নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র ওয়ান ম্যান শো নেতা ‘পল্টিবাজ’ এটিএম কামাল নিজেকে এখন মূলধারার নেতা দাবী করলেও তৃণমূলের কাছে এখনো নিজের গ্রহনযোগ্যতা তৈরী করতে পারেননি। যার ফলে তার নিজস্ব কোন কর্মী বাহিনী এখনো তৈরী হয়নি। তাই সব সময়ই শীর্ষ কোন নেতার ছায়াতলে থেকে নিজেকে প্রমাণের আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি বলে এমনটাই মন্তব্য করেন শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতা।

বিএনপির রাজনীতিতে মিডিয়ামুখী এটিএম কামাল প্রথমে এড. তৈমূর আলম খন্দকার, এরপর মো: গিয়াস উদ্দিন, মোহাম্মদ আলী শেষ করে বর্তমানে ভর করেছেন এড. আবুল কালামের ঘাড়ে।

নারায়ণগঞ্জ বিএনপি সূত্রে জানা যায়, নগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল একজন ‘পল্টিবাজ’। এ সুবিধাবাদী নেতা যখন যে দিকে বাতাস বয়, সে দিকেই পাল তোলেন। কখনো তাকে দেখা গেছে জেলা বিএনপি’র সভাপতি তৈমূর আলমের কাছের লোক হিসেবে, আবার কিছুদিন পরেই ভোল পাল্টে কখনো সাবেক এমপি মোহাম্মদ আলী কিংবা গিয়াসউদ্দিনের লেজুরবৃত্তি করতে। ২০০১ পরবর্তী সময়ে এ মুখোশধারী নেতাও বিএনপি’কে পল্টি দিয়ে যোগ দিয়েছিলো এলডিপিতে। কিন্তু সেখানে সুবিধা করতে না পেরে আবারো দলে ফিরে এসেছেন। নিজ স্বার্থের জন্য তিনি দলের মায়া ত্যাগ করতে বিন্দুমাত্র দ্বিধা করেন না।

সূত্র আরো জানায়, এটিএম কামালের রাজনীতির হাতেখড়ি বিএনপি চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এড. তৈমর আলম খন্দকারের হাত ধরে। দীর্ঘদিন প্রবাস জীবন কাটিয়ে দেশে ফেরা এটিএম কামালের নিজস্ব কোন লোকবল না থাকায় তৈমূরের সান্নিধ্যে থেকে শুরু করেন নিজেকে পরিচিত করার কাজ। তৈমূরের সাথে থাকার প্রয়োজন ফুরিয়ে গেলে চলে যান নতুন গন্তব্যে।

এরপর একে একে সাবে এমপি মো: গিয়াসউদ্দিন, মো: আলী, কাজী মনির হয়ে বর্তমানে বাসা বেঁধেছেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালামের ডেরায়। আর এতে করে ক্ষোভের সঞ্চার হয় নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূলে। একসময় এই আবুল কালামকেই সংস্কারবাদী উল্লেখ করে তার কুশপুত্তলিকা দাহ করেছিলেন এটিএম কামাল। আর আজ নিজ স্বার্থে সেই কালামের সান্নিধ্যেই নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করার স্বপ্ন দেখছেন এটিএম কামাল। তৃণমূলের ক্ষোভের সবচেয়ে বড় কারন হলো এটিএম কামালের বিএনপি ছেড়ে এলডিপিতে যোগদান এবং সেখানে সুবিধা করতে না পেওে আবারো বিএনপিতে প্রত্যাবর্তন। যে কামাল একদিন এলডিপিতে গিয়ে খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে বক্তব্য দিয়েছিলেন, সেই কামালই যখন বিএনপির প্রথম সারির নেতা হয়ে যান, তখন তৃণমূলের ক্ষোভ প্রকাশ করা ছাড়া আর কিইবা করার থাকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here