নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: বিদায়ী ইংরেজী ২০১৭ বর্ষ জুড়েই নানা কারনে নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিবিদ থেকে সাধারন জনগণের মাঝে আলোচিত ছিলেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের হেভীওয়েট দুই জনপ্রতিনিধি, নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভী ও নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ একেএম শামীম ওসমান এবং নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) আসনের জাতীয় পার্টির হেভীওয়েট এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা একেএম সেলিম ওসমান।
যারা শুধু নারায়ণগঞ্জেই নয়, দেশ ছাড়িয়ে বিদেশেও ইতিপূর্বে হয়েছেন আলোচিত সমালোচিত।

জানাগেছে, গত বছর ডিসেম্বরে দ্বিতীয়বারের মত অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে প্রথমবারের মত দলীয় প্রতীকে ডা: সেলিনা হায়াত আইভী মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর চলতি বছরের ৫ জানুয়ারী গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে শপথ গ্রহণ কালে উক্ত অনুষ্ঠানে সাংসদ শামীম ওসমানও উপস্থিত থাকবেন, এমনটাই প্রত্যাশা ছিল সকলের।

কারন, নির্বাচনের পূর্বে শামীম ওসমান বলেছিলেন, ছোট বোন আইভীই মেয়র নির্বাচিত হবেন। আর এই জন্য তাকে শাস্তি পেতে হবে। তবে সেটা শারীরিক নয়, আর্থিক। অর্থাৎ আমি আইসক্রীম খেতে ভালবাসি। আইভী যেদিন গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর কাছে শপথ নিতে যাবে, সেদিন আমিও সেখানে যাবো। আইভী সেদিন প্রধানমন্ত্রীর সামনে আমাকে আইসক্রীম খাওয়াবে।

কিন্তু যথাসময়ে যথাস্থানে আইভী শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হলেও অজানা কারনেই সেই অনুষ্ঠানে শামীম ওসমানই ছিলেন অনুপস্থিত। ফলে এই আইসক্রীম খাওয়া নিয়েই সাধারন মানুষের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হন আইভী ও শামীম ওসমান।

পরবর্তীতে গত মে মাসে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের সুপারিশে যুব মহিলা লীগের কমিটি ঘোষণার পরেও শামীম ওসমানের সুপারিশে কেন্দ্রীয় যুব মহিলালীগ সভাপতি নাজমা ও সাধারন সম্পাদক অপু উকিল আরেকটি পাল্টা কমিটির পুনরায় অনুমোদন দেয়ায় শামীম ওসমানের বিরুদ্ধে কেন্দ্রে নালিশ করেন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন ও সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহা।

এরপর তাদের সাথে মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এড. মাহমুদা মালাসহ জেলা যুব মহিলা লীগের প্রথম কমিটির সভাপতি ইয়াসমিন চৌধুরী লিন্ডা, মহানগর কমিটির আহ্বায়ক নুরুন্নাহার সন্ধ্যা শামীম ওসমানের বিরুদ্ধাচরন করার ফলে রাজনৈতিক অঙ্গনে ফের আলোচিত হয়ে উঠেন শামীম ওসমান।

তারপর, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর গত ৩০ জুলাই জেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে অনুষ্ঠিত দলীয় নতুন সদস্য সংগ্রহ ও নবায়ন কার্যক্রমের উদ্বোধনীতে উপস্থিত প্রধান অতিথি কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের ঢাকা বিভাগীয় যুগ্ম সম্পাদক ডা: দিপু মনি এমপি ও বিশেষ অতিথি ঢাকা বিভাগীয় সম্পাদক ব্যারিষ্টার মহিবুল আলম চৌধুরী নওফেলের কাছে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ জেলার সকল আসনে ‘নৌকার’ প্রার্থী দিতে প্রথমবারের মত দাবী তুলে আলোচনায় উঠে আসেন ডা: সেলিনা হায়াত আইভী।

এরপর থেকেই বিভিন্ন দলীয় কর্মসূচীতে যোগদান করে বক্তব্য প্রদানকালে আগামী নির্বাচনে সব আসনেই দলীয় প্রার্থী দেয়ার জোর দাবী জানানোর পাশাপাশি নারায়ণগঞ্জের দু’টি আসনে ছাড় দেয়া জাতীয় পার্টির তীব্র সমালোচনা করে রাজনীতির মাঠে আইভী আলোচিত হয়ে যান।

তারপর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে গত ১২ আগষ্ট নগরীতে অনুষ্ঠিত স্মরণকালের সর্ববৃহৎ র‌্যালীতে আইভীর উপস্থিত থাকার প্রত্যাশা ব্যক্ত করে শামীম ওসমান দাবী করেছিলেন, ‘শোক র‌্যালীতে আইভীর উপস্থিতিতেই প্রমাণ হবে, যে আইভীর সাথে তার কোন দ্বন্দ নাই।’

কিন্তু সেদিন বৃষ্টি উপক্ষো করেই নগরীতে শামীম ওসমান স্মরণকালের সর্ববৃহৎ শোক র‌্যালী বের করলেও তাতে ছোট বোন মেয়র আইভী ছিলেন অনুপস্থিত।

পরে শোক র‌্যালী পূর্বক সমাবেশে আইভীর অনুপস্থিতির কারনে শামীম ওসমান ভারাক্রান্ত মনে বলেন, ‘আমি প্রত্যাশা করেছিলাম শোক র‌্যালীতে আইভীসহ অন্যান্য শীর্ষ নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত থাকবেন। কিন্তু তারা হয়তো কোন কারনে এখানে উপস্থিত হতে পারেন নাই। তবে আমি প্রত্যাশা করবো আগামীতে দলীয় যেকোন কর্মসূচী সবাই ঐক্যবদ্ধ ভাবে পালন করবেন।’

এরপর সর্ববৃহৎ শোক র‌্যালী করার পাশাপাশি র‌্যালীতে প্রত্যাশা স্বত্ত্বেও আইভীসহ আব্দুল হাই, আনোয়ার হোসেন, খোকন সাহার অনুপস্থিতির কারনে শামীম ওসমানকে নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের রাজনীতিতে নানা আলোচনার সৃষ্টি হয়েছিল, তেমনি আইভীসহ শীর্ষস্থানীয়দের অনুপস্থিতির কারন নিয়েও চলে নানা আলোচনা সমালোচনা।

তারপর রাজনৈতিক নানা ইস্যুতে জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাই, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ আনোয়ার হোসেন, সাধারন সম্পাদক এড. খোকন সাহাসহ শীর্ষস্থানীয় একাধিক নেতাদের শামীম ওসমানের সাথে সম্পর্কের টানাপোড়েনের কারনে নানা আলোচনা সমালোচনার সৃষ্টি হলেও শেষতক মান অভিমান ভুলে সম্প্রতি শামীম ওসমানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে আওয়ামীলীগের এই শীর্ষ নেতারা তার সাথে একত্রিত হয়ে ডিএনডি বাঁধের উন্নয়ণ প্রকল্পের লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা জানানোর লক্ষে আয়োজিত সমাবেশে যোগ দেন।

আর একই অনুষ্ঠানে বিএনপির নেতাকর্মীদের আওয়ামীলীগের যোগদান এবং বিএনপির একাধিক জনপ্রতিনিধির উপস্থিতির পাশাপাশি গুণকীর্ত্তণ করায় ফের আলোচিত হয়ে যান শামীম ওসমান। ফলশ্রুতিতে উক্ত সমাবেশে উপস্থিত পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রীও একপর্যায়ে শামীম ওসমানের প্রশংসা করেন।

অপরদিকে, গত অক্টোবরে অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র নির্বাচনে বিএনপি সমর্থিত নারী কাউন্সিলর আফরোজা হাসান বিভাকে প্যানেল মেয়র-১ নির্বাচিত করার লক্ষ্যে পরোক্ষ ভাবে সহযোগিতা করে এবং প্যানেল মেয়র-৩ পদে মিনোয়ারা বেগমকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করে আলোচিত হয়ে উঠেন মেয়র আইভী।

আর প্যানেল মেয়র-২ পদে নিজ অনুসারী কাউন্সিলর মতিউর রহমান মতি নির্বাচিত হওয়ায় আলোচনায় আসেন শামীম ওসমান।
পরবর্তীতে জেলা পরিষদ এর দু’টি ওয়ার্ডের নির্বাচনে নিজ বলয়ের প্রার্থীদের সদস্য নির্বাচিত করিয়ে আনায় আলোচিত হন আইভী। আর নিজ অনুসারী প্রার্থী পরাজিত হওয়ার কারনে সমালোচিত হন শামীম ওসমান।

তারপর গত ২৫ নভেম্বর ঘোষিত জেলা আওয়ামীলীগের ৭৫ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে নিজ বলয়ের নেতাদের বেশী অধিষ্ঠিত করে আইভী যেমন উঠে আসেন আলোচনায়, তেমনি প্রভাবশালী হওয়া সত্বেও জেলা কমিটিতে নিজ বলয়ের অল্প সংখ্যক নেতাদের পদ প্রাপ্তির পাশাপাশি নিজে কোন পদ না পওয়ায় আলোচনায় উঠে আসেন শামীম ওসমান।

এছাড়া গত নভেম্বরে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেমনের মেয়র হিসেবে আইভী উপ মন্ত্রীর পদমর্যাদা লাভ করায় আলোচিত হয়ে উঠেন। তারপর শামীম ওসমানের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আইভীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির দীর্ঘ তদন্ত শেষে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) আইভীকে দায়মুক্তি দেয়ায় ফের আলোচিত হয়ে উঠেন আইভী ও শামীম ওসমান।

তাছাড়াও গত ২ ডিসেম্বর বেসরকারী টেলিভিশন এটিএন বাংলায় অনুষ্ঠিত ‘সেন্স অব হিউমার’ নামক একটি অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে কথপোকথনের একপর্যায়ে অনুষ্ঠানের উপস্থাপক শাহরিয়ার নাজিম জয়ের কাছ থেকে যেকোন একজনকে সাথে নিয়ে লং ড্রাইভে যাওয়ার প্রস্তাব পেয়ে শামীম ওসমান চিত্র নায়িকা মৌসুমীকে বাদ দিয়ে ছোট বোন আইভীকে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করে এবং একটি জনপ্রিয় বাংলা গাণে নৃত্য দেখিয়ে সাধারন জনগণের কাছে আলোচিত হয়ে উঠেন শামীম ওসমান।

এরপর সদ্য অনুষ্ঠিত এলিট শ্রেণীর ক্লাব হিসেবে পরিচিত নারায়ণগঞ্জ ক্লাব নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী তানভীর আহম্মেদ টিটু শামীম ওসমানের শ্যালক হওয়ায় এবং দীর্ঘ ৫ বছর পর নির্বাচন অনুষ্ঠান আয়োজনে বাধ্যকারী অপর সভাপতি প্রার্থী এড. মাহবুবুর রহমান মাসুম সিটি মেয়র আইভীর সমর্থিত হওয়ায় নির্বাচনের আগ মুহুর্ত পর্যন্ত আইভী শামীম ওসমান যেমন ক্লাব মেম্বারসহ সাধারন মানুষের কাছে আলোচনার বিষয়ে পরিনত হয়েছিল, তেমনি নির্বাচনে টিটুর জয় এবং মাসুমের পরাজয়ের পরেও আইভী ও শামীম ওসমানই সবচেয়ে বেশী আলোচিত হয়।

কিন্তু সর্বশেষ বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে বেশ কয়েকটি অঘটনের মাধ্যমে বছরের শেষ লগ্নে এসেও সর্বত্রই আলোচিত হয়ে উঠেন আইভী ও শামীম ওসমান।

কারন, গত ২ ডিসেম্বর ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে ঢাকা আর্মি স্টেডিয়ামে যাওয়ার পথে গাড়ীর চাকার নাট খুলে গেলেও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভী অল্পের জন্য রক্ষা পান। তারপর গাড়ী থেকে তিনি নেমে দেখেন যে, তাকে বহনকারী জিপ গাড়ীর বাম পাশের একটি চাকার তিনটি নাট আগে থেকেই খোলা ছিল। আর যেই কয়েকটি ছিল, সেগুলো ঢিলা থাকার কারনে গাড়ী থেকে চাকা খুলে যায়।

ফলে এটি কি নিছক দূর্ঘটনা ছিল, নাকি পরিকল্পিত হত্যাকান্ডের চেষ্টা ছিল, এনিয়ে আইভী চলে আসেন সকলের আলোচনায়।

তারপরেও সম্প্রতি নগর ভবনে আইভীর কার্যালয়ে আগন্তুক এক নারীর অনুপ্রবেশ নিয়ে সৃষ্টি হয় নানা আলোচনার।

অপরদিকে, নগরীর নিতাইগঞ্জ ঘাটে মালামাল আনলোডের জন্য অপেক্ষমান শামীম ওসমানের জাহাজের প্রায় ১৫ জন শ্রমিককে রাতের খাবারের সাথে চেতনানাশক ওষুধ সেবন করিয়ে দুবৃর্ত্তদের নাশকতার চেষ্টার ঘটনায় যেমন আলোচনায় উঠে আসেন শামীম ওসমান, তেমনি গত ১৫ ডিসেম্বর নগরী জামতলায় নিজ বাড়ীতে মালয়েশিয়া প্রবাসী সাইফুল ইসলাম শুভ নামক এক যুবকের গোপনে ভিডিও ধারন করার ঘটনায় শংকা প্রকাশ করে সর্বত্র আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিনত হন শামীম ওসমান।

কারন, তার বাড়ীতে যেই মালয়েশিয়া প্রবাসী শুভ গোপনে ভিডিও ধারনকালে আটক হওয়ার পর পুলিশী হেফাজতে থাকলেও এখনো পর্যন্ত তার ভিডিও প্রকৃত রহস্য প্রশাসন উদঘাটন করতে না পারায় প্রতিনিয়তই বিভিন্ন স্থানে শামীম ওসমানের বাড়ীতে আগন্তুক শুভকে নিয়ে চলছে নানা আলোচনা।

কেননা, সাংসদ শামীম ওসমান বরাবরই ছিলেন জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার। আর গোপনে ভিডিও ধারনকৃত শুভ কোন জঙ্গি সংগঠনের সাথে জড়িত কিনা বা সে কেনই বা বিদেশ থেকে দেশে ফিরে নিজের বাড়ীতে না গিয়ে শামীম ওসমানের বাড়ীর ভিডিও চিত্র ধারন করতে নারায়ণগঞ্জে এসেছেন, এনিয়ে এখন সর্বত্রই চলছে উৎসুক জনতার আলোচনা।

তাছাড়াও বিদায়ী বছরের বিভিন্ন সময়ে শহরের জিমখানায় হাতিরঝিলের আদলে নির্মানাধীন লেকের কারনে বহুবছরের বস্তি উচ্ছেদ করে আইভী এবং ডিএনডি বাঁধের উন্নয়ণ প্রকল্পের কাজ শুরু করিয়ে বহু বছর পর প্রায় ২০ লাখ মানুষকে অভিশাপ মুক্ত করাসহ আরো অনেক কারনেই রাজনৈতিক অঙ্গনসহ জনসাধারনের আলোচনার খোড়াকে পরিনত হন ভাই বোন হিসেবে জনসমাদৃত আইভী ও শামীম ওসমান।

তবে বিদায়ী বছরে শামীম ওসমানের মেঝ ভাই এমপি সেলিম ওসমানও সাধারন মানুষের কাছে আলোচনার খোড়াক হয়েছিলেন।
বন্দর পিয়ার সাত্তার আলী লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তিকে কান ধরে উঠবস করিয়ে লাঞ্ছনার অভিযোগে ২০১৭ সালের শুরুতে ঢাকার চীফ জুডিশিয়াল আদালতের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হওয়ায় আলোচনায় আসেন সেলিম ওসমান।

এরপর উন্নয়ণের স্বার্থে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর সাথে বহুবার এক টেবিলে বসার আমন্ত্রণ জানিয়ে বসতে না পারলেও বিদায়ী বছরে বেশ কয়েকজনের মৃত্যুতে উভয়ে পাশাপাশি বসার সুযোগ পেয়ে একাধিকবার সংবাদ শিরোনাম হন।

কিন্তু শেষতক পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী বিদায়ী বছরের ২৩ জুলাই নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের বাজেট অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে আইভীর সাথে উন্নয়ণের লক্ষ্যে একমঞ্চে বসে সর্বত্র আলোচিত হয়ে যান সেলিম ওসমান।

তবে শুধু তাই নয়, সেই অনুষ্ঠানে ছোট বোন আইভীর দাবীর প্রেক্ষিতে বহুবছরের ঝঞ্জাট নিতাইগঞ্জ থেকে মন্ডলপাড়া ব্রীজ পর্যন্ত বিদ্যমান অবৈধ ট্রাক স্ট্যান্ডটি সরিয়ে দিনের বেলায় প্রধান সড়কে মালামাল লোড-আনলোডে নিষেধাজ্ঞা জারি করে সবচেয়ে বেশী জনসাধারনের কাছে আলোচিত হয়ে উঠেন সেলিম ওসমান।

তারপর বন্দরে নিজ অর্থায়ণে বড় ভাই প্রয়াত সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ নাসিম ওসমান মডেল হাই স্কুলটি জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে দিয়ে উদ্বোধন করানোর পর আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) থেকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে এরশাদ সেলিম ওসমানের নাম ঘোষণা করে যাওয়ার পর রাজনৈতিক অঙ্গনে আবারো আলোচিত হয়ে যান সেলিম ওসমান।

সর্বশেষ, অক্টোবরে নিজ অর্থায়নে বন্দরে নির্মিত আরো তিনটি স্কুল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপিকে দিয়ে উদ্বোধন করানোর পর অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত সাধারন জনতার ভালবাসায় মুগ্ধ হয়ে ওবায়দুল কাদেরও আগামী নির্বাচনে উক্ত আসন থেকে সেলিম ওসমানকেই যেন মনোনয়ন দেয়া হয়, সেজন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সহ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদকে অনুরোধ জানানোর আশ^াস দেয়ার পর সাধারন জণগন থেকে রাজনৈতিক অঙ্গন, সর্বত্রই আলোচিত হয়ে উঠেন সেলিম ওসমান।

তবে শুধু এগুলোই নয়, নিজ তহবিল থেকে বিভিন্ন উন্নয়ণ মূলক কর্মকান্ডে এবং মুক্তিযোদ্ধা, অস্বচ্ছল শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অসহায় ব্যাক্তিদের লক্ষ থেকে কোটি টাকা পর্যন্ত অনুদান প্রদান করায় সবসময়ই আলোচিত হয়েছেন এমপি সেলিম ওসমান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here