নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং নারায়ণগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসক আনোয়ার হোসেন বলেছেন, শেখ হাসিনা জাতির পিতার আদর্শকে বুকে ধারণ করে এগিয়ে যাচ্ছে। তিনি মুখে যা বলেন তাই করে দেখান। বিদেশী সহায়তা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরেও শুধুমাত্র মানুষকে দেয়া প্রতিশ্রুতি রাখতেই নেত্রী নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর কাজ করে যাচ্ছে। এছাড়াও রাজাকারদের শাস্তি প্রদানসহ জাতির পিতার খুনীদের বিচারের আওতায় আনছেন। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এখন উন্নত আয়ের দেশে পরিণত হয়েছে। অপরদিকে খালেদা জিয়া এবং তার পুত্র তারেক জিয়া দেশকে ধ্বংসের পাঁয়তারা করছে। দেশের উন্নয়নের অগ্রযাত্রা থামিয়ে দিতে তারা নানান চক্রান্ত করে যাচ্ছে। সুতরাং দেশের চলমান উন্নয়ন ধরে রাখতে এসকল চক্রান্ত নতসাৎ করে দিয়ে আগামীতেও আওয়ামী লীগ সরকারকে যে কোন মূল্যে ক্ষমতায় আনতে হবে। সেই লক্ষ্যে কারো রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল) বিকেলে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উপলক্ষ্যে নগরীর ২নং রেলগেটস্থ দলীয় কার্যালয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এক সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

আনোয়ার হোসেন আরো বলেন, আওয়ামী লীগের কর্মী সংগ্রহের ক্ষেত্রে আমাদের সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। যারা দলের ভেতর প্রবেশ করে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করে আওয়ামী লীগের বদনাম করবে, এমন ধরণের বাইট্টা ইন্দুরদের দলে ভীড়তে দেয়া যাবে না।

বিএনপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে মহানগর আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী এড. খোকন সাহা তার বক্তব্যে বলেন, যারা জিয়াউর রহমানকে এদেশের স্বাধীনতার ঘোষক বলেন, তারা মুক্তিযোদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে কিছুই জানেন না। জিয়াউর রহমান মুজিব নগর সরকার স্বীকার করে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। দেশের ১১টি সেক্টরের মধ্যে তিনি ছিলেন একটি সেক্টরের কমান্ডার। অথচ বিএনপি বলে বেড়ায় জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক। জিয়াউর রহমান তার ঘোষণার সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষ্যে ঘোষণা দিয়েছিলেন। আর বিএনপি ক্ষমতায় এসে স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করে মহান মুক্তিযোদ্ধে বঙ্গবন্ধুর অবদান মুছে ফেলতে চেয়েছিলেন। যারা মুজিব নগর দিবস বিশ্বাস করে না তাদের এদেশে থাকার কোন অধিকার নেই। ইতিহাসের আস্তাকূরে নিক্ষেপ হওয়ার আগে তাদের উচিত এদেশ ত্যাগ করে পাকিস্তানে চলে যাওয়া।

জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক মোঃ জাহাঙ্গীর আলম বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে আমরা নারায়ণগঞ্জের ৫টি আসনেই নৌকার প্রার্থী চাই। তবে সে প্রার্থী হতে হবে প্রকৃত আওয়ামী লীগের প্রার্থী। কোন ভাড়াটিয়া প্রার্থী যারা জাপা থেকে নৌকার মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করবে, তাদের আমরা মেনে নিব না। বিগত দিনগুলোতে সদর-বন্দরে জাপার নেতাদের দ্বারা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অনেক নির্যাতনের শিকার হয়েছে। এই পরিস্থিতি আর চলতে দেয়া যাবে না। লাঙ্গলে মঙ্গল নয়, নৌকায় মঙ্গল। সুতরাং দেশের অন্য যে কোন আসনে লাঙ্গলকে ছাড় দেয়া হলেও নারায়ণগঞ্জের কোন আসনে লাঙ্গলের প্রার্থীকে ছাড় দেয়া হবে না।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি রোকনউদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, জিএম আরমান, সাংগঠনিক সম্পাদক, এড. মাহমুদা মালা, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আতিকুজ্জামান সোহেল, দপ্তর সম্পাদক বিদ্যুৎ কুমার সাহা, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক গাজী আব্দুল রশিদ, জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুদ্দিন আহম্মেদ বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সবুজ শিকদার, জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এড. হাবিব আল মোজাহিদ পলু, মহানগর যুব মহিলা লীগের আহ্বায়ক নুর নাহার সন্ধ্যা, যুগ্ম আহ্বায়ক শারমিন আক্তার ডলি সহ প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here