নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জে বিএনপি’র রাজনীতিতে রাজপথের দখল অব্যহত রাখছে যুবদল, জেলা ও মহানগর বিএনপি কিংবা অঙ্গ সংগঠন রাজপথ ছেড়ে আশ্রয় নিচ্ছে গ্রামে অথবা চার দেয়ালের পরাকাষ্ঠে কিংবা অলিগলিতে-বিভিন্ন ইস্যুতে চলমান সরকার বিরোধী আন্দোলনের চিত্র এমনটাই স্বাক্ষ্য দিচ্ছে বলে মনে করেন রাজনীতি বিশ্লেষকরা।
হামলা-মামলার ভয়কে জয় করে ঠিকই রাজপথের কতৃত্ব ধরে রেখেছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদল, সবগুলো কর্মসূচিতে না পারলেও জেলা যুবদলও রাজপথ ছেড়ে যায়নি। অথচ চলমান আন্দোলন কর্মসূচির একটিতেও রাজপথ উত্তপ্ত করতে পারেনি জেলা কিংবা মহানগর বিএনপি। আর বাকী সহযোগী সংগঠনগুলো রাজপথতো দুরের কথা, কোথাও কোন কর্মসূচিই পালন করতে পারেনি। আর তাই যুবদলের কাছ থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেদের রাজনীতির চর্চা বদলানোর তাগিদ ক্রমেই জোড়ালো হচ্ছে বাকীদের জন্য।

সূত্রে প্রকাশ, বিএনপি’র চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়া বিদেশ সফরে থাকার সময়ে তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারীর প্রতিবাদে জোরদার আন্দোলনের সূচনা। নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র বিক্ষোভ সমাবেশে পুলিশে হামলা চালালে নেতাকর্মীদের বিপদের মুখে ফেলে পালিয়ে যান সভাপতি কাজী মরিুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ। আর প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েও পুলিশের ভয়ে সভাপতির বাসার চারদেয়ালে আশ্রয় নেয় নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি। কিন্তু একই ইস্যুতে শহরের চাষাঢ়ায় রাজপথে বিক্ষোভ মিছিল করে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদল আর দেওভোগে পুলিশের হামলার ভয়কে পেছনে ফেলে বিক্ষোভ মিছিল শুরু কওে জেলা যুবদল। কিন্তু পুলিশের আক্রমনের মুখে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় তাদেও মিছিল এবং পুলিশের লাঠিচার্জে আহত হন জেলা যুবদলের সভাপতিসহ প্রায় দশজন নেতাকর্মী।

এরপর চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়া রোহিঙ্গাদের ত্রাণ বিতরণ করতে কক্সবাজার যাওয়ার পথে তার গাড়িবহওে হামলার প্রতিবাদে আবারো সেই সভাপতির বিলাসবহুল ঘরে বসে বিক্ষোভ করে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি। জেলা বিএনপিও সিদ্ধিরগঞ্জের কার্যালয়ে বসে বিক্ষোভ পালন করে। একমাত্র নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদল শহরের গলাচিপা মোড় থেকে চাষাঢ়া পর্যন্ত সড়কে বিক্ষোভ মিছিল করে রাজপথের অধিকার ধরে রাখে।

সর্বশেষ কক্সবাজার থেকে ঢাকায় ফেরার পথে আবারো চেয়ারপার্সণের গাড়িবহরে হামলার প্রতিবাদে সারাদেশে বিক্ষোভের ডাক দেয় বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটি।

১ নভেম্বর যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মসূচি থাকলেও বরাবরের মতো রাজপথে নিজেদের ধারাবহিকতা অক্ষুন্ন রেখে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে থেকে শুরু করে শহরের বুক দাবরিয়ে চাষাঢ়া গোল চক্কর পেরিয়ে তোলারাম কলেজ পর্যন্ত বিক্ষোভ মিছিল করেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। আর মাঠেই নামেনি জেলা যুবদল কিংবা ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দল। ২ নভেম্বর একই ইস্যুতে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়ে পুলিশের ভয়ে শহর ছেড়ে এবার নদী পার হয়ে বন্দর পালিয়েছে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি আর প্রেসক্লাবের পিছনে চাষাঢ়া বালুর মাঠের গলিতে দাড়িয়ে ফটোসেশন করে জেলা বিএনপি’র নেতারা। মূল দলের কাছ থেকে সহযোগী সংগঠনের রাজনীতি শিখার কথা থাকেলেও নারায়ণগঞ্জে যুবদলের সাহসিকতা অনুসরনের জন্য নারায়ণগঞ্জের বিএনপি নেতাদের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছে দলটির মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here