নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রায় ১০ মাস পর আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে প্যানেল মেয়র নির্বাচন।
আর ভোটের মাধ্যমেই পুরুষ প্যানেল মেয়র-১ ও ২ এবং একজন নারী প্যানেল মেয়র নির্বাচিত করবেন ২৭ টি ওয়ার্ডের ২৭ জন পুরুষ ও ৯ জন নারী কাউন্সিলর।

কিন্তু প্রতীক বিহীন এই নির্বাচনে প্রার্থীদের দলীয় ভাবে কোন সমর্থন না জানানো হলেও নির্বাচন মানেই যে রাজনীতিকরন, তা ইতিমধ্যেই পরিলক্ষিত হয়েছে। তাই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগ, বিরোধী দল জাতীয় পার্টি ও বিএনপি পন্থী কতজন কাউন্সিলর প্যানেল মেয়র নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছেন, এনিয়েও কাউন্সিলর তথা রাজনীতিবিদদের মাঝেও নানা বিশ্লেষন চলছে। স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান হলেও কোন দলের প্রার্থী আগামীতে প্যানেল মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হবেন, তা নিয়েও চলছে ব্যাপক গবেষণা।

জানাগেছে, নগর ভবনে আগামী ২৭ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১০ টায় অনুষ্ঠিতব্য মাসিক সভা অনুষ্ঠিত শেষে হবে প্যানেল মেয়র নির্বাচন। যেখানে মেয়র ব্যাতীত সকল কাউন্সিলররা ভোট দিয়ে ৩ জন প্যানেল মেয়র নির্বাচন করবেন। আর এই নির্বাচনে এবার আওয়ামীলীগ পন্থী ৫ জন, বিএনপি পন্থী ৪ এবং জাতীয় পার্টি পন্থী ৩ জন কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়ার লক্ষ্যে ভোট প্রার্থণায় মাঠে নেমে পড়েছেন। তবে শেষতক নির্বাচনের আগ মূহুর্তে প্রার্থী সংখ্যা আরো কমে যেতে পারে বলে ধারনা করছেন কাউন্সিলররা।

আওয়ামীলীগ পন্থী প্রার্থীদের মধ্যে প্যানেল মেয়র-১ পদে, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ওমর ফারুক, ১৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নাজমুল আলম সজল, ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল করিম বাবু, ২৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুদ্দিন আহম্মেদ দুলাল প্রধান ও প্যানেল মেয়র-২ পদে ৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ¦ মতিউর রহমান মতি প্রতিদ্বন্দীতা করবেন।

বিএনপি পন্থী প্রার্থীদের মধ্যে প্যানেল মেয়র-১ পদে, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, প্যানেল মেয়র-২ পদে ৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মো: সাদরিল এবং প্যানেল মেয়র-৩ পদে ৭, ৮, ৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর মোসাম্মৎ আয়শা আক্তার দিনা ও ১৬, ১৭, ১৮ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর আফসানা আফরোজ বিভা প্রতিদ্বন্দীতা করবেন।

জাতীয় পার্টি পন্থী হিসেবে প্যানেল মেয়র-১ পদে, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ১৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিউদ্দিন প্রধান, ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আফজাল হোসেন এবং প্যানেল মেয়র-৩ পদে ১৩, ১৪, ১৫ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত আসনের নারী কাউন্সিলর শারমিন হাবিব বিন্নি প্রতিদ্বন্দীতা করবেন।

আর তাই এই নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীকে প্যানেল মেয়র নির্বাচিত করার ক্ষেত্রে দলীয় কাউন্সিলরদের ভূমিকা অনেক বেশী থাকবে বলে মন্তব্য করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

তবে কোন প্রার্থীর কাছ থেকে কাউন্সিলরগণ যদি আর্থিক সুবিধা বা উপঢৌকন নিয়ে ভোট প্রদান করেন তাহলে নির্বাচন বাতিলের হুঁশিয়ারীও দিয়েছেন মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভী।

জানাগেছে, গত বছর ডিসেম্বরে দ্বিতীয় মেয়াদে অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পর তিন মাসের মধ্যেই প্যানেল মেয়র নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। সেই লক্ষ্যে বেশ উৎসাহের সহিত প্যানেল মেয়র নির্বাচনের প্রার্থী হতে জোরেশোরে প্রস্তুতিও নিতে শুরু করেছিলেন কাউন্সিলররা।

কিন্তু সিটি নির্বাচনে বিএনপি, জাতীয়পার্টি ও সাংসদ শামীম ওসমান সমর্থিত বেশীরভাগ আওয়ামীলীগ প্রার্থী কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়ায় এতদিন মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভী কাউন্সিলরদের কার্যক্রম পর্যবেক্ষন করায় প্যানেল মেয়র নির্বাচনে এতটা সময় অতিবাহিত হয়ে যায়।

কেননা, প্যানেল মেয়র নির্বাচনটি কেবল মেয়রের সদিচ্ছাতেই অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে। মূলত প্যানেল মেয়র-১ যিনি নির্বাচিত হবেন, তিনি মেয়রের অবর্তমানে ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করে থাকেন। আর মেয়রসহ প্যানেল মেয়র-১ যদি কোন কারনে কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকেন তাহলে পর্যায়ক্রমে প্যানেল মেয়র-২ ও ৩ দায়িত্ব পালন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here