নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: শহরের ডিআইটি জামে মসজিদে শুক্রবারের জুমার নামাজের সময় নির্ধারণ নিয়ে অসদাচরণ করায় বিএনপির বিতর্কিত নেতা মজিদ খন্দকার ও তার অনুসারী ষড়যন্ত্রকারীদের কঠোর হুঁশিয়ারী দিয়েছেন মসজিদের খতিব ও নারায়ণগঞ্জ জেলা হেফাজতের আমীর মাওলানা আব্দুল আইয়াল।
শুক্রবার (৭ জুলাই) জুমা’র নামাজের বয়ানে তিনি এ হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করেন।

মাওলানা আব্দুল আউয়াল বলেন, মানুষের মধ্যে হিংসা আর বিদ্বেষ এখন চরম আকার ধারন করেছে। নারায়ণগঞ্জসহ সারা দেশে অনেক মসজিদগুলোতে জোহরের নামাজ অনুষ্ঠিত হয় দুপুর সোয়া একটায়। তারই ধারাবাহিকতায় নারায়ণগঞ্জে অনেক মসজিদে জুমা’র নামাজ অনুষ্ঠিত হয় দুপুর সোয়া একটায়। ডিআইটি জামে মনসজিদে দুপুর দেড়টায় হয় জুমা’র নামাজ। শুধুমাত্র মুসল্লিদের কথা চিন্তা করে এই সময় নির্ধারিত হয় আলাপ আলোচনার মাধ্যমে। তার কারন দুর-দূরান্তের মুসল্লিরা এই মসজিদে এসে তাদের নামাজ আদায় করেন। এসব বিষয়ে আগের কমিটির সাথে আমার অনেক বৈরিতা হয়েছিল। আমার তখন মনে হয়েছিল এই মসজিদ ছেড়ে চলে যাই।

তিনি আরো বলেন, ইদানিং কতিপয় ব্যক্তিরা এই মসজিদকে নিয়ে হিংসা করে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। শহরের জিমখানা এলাকার মজিদ খন্দকার তাদের মধ্যে একজন। কিছুদিন আগে আমি জরুরী কাজে রাজশাহী গিয়েছিলাম। তখন নামাজের বিষয়ে আমাকে ফোন করা হয়েছিল। গত জুমায় আমি না থাকায় জুমার নামাজ পড়ানোর দায়িত্ব দেই আমার বড় ছেলেকে। প্রথমে এসে নামাজ পড়াতে বাধা দেয় ষড়যন্ত্রকারীরা। পরে দুপুর দেড়টায় জুমার নামাজ শেষে আমার ছেলের কাছে জানতে চাওয়া হয় কেন এতো দেরীতে নামাজ পড়ানো হলো। এই মসজিদের পাশে কিছু দোকানদার আছে তাদের দোকানে বসেই এই ষড়যন্ত্র করা হয়। আমি যদি তাদের নাম বলি তাহলে কান ধরে তাদেরকে বের করে দেওয়া হবে। এ সময় তিনি কারা কারা জুমার নামাজ দুপুর দেড়টায় আদায় করতে চান হাত তুলতে বললে মুসল্লিরা হাত তুলে তার কথার উত্তর জানায়।

ডিআইটি জামে মসজিদের সম্প্রসারন প্রসঙ্গে মাওলানা আব্দুল আউয়াল আরো বলেন, এখানে মুসল্লি বেশী হওয়ার কারনে টাকা বেশী উঠে। মসজিদের পশ্চিমাংশে নারায়ণগঞ্জ সিটিকরপোরেশন এর বস্তি ভেঙ্গে জায়গা করা হবে আগামী কয়েকদিন পর। সে সময় আমরা মসজিদ কমিটির পক্ষ থেকে মসজিদের জায়গা সম্প্রসারন এর বিষয়ে মেয়র মহাদয়কে অনুরোধ করবো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here