নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার একটি অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। এখানে গত দশ বছর যাবত এমপি হিসেবে বেশ শক্ত অবস্থান তৈরী করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু। পুরো আড়াইহাজারেই রয়েছে এমপি বাবুর একচ্ছত্র আধিপত্য।

ফলে এ আসনে বাবুর বিরুদ্ধে নির্বাচনে অংশ নিতে অনেক প্রভাবশালী নেতাকেই দ্বিতীয়বার চিন্তা করতে হয়। কিন্তু এবার বাবুর সেই অধিপত্যে ভাগ বসাতে যাচ্ছেন বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে সাংসদ বাবুর সাথে সমান তালে লড়ে যাচ্ছেন তিনি।

আড়াইহাজারবাসী জানায়, আড়াইহাজার থেকে আওয়ামীলীগের টিকিটে টানা দুইবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বাবু। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক থাকা নজরুল ইসলাম বাবু ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগের নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে এমপি নির্বাচিত হন। এরই ধারাবহিকতায় ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসন থেকে বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় এমপি নির্বাচিত হন। এমপি বাবুর গত প্রায় দশ বছরের আচরনে আড়াইহাজারের আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষ হতাশ হয়েছে। বাবুর বিরুদ্ধে ভূমি দস্যুতা, স্বজনপ্রিতি, দলীয় কোন্দল সৃষ্টিসহ একাধীক অভিযোগে লোকজন বাবুর কাছ থেকে সরে আসতে শুরু করে। এমনকি ওয়াজ মাহফিলে দাড়িয়ে মাওলানাদের সাথেও নজরুল ইসলাম বাবু দুর্ব্যবহার করেন। তাছাড়া গত ১০ বছরে আড়াইহাজারের তেমন কোন উন্নয়ন কাজও করতে পারেনি এমপি নজরুল ইসলাম বাবু। এলাকার রাস্তা ঘাট থেকে শুরু করে কোন অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়নি বাবুর সময়ে। আর তাই বাবুর দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেছে উন্নয়নের স্বপ্ন দেখা আড়াইহাজারবাসী। আর এটা বুঝতে পেরেই ক্ষমতা ধরে রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবু এবং নির্বাচনে পেশীশক্তি ব্যবহার করতে চাইছেন।

জানা গেছে, এ আসনে সাংসদ বাবুর প্রতি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনের মাঠে অবতীর্ণ হন কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ। দলীয় মনোনয়ন লাভ করেই আজাদ প্রথমে দ্বিধা বিভক্ত বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধ করার কাজ শুরু করেন। আর এজন্য তিনি সাবেক সাংসদ আতাউর রহমান আঙ্গুরের বাসায় যান ও প্রয়াত নেতা বদরুজ্জামান খসরুর কবর জিয়ারত করে তার নির্বাচনী প্রচার শুরু করেন। এর ফলে সমগ্র আড়াইহাজার বিএনপি এক কাতারে চলে আসে। নির্বাচনী গনসংযোগে আজাদ যেখানেই যাচ্ছেন সেখানেই জনতার ঢল নেমে আসছে। আজাদের এই জনপ্রিয়তা প্রভাবশালী সাংসদ নজরুল ইসলাম বাবুর জন্য চিন্তার কারন হয়ে এখন দেখা দেয়। তাই আজাদের প্রচারনায় বারবার হামলা চালানো হয়, ভয় ভীতি দেখানো হয় নেতাকর্মীদের। এমনকি বাড়ি ঘর ভাংচুর পর্যন্ত করা হয়। কিন্তু আঘাতে ভয় না পেয়ে সকলকে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের ঘোষনা দিয়ে হাজার হাজার নেতাকর্মী নিয়ে ধানের শীষের পক্ষে গনসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন আড়াইহাজারবাসীর স্বপ্নের রূপকার নজরুল ইসলাম আজাদ। ধানের শীষ নিয়ে বাবুর সাথে সমান তালে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here