নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি, বন্দর প্রতিনিধি: সাহায্যের নামে এক শ্রমিককে একটি বাড়িতে প্রায় ৫ ঘন্টা আটক রেখে শারীরিক নির্যাতনের পর অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে প্রতারণার অভিযোগে ৩ প্রতারক নারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।
বুধবার রাতে এলাকাবাসীর সহায়তায় তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত প্রতারক নারীরা হলো- বেবী (৪৫), নার্গিস (৪০) ও পুলিশ র্সোসের স্ত্রী আমেনা বেগম (৩৫)। পরে বন্দরের ত্রিবেনী এলাকা থেকে আটক শ্রমিক ইকবাল (৩৫) কে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় রাতেই ইকবাল বাদী হয়ে বন্দর থানায় মামলা করেছে। মামলা নং-৫৩।

জানা গেছে, বুধবার বিকেলে ফতুল্লা থানার ভোলাইল এলাকার নিকবর মিয়ার ছেলে শ্রমিক ইকবাল তার বন্ধুর সঙ্গে দেখা করতে কাইকারটেক এলাকায় আসে। পুলিশ র্সোস মামুনের পরামর্শে তার স্ত্রী আমেনা বেগম নবীগঞ্জ এলাকার মৃত শহিদুল্লাহ মিয়ার স্ত্রী নার্গিস ও শহরের গলাচিপা এলাকার মৃত আক্তার মিয়ার মেয়ে বেবী (৪৫), বন্দর ত্রিবেনী এলাকার হাকিম মিয়া ও স্ত্রী জয়নব বানু শ্রমিক ইকবালের নিকট থেকে সাহার্য প্রার্থনা করে। পরে উল্লেখিতরা কৌশলে ইকবালকে একটি বাড়িতে নিয়ে আটক রেখে শারীরিক নির্যাতন করে এবং অশ্লীল ভিডিও ধারণ করে ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি প্রদান করে। এক পর্যায়ে শ্রমিক ইকবাল নিজেকে বাঁচানোর জন্য বিকাশের মাধ্যমে হামিদের নিকট থেকে ৫ হাজার, আরিফের নিকট থেকে ৫ হাজার ও আক্তারের নিকট থেকে ৫ হাজার টাকাসহ সর্বমোট ২০ হাজার ৫০০ টাকা পুলিশ র্সোস মামুন শেখের হাতে তোলে দেয়।

বিষয়টি স্থানীয় এলাকাবাসী জানতে পেরে বন্দর থানা পুলিশে সংবাদ জানালে পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে শ্রমিক ইকবালকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় বেবী, নারর্গিস ও আমেনা বেগম নামে তিন প্রতারক মহিলাকে গ্রেপ্তার করলেও পালিয়ে যায় পুলিশ সোর্স মামুন শেখ, তার শ্বশুড় হাকিম মিয়া ও শ্বাশুড়ী জয়নব বানু। পুলিশ গ্রেপ্তারকৃত তিন নারীকে আদালতে পাঠিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here