নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ঢাকার সাথে একই দিনে নারায়ণগঞ্জে মেট্রোরেল চালু করার দাবীতে উদ্যোগ নিয়ে প্রথমে জনসমর্থন পেলেও সম্প্রতি নাগরিক সমাবেশ করে রাজনৈতিক বিষেদাগারমূলক বক্তব্য প্রদানসহ সরকারের বাস্তবায়নাধীন ৩টি সমস্যা ফের নতুন করে নিজের পক্ষ থেকে বাস্তবায়নের দাবী তুলে বিতর্কিত হয়ে পড়েছেন নারায়ণগঞ্জ মেট্রোরেল বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক ও বিএনপির রাজপথ বিমুখ নেতা কামাল মৃধা।
সাংসদ শামীম সমান সম্পর্কে আক্রমনাত্মক বক্তব্য প্রদান এবং নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি এড. এবি সিদ্দিককে ‘প্রতারক’ আখ্যায়িত করে ফের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষমা চাওয়ায় কামাল মৃধাকে ‘ধান্দাবাজ’ আখ্যায়িত করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তীব্র সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে।

আর মেট্রোরেল বাস্তবায়নের দাবীর পাশাপাশি বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকারের বাস্তবায়নাধীন ৩টি নাগরিক সমস্যার বাস্তবায়নও দাবী করে কামাল মৃধা ‘নারায়ণগঞ্জ উন্নয়ণ কমিটি’ করার ঘোষণা দিয়ে নিছক ‘ভন্ডামী’ শুরু করেছেন বলেও অভিযোগ করেন অনেকে।

কারন হিসেবে তারা বলেন, ‘ঢাকার সাথে একই দিনে নারায়ণগঞ্জে মেট্রোরেল চালু করার পাশাপাশি, শীতলক্ষ্যা সেতু নির্মাণ, ডিএনডি বাঁধের বন্যা সমস্যার স্থায়ী সমাধান, এলিভেটেট এক্সপ্রেসওয়ে নির্মান ও শীতলক্ষ্যা নদীর পাশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের দাবী জানানোর লক্ষ্যে কামাল মৃধা যে উন্নয়ন কমিটি করার ঘোষণা দিয়েছেন, তারমধ্যে মেট্রোরেল ও এলিভেটের এক্সপ্রেসওয়ে ব্যাতীত নারায়ণগঞ্জবাসীর অপর তিনটি দাবীই সরকার ইতিমধ্যে বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ শুরু করে দিয়েছেন।

যার মধ্যে সৌদি আরবের আর্থিক অনুদানে ৩৭৭ কোটি ৬৩ লাখ টাকা ব্যয়ে ১ হাজার ২৯০ মিটার দীর্ঘ শীতলক্ষ্যা নদীর পশ্চিম প্রান্তে শহরের সৈয়দপুর ও পূর্ব প্রান্তে বন্দর উপজেলার মদনগঞ্জ সংযোগ করে চার লেনের তৃতীয় শীতলক্ষ্যা সেতু নির্মাণ কাজ ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে।

ডিএনডি বাঁধের জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমস্যার সমাধানের জন্য ইতিমধ্যেই একনেকে ৫৫৬ কোটি টাকা প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। চলতি মাসের মধ্যেই সেনাবাহিনীর তত্ত্ববধানে যার কাজ শুরু হবে।

আর শীতলক্ষ্যা নদী পাড়ে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে প্রতিনিয়তই বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ অভিযান পরিচালনা করছে।

তাই ৫টি দাবীর মধ্যে সরকারের বাস্তবায়নাধীন ৩টি দাবী যুক্ত করে ‘নারায়ণগঞ্জ উন্নয়ণ কর্তৃপক্ষ’ করার নামে কামাল মৃধা নতুন করে মিডিয়ায় নিজেকে হাইলাইটস্ করতে ভন্ডামী শুরু করে দিয়েছেন বলে মন্তব্য করেন সচেতন মহল।

কারন, কামাল মৃধা যদি সত্যিই নাগরিক সমস্যা সমাধানের দাবী করতেন তাহলে সদ্য অনুষ্ঠিত তাদের নাগরিক সমাবেশে একজন রাজনৈতিক সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে আক্রমনাত্মক এবং নাগরিক কমিটির সভাপতির চরিত্রহনন করে কোন বক্তব্য দিয়ে মঞ্চে উপবিষ্ট আরেক রাজনৈতিক দলের সাবেক এমপি এসএম আকরাম ও সাংসদ শামীম ওসমান বিরোধী সিটি মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর প্রশংসা করে মুখে ফেনা তুলতেন না।

এতেই স্পষ্ট হয়, কামাল মৃধা মেট্রোরেল বাস্তবায়নের নামে নতুন করে মিডিয়াতে নিজেকে জাহির করার লক্ষ্যে নতুন মিশনে মাঠে নেমেছেন। আর সরকারের ক্রেডিট নিজের আন্দোলনের ফসল দাবী করে হিরো বনতে চাইছেন। যা সুধীমহলের কাছেও স্পষ্ট হয়ে গেছে বলে গত শুক্রবার ডিআইটিতে ঢাকঢোল পিটিয়ে নাগরিক সমাবেশ করলেও সেখানে উপস্থিত হননি সমাবেশে আমন্ত্রিত অর্ধেকের বেশী বিশিষ্ট নাগরিকরা।

অভিযোগ রয়েছে, এই কামাল মৃধা বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর বেগম খালেদা জিয়াকে ফুলের তোড়া দিয়ে ঘোষনা করেছিলেন একদিন আমার মত নারায়ণগঞ্জের সকল ত্যাগী আওয়ামী লীগাররা বিএনপিতে যোগ দিবে। যদিও ২ দশক পার হলেও কামাল মৃধার সেই স্বপ্ন স্বপ্নই রয়ে গেছে। মাঝে বিভিন্ন অঘটন ঘটিয়ে বিদেশ পাড়ি জমান। পরে আবার নারায়ণগঞ্জে ফিরে আসেন।
যিনি এখন এখন ঢাকার সাথে একই দিনে নারায়ণগঞ্জে মেট্রোরেল চাওয়ার দাবী জানিয়ে নেতা হতে চাইছেন!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here