নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ফতুল্লার কুতুবপুরের দেলপাড়ায় পবিত্র কোরআন অবমাননাকারী যুবক হাসান উল ইসলামের বিরুদ্ধে আইসিটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ভূইঘরস্থ আল আরাফা জামে মসজিদের ঈমাম মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ বাদী হয়ে আইসিটি আইনে মামলাটি দায়ের করেন।
রবিবার (১৪ জানুয়ারী)আদালতে হাসান উল ইসলামকে পুলিশ হাজির করে ১০দিনের রিমান্ড আবেদন করলে জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মেহেদী হাসান ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ১০ জানুয়ারী কুতুবপুরের দেলপাড়া এলাকার মাছ মজিবুরের ছেলে হাসান উল ইসলাম তার নিজের ফেসবুক আইডিতে, পবিত্র কোরআনকে অবমাননা করে ৯টি আপত্তিকর ছবি পোষ্ট করে। তার ঐ ছবি পোষ্ট করাকে কেন্দ্রকরে কুতুবপুরের বিভিন্ন এলাকায় ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। তার পোষ্ট করা ছবিগুলো ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে উঠে। বিভিন্ন দিক থেকে প্রতিবাদের ঝড় বয়ে যায় ফেসবুকে। কোরআনকে অবমাননা করে ছবি পোষ্ট করায় গত শুক্রবার বাদ জুম্মা কুতুবপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে মুসুল্লীরা সমবেত হয়ে বিক্ষোভ করে। এক পর্যায়ে বিক্ষোভকারীরা হাসানুলের বাড়িঘর ভাংচূর করতে উদ্যত হয়। পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় চেয়ারম্যানের আশ্বাসে বিক্ষুদ্ধ জনতা হাসান উল ইসলামের বাড়ি ভাংচূর করা থেকে বিরত থাকে। শুক্রবার রাতে সোনারগাঁ থানা এলাকার চেকপোষ্ট থেকে হাসান উলকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

শনিবার রাতে হাসানুলের বিরুদ্ধে ভূইঘর এলাকার আল আরাফা জামে মসজিদের ঈমাম সিদ্দিকুল্লাহ বাদী হয়ে আইসিটি আইনে একটি মামলা দায়ের করেন। এসময় তার সাথে ছিলেন পাগলা তালতলা ম্দ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মহিউদ্দিন খান, একই মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক মাওলানা হাবিবুর রহমান ও হাজী মিছির আলী মাদ্রসার শিক্ষক মুফতি ওবায়দুল্লাহ। রোববার সকালে ফতুল্লা মডেল থানা পুলিশ হাসানকে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করে ১০দিনের রিমান্ড আবেদন করে। পুলিশের আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত হাসানুলের ৫দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

একটি সূত্র জানায়,দেলপড়ার এলাকার মওলা বক্স মসজিদ সংলগ্ন মাছ মুজিবুরের ছেলে হাসান উল ইসলাম। ছোটবেলা টাইফয়েড জ্বরে সে আক্রান্ত হয়। এরপর তার বাম পা বাঁকা হয়ে যায়। তার স্বজনরা পাটিকে ভারতে চিকিৎসা করায়। কিন্তু তা ঠিক হয়নি। দার্জিলিং থেকে হাসানুল ও লেভেল পাস করে বর্তমানে বাবার ব্যবসা দেখা শুনা করছে। দার্জিলিং থাকাবস্থায় মাদক সেবন করা শুরু করে সে। এরপর দেশে ফিরে এসে বিয়েও করে। তবে মাদক সেবন আর সে ছাড়তে পারেনি সে। এ ছাড়াও পারিবারিকভাবে হাসান অনেকটা মানষিকভাবে বিপর্যস্ত ছিল। ১০ জানুয়ারী সে পোস্তগোলা সংলগ্ন একটি বার থেকে মদ পান করে বাসায় ফেরে। বাসায় আসার পর সে তার বন্ধুকে গাজার জন্য মোবাইলে ফোন করে। তার সেই বন্ধুটি তাকে রাতের বেলা গাজা না দিয়ে ঘোরারাঘুরি করে। এ কারনে সে অনেকটা ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। পরে ঘরের মধ্যে থাকা বেশ কিছু বইয়ের সাথে পবিত্র কোরআনকে ঘরের বাইরে এনে অবমাননা করে বেশ কিছু ছবি তুলে ফেসবুকে পোষ্ট করে।

এব্যাপারে ফতুল্লা মডেল থানার ওসি কামাল উদ্দিন বলেন, প্রাথমিকভাবে হাসান উল ইসলাম তার অপরাধ স্বীকার করেছে। পারিবারিক নানা বিষয়ে সে বিপর্যস্ত ছিল বলে জানা গেছে। তবে পুরো বিষয়টি উদঘাটন করতে তাকে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করে আদালতে পাঠানো হয়েছিল। বিজ্ঞ আদালত ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here