়ার গ্রুপ) দাওয়াতী শাখার শীর্ষ নেতা শায়েখ আরিফের সঙ্গে তার দ্বন্দে¡র সৃষ্টি হয়।

সে জেএমবির শীর্ষ নেতা তাসলিমের ভাইয়ের মাধ্যমে জেলখানাসহ বিভিন্ন স্থানে জসিমউদ্দিন রাহমানিকে ভাগে ভাগে ২ লাখ ৫৩ হাজার টাকা প্রদান করেছে বলে স্বীকার করে। জেলখানা থেকে জসিমউদ্দিন রাহমানির পাঠানো নির্দেশনা স¤¦লিত চিঠিপত্র সংগঠনের অন্যান্যদের কাছে প্রেরণের মাধ্যমে সে জেএমবির কার্যক্রম চালিয়ে আসছিল। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে র‌্যাব জানায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here