নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: একই স্থানে সপ্তাহের ব্যবধানে অনুষ্ঠিত বিএনপির সমাবেশে যোগদানের প্রাক্কালে নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী সকল গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকলেও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের অনুষ্ঠিত সমাবেশে যোগ দেয়ার সময় সচল ছিল সকল গণপরিবহন চলাচল।
শনিবার (১৮ নভেম্বর) দুপুরে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ‘বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ’ ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃতি পাওয়ায় নাগরিক কমিটির ব্যানারে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ আয়োজিত নাগরিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

এমিরেটস্ অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জমানের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আর উক্ত সমাবেশে যোগ দিতে সকাল থেকেই দলীয় নেতাকর্মীরা বিপুল সংখ্যক গণপরিবহন রিজার্ভ করে নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করলেও এদিন নারায়ণগঞ্জে তেমন পরিবহন সংকট দেখা যায়নি।

শহরের কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল ও চাষাড়ায় ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চলাচলকারী বন্ধন, শীতল, উৎসব পরিবহনের কাউন্টার গুলো সরেজমিন ঘুরে দেখাগেছে, যাত্রী চাপের তুলনায় বাসের জন্য দীর্ঘক্ষণ কোন যাত্রীকে কাউন্টারে অপেক্ষা করতে হয়নি। অন্যান্য দিনের মত এদিনও সাধারন যাত্রীরা নির্দিষ্ট সময়েই নিজেদের কাঙ্খিত গন্তব্যে পৌঁছাতে পেরেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন একাধিক যাত্রী।

অথচ, জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষ্যে গত ১২ নভেম্বর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে যোগ দিতে গণপরিবহন সংকটের কারনে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়েছিল বলে অভিযোগ করেন নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাকর্মীরা।

সেদিন দেখা গিয়েছিল, বিএনপির সমাবেশের কারনে ভোর থেকেই নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী রুটে সকল গণপরিবহন বিকেল পর্যন্ত চলাচল বন্ধ ছিল। এমনকি ট্রেনও নির্দিষ্ট সময়ের অধিক দেরীতে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় স্টেশন থেকে কমলাপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যায়।

ফলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়েছিল নারায়ণগঞ্জবাসীকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here