নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: সিদ্ধিরগঞ্জে মুক্তিপণের দাবীতে এক শিশুকে অপহরণের পর হত্যার দায়ে তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেছেন আদালত। একই সাথে দন্ডপ্রাপ্তদের ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

বুধবার (৯ আগস্ট) দুপুরে সকল আসামীর উপস্থিতিতে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-১ মিয়াজী শহীদুল আলম চৌধুরী।

এছাড়াও লাশ গুমের দায়ে প্রত্যেক আসামীকে সাত বছর কারাদ-সহ পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা অনাদায়ে আরও তিন মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়।

দ-প্রাপ্তরা হলেন শেরপুরের নকলা উপজেলার ধামনা ধনকুশা গ্রামের নেয়ামত আলীর ছেলে হামিদুল হক (৩০), তার বোন আফরোজা (২৫) ও ফুফাত ভাই নকলা উপজেলার রামাইসা গ্রামের লাক্কর মিয়ার ছেলে মো: রিপন (২৮)।

আদালতের অতিরিক্ত পিপি আব্দুর রহিম জানান, ২০১৩ সালের ৭ সেপ্টেম্বর সিদ্ধিরগঞ্জের জালকুড়ি এলাকার ইসমাঈল হোসেনের ছেলে রমজানকে অপহরণ করেন বাড়ির ভাড়াটিয়া হামিদুল, রিপন ও আফরোজা।

অপহরণের পর তারা তাকে শেরপুরের নকলা এলাকায় নিয়ে মোবাইল ফোনে রমজানের বাবার কাছে মুক্তিপণ দাবি করেন। মুক্তিপণ না দেওয়ায় তারা তাকে গলাটিপে হত্যার পর লাশ গুম করেন।

এরপর এ ঘটানায় রমজানের মা সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা করলে পুলিশ আসামীদের গ্রেফতার করেন। পরে তাদের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী নকলার চাপাঝুড়ি সেতু এলাকা থেকে রমজানের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

তদন্ত শেষে ২০১৪ সালের ৩১ মার্চ তিনজনের বিরুদ্ধে ২৪ জনকে সাক্ষী করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ।

শিশু রমজান জালকুড়ি পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র ছিল।

এদিকে, রায় ঘোষণার পর রমজানের মা মার্জিয়া বেগম হতাশা প্রকাশ করে বলেন, ‘আমরা আসামীদের ফাঁসি প্রত্যাশা করেছিলাম। এ রায়ের বিরুদ্ধে আমরা উচ্চ আদালতে যাব।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here