নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি, সোনারগাঁ প্রতিনিধি: বকেয়া বেতনের দাবীতে সোনারগাঁয়ের মোগরাপাড়া ইউনিয়নের ছোট সাদিপুর এলাকায় শ্রমিকরা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এসময় শ্রমিকরা ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক প্রায় দেড় ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) সকালে কাজে যোগ না দিয়ে ক্যানটাকি গার্মেন্টের শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ ও বিক্ষোভ করে।

শ্রমিক বিক্ষোভের সময় মহাড়কের যান চলাচল বন্ধ থাকে। মহাসড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। যানজটে আটকা পড়ে শত শত যাত্রীরা ভোগান্তিতে পড়েছেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে গার্মেন্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে বেতন পরিশোধের আশ্বাস দিলে শ্রমিকরা বিক্ষোভ তুলে নিয়ে কাজে যোগ দেন।

শ্রমিকরা জানায়, মোগরাপাড়া ইউনিয়নের ছোট সাদিপুর এলাকায় অবস্থিত ক্যানটাকি গার্মেন্টে প্রায় আড়াই হাজার শ্রমিক কাজ করে। এ গার্মেন্টের শ্রমিকদের ৩ মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে। ৩ মাসের বেতন বকেয়া থাকার পরও গার্মেন্ট কর্তৃপক্ষ সোমবার সন্ধ্যায় জানিয়ে দেয় এ মাসের বেতন আগামী ১৯ তারিখের আগে পরিশোধ করা যাবে না। এ কথা শুনে শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকালে সকল শ্রমিক একত্রিত হয়ে কাজে যোগ না দিয়ে গার্মেন্টের পাশে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করতে থাকে। বিক্ষোভের কারনে মহাসড়কে যান চালাচল সম্পূর্ণভাবে বন্ধ হয়ে যায়। এসময় মহাসড়কের উভয় পাশে মেঘনা টোল প্লাজা থেকে শুরু করে মদনপুর পর্যন্ত প্রায় ৮ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়। যানজটে আটকা পড়ে যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন।

ক্যানটাকি গার্মেন্টের মেশিন অপারেটর আঞ্জুমান বেগম, তানিয়া আক্তার ও সামসুন নাহার বলেন, আমাদের গার্মেন্ট শ্রমিকরা ৩ মাস ধরে বেতন পাচ্ছে না। এ মাসেও বেতন দিতে কর্তৃপক্ষ গড়িমসি শুরু করছে। তাছাড়া আমাদের ৩ মাসের দোকান বাকি ও ছেলে মেয়েদের স্কুলের বেতন দিতে পারছি না। এ মাসেও যদি আমরা বেতন না পাই তাহলে আমরা কি খেয়ে বাঁচবো।

ফিনিশিং বিভাগের শ্রমিক আতাউর,কাশেম, কুলসুম বেগম বলেন, আমাদের ৩ মাস ধরে বেতন না দিয়ে পুনরায় বেতন ১৯ তারিখের আগে দিতে পারবে বলে জানিয়ে দেয়। আমাদের ঘর ভাড়া, দোকার বাকি পড়ে আছে। গার্মেন্ট কর্তৃপক্ষ বেতন না দিলে আমরা এ টাকা কিভাবে পরিশোধ করবো।

ক্যানটাকি গার্মেন্টের এডমিন ম্যানেজার ফিরোজ আলম বলেন, আমাদের কোন বেতন বকেয়া নেই। ব্যাকিং সমস্যার কারনে ১৯ তারিখের আগে বেতন পরিশোধ করা সম্ভব না বলে এমডি স্যার সোমবার সন্ধ্যায় শ্রমিকদের বুঝিয়ে বলেছেন। শ্রমিকরা এটা মেনেও নিয়েছেন। কিন্তু কিছু শ্রমিক অন্যান্য শ্রমিকদের ভুল বুঝিয়ে মহাসড়ক অবরোধ করিয়েছেন। পরবর্তীতে শ্রমিকরা কাজে যোগ দিয়েছেন।

সোনারগাঁ থানার ওসি তদন্ত আব্দুল জাব্বার বলেন, শ্রমিকরা মহাসড়কের উঠার পর বেতন পরিশোধ করার আশ্বাসের পর শ্রমিকরা মহাসড়ক থেকে কাজে যোগ দিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here